বিমল কুন্ডু: আগামীকাল ৩ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার শাহজাদপুর প্রেস ক্লাবের সদস্য ও দৈনিক সমকাল পত্রিকার স্থানীয় প্রতিনিধি আব্দুল হাকিম শিমুল হত্যার পঞ্চম বর্ষ। ২০১৭ সনের ২ ফেব্রুয়ারি পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে গুলিবিদ্ধ হয়ে পরদিন নিহত হন তিনি।

এব্যাপারে নিহত শিমুলের স্ত্রী নুরুন্নাহার খাতুন বাদি হয়ে শাহজাদপুর পৌরসভার তৎকালিন মেয়র হালিমুল হক মিরুকে প্রধান আসামী করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ একই বছরের ২ মে মেয়র হালিমুল হক মিরুসহ ৩৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। কিন্তু আসামী পক্ষের নানা কৌশলের কারণে ৫ বছরেও শিমুল হত্যার বিচার কাজ শুরু হয়নি।

এদিকে শিমুল হত্যার বিচার পাওয়া নিয়ে তার স্ত্রীসহ স্বজনরা নানা সংশয় প্রকাশ করেছেন। অবিলম্বে শিমুল হত্যার বিচার কাজ সম্পন্ন করে খুনিদের সর্বেŸাচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তার স্বজনরা। শিমুল হত্যা মামলার বাদি পক্ষের আইনজীবি এ্যাডভোকেট আবুল কাশেম মিয়া জানান, ২০১৮ সালের ২২ জানুয়ারি শাহজাদপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত ( আমলি আদালত) থেকে শিমুল হত্যা মামলাটি সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতে (বিচারিক আদালত) পাঠানো হয়। তিনি জানান, বিচারিক আদালত পর্যায়ক্রমে ৭ বার চার্জ গঠনের শুনানির তারিখ ধার্য করলেও আসামী পক্ষ নানা অজুহাতে সময়ের প্রার্থনা করে চার্জ গঠনে বাধা সৃষ্টি করে।

এদিকে, নিহত সাংবাদিক শিমুলে স্ত্রীর আবেদন ও স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের আন্দোলন সংগ্রামের প্রেক্ষিতে ২০১৮ সালের ২৪ ডিসেম্বর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রানালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ শিমুল হত্যা মামলাটি চাঞ্চল্যকর মামলা হিসাবে প্রজ্ঞাপন জারি করে এবং আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রানালয়ের আইন-২ শাখার ২০১৯ সালের ৪ জুলাই তারিখের স্মারকের প্রেক্ষিতে শিমুল হত্যা মামলাটি (দায়রা ১৮৩/১৮) রাজশাহী দ্রুত ট্রাইব্যুনালে প্রেরণ করা হয়। অপরদিকে রাজশাহী দ্রুত ট্রাইব্যুনালের বাদি পক্ষের আইনজীবি মোমিনুল ইসলাম বাবু জানান, শিমুল হত্যা মামলা (দ্রুত বিচার ট্রাইঃ মামলা নং- ০৬/২০১৯) দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল চার্জ গঠনের জন্য পর্যায়ক্রমে ৫ বার শুনানির তারিখ ধার্য করলেও আসামী পক্ষ প্রতি তারিখেই নানা কৌশলে ২/১ জন আসামীকে গড় হাজির দেখিয়ে সময় প্রার্থনা করে চার্জ গঠনে বাধা সৃষ্টি করে।

তিনি আরও জানান, এক পর্যায়ে আসামী পক্ষের আইনজীবি ছাত্রলীগ নেতা বিজয় মাহমুদকে মারধরের মামলা ও হত্যাকান্ডের ঘটনার ২ মাস পর হালিমুল হক মিরুর স্ত্রী লুৎফুন্নেছা পিয়ারীর দায়ের করা বাড়ি-ঘর ভাংচুরের মামলা ২টির নথি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে তলবের আবেদন করেন। কিন্তু শুনানি শেষে ট্রাইব্যুনালের বিচারক অনুপ কুমার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল আইন ২০০২ এর ১৩ ধারা মতে নথি তলবের আবেদন নামঞ্জুর করেন। পরবর্তীতে ট্রাইব্যুনালের ওই আদেশকে চ্যালেঞ্জ করে আসামী পক্ষ উচ্চ আদালতে আপিল করলে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ শিমুল হত্যা মামলার কার্যক্রম ৬ মাসের জন্য স্থগিত করে রুল জারি করেন। হাইকোর্টে শিমুল হত্যা মামলার বাদি পক্ষের আইনজীবি এ্যাডভোকেট ফকরুল ইসলাম জানান, শিমুল হত্যা মামলার সাথে ওপর দুইটি মামলা একই সাথে বিচারের আবেদন জানিয়ে আসামী পক্ষ হাইকোর্টের বিচারপতি মোঃ রেজাউল হকের বেঞ্চে আপিল করেন। প্রেক্ষিতে হাইকোর্টের ওই বেঞ্চ শিমুল হত্যা মামলার কার্যক্রম ৬ মাসের জন্য স্থগিত করে রুল জারি করেন।

তিনি আরো জানান, ওই আদেশের বিরুদ্ধে নিহত সাংবাদিক শিমুলের স্ত্রী নুরুন্নাহার খাতুন বাদি হয়ে সুপ্রীম কোর্টে এ্যাপিলেট ডিভিশনে লিভ টু আপিল করেন (আপিল নং- ১৮৫৬/২০১৯)। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৯ সালের ৩ ডিসেম্বর প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ শুনানি শেষে ৬ সপ্তাহের মধ্যে রুল নিষ্পত্তির জন্য হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চকে নির্দেশ দেন। কিন্তু প্রায় ২৬ মাস অতিবাহিত হলেও অদ্যবধি চাঞ্চল্যকর এ মামলাটি পেন্ডিং অবস্থায় রয়েছে। এদিকে ৫ বছরেও শিমুল হত্যা মামলার বিচার শুরু না হওয়ায় তার স্বজনদের মধ্যে নানা সংশয় ও হতাশা দেখা দিয়েছে। নিহত সাংবাদিক শিমুলের স্ত্রী নুরুন্নাহার খাতুন অবিলম্বে তার স্বামী হত্যার বিচার কাজ শুরু ও খুনিদের সর্ব্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়ে এ বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এদিকে সাংবাদিক শিমুল হত্যার পঞ্চম বর্ষ উপলক্ষে আগামীকাল শাহজাদপুর প্রেস ক্লাবের উদ্যোগে দিনব্যাপি নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে প্রেস ক্লাব কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাচ ধারন, শিমুলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন, শোকর‌্যালি, মানববন্ধন ও মিলাদ মাহফিল।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে ২ ফেব্রুয়ারি তৎকালিন পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরুর মনিরামপুর মহল্লার বাড়িতে নিয়ে স্থানীয় সরকারি কলেজ শাখার ছাত্রলীগ সভাপতি বিজয় মাহমুদকে মারধর করে তার হাত-পা ভেঙ্গে দেয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মেয়র হালিমুল হক মিরুর সমর্থকদের সাথে বিজয় মাহমুদের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় পুলিশের উপস্থিতিতে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে মেয়র হালিমুল হক মিরুর শর্টগানের গুলিতে সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুল মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হন। পরদিন উন্নত চিকিৎসার জন্য বগুড়া জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ঢাকা নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

Previous articleমুমিনের সফলতা: মুহাম্মদ শামসুল ইসলাম সাদিক
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে ৪ ছিনতাইকারী গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।