ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: মাসখানেক আগে হঠাৎ লিফট বন্ধ হয় ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা হাসপাতালের। লিফটের গেইট লক হয়ে বন্ধ হয়ে যায় পুরো ভবনের লিফট কার্যক্রম। এর কয়েকদিন পর লিফট ঠিক করতে টেকনিশিয়ান আসলেও তা আর মেরামত করা হয়নি। কারন হিসেবে বলা হয়, লিফট বন্ধ হওয়ার কয়েকদিন পর নতুন করে শুরু হয় ভবনের ৯ম ও ১০ম তলার নির্মাণকাজ। তাই সীধান্ত নেয়া হয়, নির্মাণকাজ শেষ না হওয়ার আগ পর্যন্ত এভাবেই বিকল রাখা হবে লিফট।

হাসপাতাল ও গণপূর্ত বিভাগ সূত্রে জানা যায়, দশতলা ভবনের নির্মাণকাজ শেষ হতে সময় লাগবে আরও দুই থেকে আড়াই মাস। এরপরই চালু করা হবে হাসপাতাল ভবনের লিফট। লিফট বন্ধের পর থেকেই চরম দুর্ভোগ-ভোগান্তিতে রয়েছে রোগী ও তাদের স্বজনরা। বিশেষ করে গাইনি, সার্জারি, অর্থপেডিকের রোগীদের হচ্ছে সীমাহীন কষ্ট। লিফট চালু না থাকায় সিড়ি বেয়ে উঠতে হচ্ছে রোগী ও স্বজনদের।

হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী ও তাদের স্বজনদের দাবি, দ্রুত কাজ করে চালু করা হোক লিফট। তবে হাসপাতাল ও গণপূর্ত বিভাগ বলছে, উপরে ভবন নির্মাণকাজ চলমান অবস্থায় লিফট সচল করা অসম্ভব। লিফট বন্ধ থাকায় ইতোমধ্যে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ গাইনী বিভাগকে ৭ম তলা থেকে ৩য় তলায় স্থানান্তর করেছে। এছাড়াও বর্তমানে চতুর্থ তলায় অপারেশন থিয়েটার, ষষ্ঠ তলায় সার্জারি ও অর্থপেডিক ওয়ার্ড রয়েছে।

গত সোমবার (২১ মার্চ) চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার আজাইপুর এলাকার মো. রোকসানা (৬৫) তার গর্ভবতী মেয়েকে হাসপাতালে ভর্তি করান। জামাই ও নিজে মিলে মেয়েকে কোলে তুলে ভবনের তৃতীয় তলায় গাইনী ওয়ার্ডে উঠিয়েছেন। তিনি বলেন, হঠাৎ অসুস্থ হওয়ায় গর্ভবতী মেয়েকে হাসপাতালে নিয়ে আসি। তিনতলায় উঠাতে গিয়ে দেখি লিফট বন্ধ রয়েছে। তাই বাধ্য হয়েই কোলে করে মেয়েকে উপরে উঠিয়েছি। আমাদের মতোই সকলের একই অবস্থা। জরুরিভাবে লিফট ঠিক করা দরকার।

২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা হাসপাতালের ষষ্ঠ তলায় সার্জারি ওয়ার্ডের ৬১০নং কক্ষের ১৫নং বেডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন শিবগঞ্জ উপজেলার নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নের হরিনগর গ্রামের মাসুদ রানা। তার শাশুড়ী সুবিয়ারা বেগম (৫০) জানান, জামাইয়ের অপারেশন হয়েছে, তাই এখানে এসেছি। গতকালকে ৬ বার উঠতে-নামতে হয়েছে। বারবার ওষুধ-খাবার আনতে নিচে যেতে হয়। লিফট চালু থাকলে এমন কষ্ট হতো না।
সদর উপজেলার চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের বাখের আলী গ্রামের নূর মোহাম্মদের ছেলে জিয়াউর রহমান বলেন, আমার ছেলে ইমরান আলী (১০) ১০ দিন আগে সিড়ির উপর থেকে পড়ে মাথায় জখম হয়েছে। এতে ব্যাপকভাবে মাথা ছিলে যায়। পরে সেখানে ইনফেকশন হয়ে গেলে হাসপাতালে নিয়ে আসি। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য রোগীকে নিয়ে বারবার উঠতে নামতে হয়। এতে অনেক কষ্ট হচ্ছে। লিফট টা দ্রুত ঠিক করা দরকার।
দশ মাস আগে টাঙ্গাইলে মাওলানা ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্মাণকাজ করার সময় তিনতলা থেকে পড়ে পা ভেঙে যায় শিবগঞ্জের ঘোড়াপাখিয়া ইউনিয়নের বহরম গ্রামের বিশু মন্ডলের ছেলে ভিখারুল ইসলামের। এরপর থেকে বাম পায়ে কোন শক্তি পান না তিনি। চলাফেরা করছেন দুই বগলে লাঠির সহযোগিতা নিয়ে। চাচাতো ভাই আবুল কালাম আজাদ ভর্তি আছেন অর্থপেডিক ওয়ার্ডের ৬১৪ নম্বর কক্ষে। তাকে দেখতে ভিখারুল ইসলাম ছুটে এসেছেন হাসপাতালে।

তিনি বলেন, কয়েকদিন থেকে চাচাতো ভাই হাসপাতালে ভর্তি আছে। তাই দেখতে এসেছি। বাম পায়ে কোন শক্তি না পাওয়ায় লাঠির উপর ভর দিয়ে হাঁটাচলা করি। ছয় তলায় উঠতে গিয়ে এক সিঁড়ি এক সিঁড়ি করে উঠতে হয়। লিফট চালু না থাকায় এক মিনিটের পথ প্রায় ২৫ মিনিট লেগেছে সিঁড়ি বেয়ে উঠতে।

হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স মোস্তারিন খাতুন জানান, গত এক-দেড় মাস থেকে লিফট বন্ধ রয়েছে। এতে রোগী, স্বজন ও হাসপাতালের স্টাফদের সিঁড়ি বেয়ে উঠতে নানা ভোগান্তি ও কষ্ট করতে হচ্ছে। তবে কি কারনে লিফট বন্ধ তা জানি না।

২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. মো. মাসুদ পারভেজ বলেন, ইতোমধ্যে নবম তলার ছাদ ঢালাইয়ের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। গণপূর্ত বিভাগ জানিয়েছে, দশম তলার কাজ শেষ হওয়ার আগেই লিফটের কাজ সম্পন্ন করা হবে। এতে আরও দুই-আড়াই মাস সময় লাগবে। জরুরি ভিক্তিতে ইতোমধ্যে গাইনী বিভাগকে ৭ম তলা থেকে ৩য় তলায় স্থানান্তর করেছে। তবে নির্মাণকাজ চলমান অবস্থায় লিফট চালু করার বিকল্প কোন সমাধান নেই বলে জানিয়েছে গণপূর্ত বিভাগ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ গণপূর্ত অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মহসীন মুঠোফোনে জানান, বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে করোনাকালীন সময়ের জন্য জেলা হাসপাতালের নির্মানাধীন নবম-দশম তলায় ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট বা আইসিইউ নির্মাণ করা হবে। তাই জরুরি ভিক্তিতে নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে। উপরে নির্মাণকাজ চলমান অবস্থায় লিফট সচল করা অসম্ভব। তাই লিফট চালুর বিষয়ে নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার অপেক্ষায় থাকতে হবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ (সদর) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওদুদ বলেন, হাসপাতালের নবম-দশম তলার কাজ চলছে। তাই লিফটের উপরের ঢাকনা খোলা হয়েছে। গণপূর্ত বিভাগকে দ্রুত কাজ শেষ করার জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তারা দুই মাস সময় চেয়েছে৷ এছাড়াও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ৫ম, ৬ষ্ঠ ও ৭ম তলার রোগীদেরকে অন্য জায়গায় চিকিৎসা দেয়ার বিষয়ে অনুরোধ করা হয়েছে। যাতে রোগীদের খুব বেশি কষ্ট না হয়।

Previous articleআত্মীয়ের বিয়েতে গিয়ে আর বাড়ি ফেরা হলো না গৃহবধূর
Next articleদেশের ইতিহাস নতুন প্রজন্মের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।