বিমল কুন্ডু: আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের উপদেষ্টা ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটনকে মুক্তিযোদ্ধাদের সকল অনুষ্ঠানে বয়কট করার ঘোষনা দেয়া হয়েছে। মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে শাহজাদপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের যুবলীগ নেতা ড.সাজ্জাদ হায়দার লিটনের ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ, অশালীন বক্তব্য ও হুমকির প্রতিবাদে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড যৌথ ভাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ ঘোষনা দেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠকালে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের আহবায়ক ও সাহিত্যিক বরকত উল্লাহ কলেজের অধ্যক্ষ তাহসীন হোসেন জানান , ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। একপর্যায়ে অনুুষ্ঠান চলাকালে স্থানীয় এমপি প্রফেসর মেরিনা জাহান কবিতাকে আমন্ত্রন করা হয়নি মর্মে অভিযোগ তুলে তিনি হৈ হট্টগোল শুরু করেন এবং ঔদ্ধত্যপূর্ণ ও অশালীন বক্তব্য দেন । এ ঘটনায় উপস্থিত মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ওo মুক্তিযোদ্ধা সন্তানেরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান পন্ড হওয়ার উপক্রম হয়। এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ শামসুজ্জোহার হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনার প্রতিবাদে তারা সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করার প্রস্তুতি নিলে সাজ্জাদ হায়দার ও তার ভাই রাসেদুল হায়দার মোবাইল ফোনে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও ভয়ভীতি দেখান এবং মামলা দিয়ে হয়রানি করার হুমকি দেন। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে মহান স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করা এবং অসত্য ও বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয় এবং আগামীতে মুক্তিযোদ্ধাদের সকল অনুষ্ঠানে সাজ্জাদ হায়দার লিটনকে বয়কটের ঘোষণা দেয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার বিনয় কুমার পাল, সহকারি কমান্ডার আব্দুল মতিন, সহকারি কমান্ডার আজাদ শাহ নেওয়াজ ভুঁইয়া, সহকারি কমান্ডার আব্দুস সাত্তার কুদরতী, সহকারি কমান্ডার মজিবর রহমান, সন্তান কমান্ডের যুগ্ন আহবায়ক এ কে এম ফজলুল হক যুবলীগ কেন্দ্রীয় নেতা সাজ্জাদ হায়দারের বক্তব্যের নিন্দা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন। তারা অভিযোগ করেন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের গঠনতন্ত্রে উপদেষ্টার কোন পদ নেই। অথচ ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের উপদেষ্টা পরিচয় দিয়ে সরকারের বিভিন্ন দপ্তর থেকে নানা অবৈধ সুযোগ-সুবিধা নিয়ে থাকেন।

এ ব্যাপারে ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। একটি মহল মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে শাহজাদপুরে কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকসহ শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা উপস্থিত ছিলেন।

Previous articleবিএনপি রাজনীতির মাঠ গরমের ষড়যন্ত্র করছে: ওবায়দুল কাদের
Next articleকুষ্টিয়ায় পুকুর খননে মিলল প্রাচীন মূর্তি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।