এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকত অব্যাহত ভাঙ্গনের কারনে পানি উন্নয়ন বোর্ড নতুন করে ২ কোটি ৫৯ লাখ টাকার একটি প্রকল্পের কাজ শুরু করেছেন।এতে কুয়াকাটা সৈকতের বালুক্ষয় রোদের কারনে জিওটিউব দিয়ে প্রতিরক্ষা বাঁধ নির্মান কাজ করা হচ্ছে। এ বছর বর্ষা মৌসুমের আগেই এ কাজ শুরু হওয়ায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ।

বিগত বছর থেকে এ বছর কাজটি আরো বেশি টেকসই করার লক্ষে জিওটিউব ও ব্যাগে মোটা দানার বালি ব্যবহার করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প সংশ্লিষ্ঠরা। তবে কুয়াকাটা সৈকত রক্ষায় অস্থায়ী এ ব্যবস্থার বদলে স্থায়ী ও টেকসই প্রকল্প গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন স্থানীয়রা।সৈকত রক্ষায় পরীক্ষামূলক প্রতিরক্ষাকাজের’আওতায় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কলাপাড়া অফিস তদারকি করছেন। গত ১২ ফেব্রুয়ারি থেকে বাঁধ নির্মাণের কাজ শুরু হয়ে ৩০ জুন কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। বাঁধ নির্মাণের কাজটি করেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কে কে এন্টারপ্রাইজ।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কলাপাড়া কার্যালয় সূত্রে জানা যায়,কুয়াকাটা সৈকতের জিরো পয়েন্ট থেকে পশ্চিম দিকে আধা কিলোমিটার এবং পূর্ব দিকে দেড় কিলোমিটার এলাকায় জিও টিউব ও জিও ব্যাগ দিয়ে ভাঙ্গন রোধে প্রতিরক্ষা দেয়াল নির্মান করা হচ্ছে। এ জন্য ১৪ হাজার ৩৮৪টি জিও ব্যাগ ও ১২৯টি জিও টিউব তৈরি করা হয়েছে। ঢাকার বিজে টেক্সটাইল থেকে উন্নত মানের জিও টিউব ও ব্যাগ এনে তাতে বালু ভরাট করা হচ্ছে। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ২ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। অনুন্নয়ন রাজস্ব খাতের অর্থ ব্যয় করে এ বাঁধ নির্মাণ করা হবে। সরেজমিন গিযে দেখা যায়,কুয়াকাটা সৈকতে জিও টিউব ও জিও ব্যাগ প্রস্তুত করার কাজ করছেন শ্রমিকেরা। সৈকতের তীরভূমি থেকে ১০০ মিটার দূরত্বে ইতিমধ্যে তৈরি করা জিও টিউব ও জিও ব্যাগগুলো ফেলা হয়েছে। গত বছর লোকাল বালু দিয়ে কাজ করা হলেও এবার কাজটি আরো বেশী টেকসই করার জন্য চাঁদপুর থেকে মোটা দানার আস্তর বালু এনে জিওটিউব ও ব্যাগে ভরা হচ্ছে। এসব যাতে কেউ নষ্ট করে না ফেলে সে জন্য শ্রমিকসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের নজরদারি রয়েছে। পাউবো কলাপাড়ার নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফ হোসেন জানান, গত দুই বছর আগে একই পদ্ধতিতে কাজটি করা হয়েছিল,এটা ঠিক। তবে ওই সময়ের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে এবারের বাঁধটা বাস্তবায়ন করার চেষ্টা চলছে। ওই সময় কাজটি করা হয়েছিল বর্ষার সময়। যার কারণে কাজটি টেকসই হয়নি। এ ছাড়া আগেরবার স্থানীয়ভাবে বালু সংগ্রহ করা হয়েছিল।

এবার কাজের জন্য চাঁদপুর থেকে কার্গোতে করে বালু এনে ব্যবহার করা হচ্ছে। আরও একটি কৌশলগত ব্যাপার হলো, এবার কাজটি বর্ষা মৌসুমের বেশ আগেই শুরু করা হয়েছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা বলেন,ভাটার সময় যেখানে পানির লেভেল থাকে,সেখানে জিও টিউব ও ব্যাগগুলো ফেলা হচ্ছে। প্রথমে জিও টিউব ফেলা হবে।এরপর এর দুই পাশে জিও ব্যাগগুলো ফেলা হবে। বাঁধের উচ্চতা মোট ৫ ফুট। এর মধ্যে ভাটার সময় জিও টিউব ও ব্যাগ ২ ফুট নিমজ্জিত থাকবে;ওপরের দিকে জেগে থাকবে ৩ ফুট। কুয়াকাটা পৌরসভার সাবেক মেয়র আবদুল বারেক মোল্লা জানান,প্রতি বছর কুয়াকাটা সৈকত বর্ষা মৌসুমে ভেঙ্গে যায়। এ বছর যাতে সে ভাঙ্গন থেকে এলাকাবাসী রক্ষা পায় তার জন্য পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীর কাছে তারা দলীয় ভাবে আবেদন জানান। তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে পানি সম্পদ প্রতি মন্ত্রী জাহিদ ফারুক কুয়াকাটা পরির্দশনে এসে জরুরী রক্ষনাবেক্ষনের আওতায় এ কাজের নির্দেশ দেন।

এবার দ্রুত সময়ে বাঁধ নির্মানে খুশি ব্যবসায়ীসহ সাধারন মানুষ। কুয়াকাটা পৌর মেয়র মো.আনোয়ার হাওলাদার জানান,সাময়িকভাবে জিওটিউব ও ব্যাগ দিয়ে ভাঙ্গন কিছুটা প্রতিরোধ করা গেলেও স্থায়ী ভাঙ্গনরোধে জরুরী ভিত্তিতে পদক্ষেপ গ্রহন করা দরকার। তিনি দ্রুততম সময়ের মধ্যে স্থ্ধসঢ়;ায়ী বাঁধের দাবী জানান। এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড পটুয়াখালী অঞ্চলের তত্ত্ববধঅয়ক প্রকৌশলী মো.কাইছার আলম জানান,কুয়াকাটা সৈকত রক্ষায় প্রিকোশনারী এ প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে। স্থায়ীভাবে টেকসই বেরীবাধ নির্মানের জন্য একটি প্রকল্প ইতিমধ্যে পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ে প্রেরন করা হয়েছে। একনেকে পাস হলে খুব দ্রুত এটির কাজ শুরু হবে। কুয়াকাটা যেহেতু সরকারের সু নজরে আছে তাই অল্প সময়ের মধ্যেই এ প্রকল্প অনুমোদন হয়ে কাজ শুরু হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

Previous articleনামাজ পড়ে বাড়ি ফেরা হলো না প্রকৌশলী হালিমুর রশীদের
Next articleএই রমজান মাসেও আ.লীগের নেতাকর্মীদের মিথ্যা বলতে কোনো জুড়ি নেই: রিজভী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।