শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাটে কাশিয়াবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের নিরাপত্তার প্রহরি জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে গোপন ক্যামেরা নিয়ে বিদ্যালয়ে চলাফেরা করেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এঘটনায় আজ রোববার দুপুরে ক্ষুব্দ শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফা ও নিরাপত্তা প্রহরী জাকির হোসেনকে একটি কক্ষে অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে পুলিশ বিদ্যালয়ে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। পুলিশ ডিভাইসসহ নিরাপত্তার প্রহরি জাকির হোসেনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। পরে ডিভাইসটি জব্দ করে আটক নিরাপত্তা প্রহরিকে থানা থেকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।

স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, কাশিয়াবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফার সঙ্গে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির একটি পক্ষের দ্বন্দ্ব চলছে। এতে বিদ্যালয়টির সহকারীর শিক্ষকদের সঙ্গেও প্রধান শিক্ষকের দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে। যে কোনো সময় সহকারী শিক্ষক ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির একটি পক্ষের লোকজন তাঁকে লাঞ্ছিত করতে পারেন বলে তিনি আশঙ্কা করছেন। ঘটনার প্রমাণ রাখতে নিরাপত্তার প্রহরিকে গোপন ক্যামেরা কিনে দিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। নিরাপত্তা প্রহরি গোপন ক্যামেরা নিয়ে বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ ও শিক্ষকদের কক্ষে যাতায়াত করেন। নিরাপত্তা প্রহরির গোপন ক্যামেরা নিয়ে বিদ্যালয়ে ঘুরাফেরার কথা শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা জানতে পারেন।

বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা জানান, প্রধানশিক্ষকের মদদে নিরাপত্তা প্রহরী জাকির হোসেন শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের গোপন ক্যামেরা দিয়ে ভিডিও ধারণ করে আসছিলেন। তাঁরা কয়েকবার তাঁকে সতর্কও করেছিলেন। কিন্তু তিনি তাঁদের কথা শোনেনি। আজ রোববার দুপুরে বিদ্যালয়ের নিরাপত্তার প্রহরির কাছে গোপন ক্যামেরা দেখতে পান একজন শিক্ষিকা। তিনি বিষয়টি নিয়ে নিরাপত্তা প্রহরির সঙ্গে কথা বলছিলেন। এনিয়ে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে শিক্ষিকার সঙ্গে তাঁর ধস্তাধস্তি হয়। তখন শিক্ষার্থীরা এগিয়ে আসে। এসময় নিরাপত্তার প্রহরি দৌঁড়ে গিয়ে প্রধান শিক্ষক কক্ষে যান। শিক্ষার্থীরা প্রধানশিক্ষক ও নিরাপত্তা প্রহরিকে কক্ষে অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে ৯৯৯ এ খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সেখান থেকে এম নিরাপত্তা প্রহরীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন।

নিরাপত্তার প্রহরি জাকির হোসেন বলেন, আমার কাছে ডিভাইস ছিল। তবে শিক্ষক-শিক্ষার্থী কারও ভিডিও ধারণ করিনি। আমি প্রধান শিক্ষকের কথা শুনি। একারণে অন্য শিক্ষকেরা আমার ক্ষুব্দ হয়েছেন। আমাকে প্রধান শিক্ষক ডিভাইসটি কিনে দেননি।অনেক আগে থেকে আমার কাছে ডিভাইসটি ছিল।

কাশিয়াবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফা বলেন, বিদ্যালয়ের নিরাপত্তা প্রহরি এসি মেরামতের কাজ করে। একজন ব্যক্তি ডিভাইসটি মেরামত করতে দিয়েছিলেন বলে জেনেছি। আমি কাউকে ডিভাইস কিনে দেইনি।

জয়পুরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আলমগীর জাহান বলেন, কাশিয়াবাড়ি উচ্চবিদ্যালয়ের নিরাপত্তা প্রহরি গোপন ক্যামেরায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ভিডিও ধারণ করেছেন বলে বিদ্যালয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। সেখান থেকে গোপন ক্যামেরাসহ নিরাপত্তা প্রহরিকে আটক করে থানা আনা হয়। পরে ডিভাইস পরীক্ষা করে কোনো ছবি ও ভিডিও পাওয়া যায়নি। একারণে নিরাপত্তা প্রহরিকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে সহকারী শিক্ষকদের ও কমিটির একাংশের দ্বন্দ্ব রয়েছে। প্রধান শিক্ষকের কেউ ক্ষতি করতে পারে এমন আশঙ্কায় তিনি নিরাপত্তা প্রহরিকে গোপন ক্যামেরা দিয়েছিলেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

Previous articleকুড়িগ্রামে তেলবোঝাই লরির ধাক্কায় কণ্ঠশিল্পীর মৃত্যু
Next articleকুড়িগ্রামে তিস্তার ভাঙনে দিশেহারা মানুষ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।