জয়নাল আবেদীন: রংপুরের জেলা ও দায়রা জজ আদালতে দুর্নীতি দমন কমিশনের দায়ের করা সরকারি গম আত্মসাত মামলার রায়ে নীলফামারী জেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলার সাবেক খাদ্য পরিদর্শক ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল মতিনকে ১৪ বছর সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। একইসঙ্গে দশ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে, আরও দুই মাসের কারাদন্ডাদেশ প্রদান করা হয়েছে।

এই মামলাটি দীর্ঘ ২৭ বছর পরিচালনার পর মঙ্গলবার দুপুরে রংপুরের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. রেজাউল করিম এ রায় দেন। এদিকে রায় ঘোষণার সময় আসামি আব্দুল মতিন এজলাসে উপস্থিত ছিলেন। পরে তাকে পুলিশি নিরাপত্তায় রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। মামলা সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯০ থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ খাদ্য গুদামে কর্মরত থাকাকালে আব্দুল মতিন দুই দফায় দুই লাখ ৪২ হাজার ১শ৫০ টাকা ও ১৩ লাখ ৪৯ হাজার ৪শ৪৫ টাকার গম গুদাম থেকে কালোবাজারে বিক্রি করে প্রায় ষোল লাখ টাকা আত্মসাত করেন। এ ঘটনায় দুদক আইনে ১৯৯৫ সালে তার বিরুদ্ধে দুদকের পরিদর্শক এবিএম আব্দুস সবুর এবং তৎকালীন কিশোরগঞ্জ খাদ্য গুদাম নিয়ন্ত্রক আব্দুল ওয়াহেদ বাদী হয়ে পৃথক দুটি মামলা করেন।

বিশেষ জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) হারুন উর রশীদ জানান, সাবেক খাদ্য পরিদর্শক আব্দুল মতিনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেওয়া হয়। দুদক মামলাটি সাক্ষ্য ও দালিলিক প্রমাণ দ্বারা সন্দেহাতীত ভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে। মামলা দুটির রায়ে আসামি সাত বছর করে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও পাঁচ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও এক মাসের সশ্রম দন্ডে দন্ডিত করেছেন। একইসঙ্গে আগামী ত্রিশ দিনের মধ্যে আত্মসাত করা টাকা বাজেয়াপ্ত করে রাষ্ট্রের অনুকূলে জমা দানের নির্দেশ দেন।

Previous articleবাংলাদেশ প্রবাসী কল্যাণ সংস্থা ও জাতীয় কবিতা মঞ্চের যৌথ উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল
Next articleকোম্পানীগঞ্জে গভীর রাতে আগুনে পুড়ল আট বসতঘর
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।