জয়নাল আবেদীন: পবিত্র রমজান মাস শেষের দিকে তারাবীসহ ইবাদতের মধ্যে অতিবাহিত করার পর আসছে পবিত্র ঈদুল ফিতরের ঈদ। যা বিশ্বের মুসলমানদের জন্য একটি আনন্দের দিন। সেই আনন্দ উপভোগ করবে ধনী, মধ্যবিত্ত, গরিব ও বস্তিবাসী সকলে। রংপুর মহানহরীতে ঈদুল ফিতরের ঈদের কেনা কাটায় বিপনী বিতান গুলোর সাথে ফুটপাতে জমায়েত হচ্ছে নিম্ন আয়ের মানুষ।

ঈদুল ফিতরের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে মানুষের মাঝে কেনা কাটার ধুম পড়েছে উল্লেখযোগ্যহারে। মধ্যবিত্ত, নিম্নবৃত্ত, ধনবৃত্ত রা শপিং মলে গেলেও বস্তিবাসিরতো একমাত্র কেনাকাটা ফুটপাতেই তাদের ভরসা। রংপুর নগরীতে বস্তি রয়েছে অনেক যেখানে অধীকাংশ মানুষ হকারি, রিক্সা-ভ্যান, অন্যের বাড়িতে কাজ করে জীবীকা নির্বাহ করে থাকে। তারা ঈদে আয়োজনে কি করবে? ঈদকে সামনে রেখে মনিবুর রহমান ভ্যানে করে শিশুদের কাপড় বিক্রি করে যাচ্ছেন। রমজানের মাঝামাঝি সময়ে তার বিক্রি বেড়েছে। ব্যবসা ভালো হলেও তিনি চিন্তিত। কারণ হিসেবে এই ব্যবসায়ী জানান, রোজা শুরুর পর থেকেই মাঝে মধ্যে বৃষ্টি হচ্ছে। এ বৃষ্টি যদি ঈদের সামনে কয়েকদিন ব্যাপী চলে তাহলে আশানুরুপ ব্যবসা হবে না। আমজাদ হোসাইন সাইকেলে করে পোশাক বিক্রি করে যাচ্ছেন। তিনি আশাবাদি তার ব্যবসা ভালো হবে। অবশ্য ১০ রোজার পর থেকে তার বিক্রি বেড়েছে। তবে চিন্তা বৃষ্টি..। আরেক ব্যবসায়ী তৌফিকুল ইসলাম। তিনিও ভ্যানে করে ছোট- বড় সকলের ঈদের নতুন পোশাক বিক্রি করে যাচ্ছেন। বিক্রি ভালোই করছেন, চলছেও ভালোই। বৃষ্টি নামলেই চিন্তায় পড়েন। ঈদের আগে বৃষ্টি প্রসঙ্গে রংপুর নগরীর ফুটপাতের ব্যবসায়ী মনিবুর রহমান, আমজাদ হোসাইন এবং তৌফিকুল ইসলাম এভাবেই চিন্তার কথা জানান।

রংপুরে মাঝে মধ্যেই বৃষ্টি হচ্ছে। এ বৃষ্টি হয় থেমে থেমে। ব্যবসায়ীরা দোকান একবার খুলেনতো আরেকবার বন্ধ করেন। ঈদকে ঘিরে নগরীর ফুটপাতে কাপড়, টুপি, আতর, জুতা, ফল, ইফতারি, লেবু, চুড়ি ফিতা, ছেড়া টাকাসহ ৩০ ধরনের ব্যবসা আছে। ৩ শতাধিক ব্যবসায়ী এসবের ব্যবসা করে জীবীকা নির্বাহ করছেন। ঈদের সামনে তাদের ব্যবসা জমে ওঠেছে। নগরীর স্টেশন এলাকা, কেজি কাপড় এলাকা, লালবাগ, সুরভি উদ্যানের দক্ষিণে, নগরীর হনুমান তলায় হকার্স,টাউন হলের দক্ষিণে জমে ওঠেছে ঈদের পোশাক বিক্রি। এছাড়াও নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ডের পাড়া- মহল্লায় তিন শতাধিক মোড়ে ইফতারি ও ফল বিক্রি জমছে। আছরের পর এসব দোকানে ভিড় জমে। এই ঈদকে ঘিরেই নগরীর পাড়া মহল্লার ছোট বড় ১৫ হাজারেরও বেশি মুদি দোকানি আশায় বুক বাঁধছেন। তারা ভালো ব্যবসা করার জন্যই বেশি করে পণ্য দোকানে তুলেছেন। এ বৃষ্টি তাদেরও দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ বারে নগরীতে বস্তি তারা ঈদে আয়োজনে কি করবে? কথা হলো বস্তিবাসী শিশুদের সাথে প্রথমে কথা হলো- সোহাগ, নাহিদ, সৌরভ, শাহজাহান, সাকিল, মেহেদী এদের সাথে তারা বলে, আমরা ঈদে কাপড় কিনেছি, ঈদের দিন আমরা লাচ্ছা-সেমাই, গোস্ত পোলাও খাবো, ঘুরবো এবং আনন্দ করবো। আবার কথা হয় সাজ্জাদ, রিয়াদ, সাকিব, সুইটি, বিজয়, নিরবদের সাথে তারা বলে, আমরা এখনো কাপড় কিনি নি বাবা-মা বলেছে ঈদের আগে কাপড় কিনে দিবে, আমরা সেই কাপড় পড়ে ঈদে ঘুরে বেড়াবো ও ভালো-ভালো খাবো। আবার কথা হয় রাশেদ, সুজন, লিলি, মিথিলা, নিরব, লিফাত, আরাফাতসহ অনেকের সাথে তারা বলে, আমরা কাপড় কিনিনি বাবা-মাকে বলেছি তারা বলেছে দেখি কিনে দিবো ঈদে কি হবে বুঝতেছিনা। রাশেদের মা বলেন, রাশেদের বাবা দেড়বছর আগে মারা গেছে, আমি ফেরি করে কোন রকম সংসার চালাচ্ছি জানিনা বেটা বেটিকে কাপড় কিনে দিতে পারবো কিনা। খাদ্য দ্রব্যের যে দাম জানিনা ঈদের দিন কি খাবো, বেটা বেটিকে কি খাওয়াবো।

এ ভাবে কথা হয় আরো কয়েকজন বাবা-মার সাথে তারা একই কথা বলেন, (তারা কেই হকারি করে, কেউ রিক্সা-ভ্যান চালায়, কেউ আবার অন্যের হয়ে কাজ করে) খাদ্য দ্রব্যের যে দাম বৃদ্ধি পাইছে ঈদের দিন মাংশ, পোলাও খেতে পারবো কিনা সন্দেহ আছে। দেখি এই ঈদকে তো সবাই লাচ্ছা-সেমাইয়ের ঈদ বলে আমাদের এগুলো খেয়েই মনে হয় দিনটি কাটাতে হবে।রংপুর নগরীর হনুমান তলায় হকার্স মার্কেটনি¤œ আয়ের মানুষে ঈদ কেনাকাটায় উপছে পড়া ভির লক্ষ্য করা গেছে । এখানে দিন মজুর , কামার , কুমার , ঠেলা গাড়ী কুলি থেকে শুরু করে মধ্যবৃত্তরাও কেনা কাটায় ভীর করে থাকে ।রংপুর সুপার মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি অঅলহাজ¦ মো: আলতাব হোসেন জানান করোনার কারণে গত ২ বছর আমরা ব্যবসা করতে পারি নি । এ বছর কেনা কাটা করছে মানুষ ধীরে ধীরে । সাধারণ মানুষ আসছে দাম করছে । কেউ কিনছে কেউ বা ফিরে যাচ্ছে । তিনি বলেন আগামী সপ্তাহ থেকে ঈদ কেনাকাটায় পুরো দমে শুরু হবে ।

Previous articleশাহজাদপুরে মুদি ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা, গ্রেফতার ৬
Next articleনাগেশ্বরীতে অসহায় ও দুস্থ প্রবীনদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।