শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাঈদের ছুটিতে মৌলভীবাজারের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে হাজারো পর্যটকদের ভিড়

ঈদের ছুটিতে মৌলভীবাজারের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে হাজারো পর্যটকদের ভিড়

মোঃ জালাল উদ্দিন: ঈদের ছুটিতে ভিড় করেছে হাজারো পর্যটকদের আকর্ষণ চায়ের রাজধানী শ্রীমঙ্গল-সহ মৌলভীবাজার জেলার পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে। ঈদের আগেই পর্যটকরা আবাসিক হোটেল-মোটেল ও রিসোর্ট আগাম বুকিং দিয়েছেন। করোনার সংক্রমণের কারণে গত দুই বছর পর্যটক শূন্য ছিল মৌলভীবাজার জেলার পর্যটনস্থান গুলো। ঈদে লম্বা ছুটি থাকায় শ্রীমঙ্গলের দর্শনীয় স্থানে অর্ধলক্ষাধিক পর্যটক এসেছেন বলে জানা যায়।

শ্রীমঙ্গলের উঁচু-নিচু পাহাড়ের ভাঁজে ভাঁজে সবুজের গালিচায় মোড়ানো চা-বাগান, ভাড়াউড়া লেক, বাইক্কা বিল, বধ্যভূমি ৭১, খাসিয়া পুঞ্জি, মণিপুরী ও ত্রিপুরাদের গ্রাম, বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশন, নিমাই শিববাড়ি’সহ যেন শিল্পীর আঁকা একটি আজব ছবি।

শ্রীমঙ্গল ভাড়াউড়া লেক এটি শহর থেকে প্রায় সাত কিলোমিটার দূরে ভাড়াউড়া চা বাগান ও শহর থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ফিনলে চা বাগানের ভেতরে ডিনস্টন সিমেট্রি, শ্রীমঙ্গল-কমলগনজের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, মাধবপুর লেক, ধলই বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমানের স্মৃতিসৌধ, রাজকান্দি বন খাসিয়াপল্লি, হাম হাম জলপ্রপাত ও কলাবন।

সদরের ৫০০ বছরের প্রাচীন স্থাপত্যের গয়ঘর খোজার মসজিদ, অজ্ঞান ঠাকুরের দেউল ও বর্ষিজোড়া ইকোপার্ক। জুড়ী উপজেলায় কমলার বাগানসহ লাঠিটিলা সংরক্ষিত বন।

বড়লেখা উপজেলায় মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত ও হাকালুকি হাওর। রাজনগর উপজেলার কমলারাণীর সাগরদীঘি, কাউয়াদীঘি হাওর ও জলের গ্রাম অন্তেহরী। কুলাউড়া উপজেলায় গগন টিলা ও কালাপাহাড়। এছাড়াও মৌলভীবাজার জেলার নানা নৈসর্গিক সৌন্দর্য ঘিরে পর্যটকদের আকর্ষণ অনেক বেশি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শ্রীমঙ্গল রাধানগর গ্র্যান্ড সুলতান টি রিসোর্ট অ্যান্ড গলফ, মৌলভীবাজারের দুসাই রিসোর্ট অ্যান্ড স্পা, চা বোর্ডের টি রিসোর্ট অ্যান্ড মিউজিয়ামসহ অন্তত শতাধিক হোটেল-মোটেল, রিসোর্ট ও কটেজের বুকিং শেষ।

শ্রীমঙ্গল উপজেলার ফাইভ স্টার হোটেলসহ প্রায় ৭০টি হোটেল, রিসোর্ট ও কটেজ রয়েছে। ঈদের টানা ছুটিতে ভ্রমণ পিপাসুদের আগমনে ভালো ব্যবসার প্রত্যাশা পর্যটন ব্যবসায়ীদের।

মৌলভীবাজার জেলা যুবদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক, জাতীয়তাবাদী তরুণ দল এর কেন্দ্রীয় কমিটি সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক, সাবেক শ্রীমঙ্গল উপজেলা ছাত্রদল ১ম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, শ্রীমঙ্গল উপজেলা বিএনপির সাবেক মৎসজীবি বিষয়ক সম্পাদক, হাজী মোঃ লিটন আহমেদ সাজু বলেন, পর্যটকদের সহযোগিতা ও নিরাপত্তায় স্থানীয়দের আন্তরিকতার কোন কমতি নেই, পর্যটকগন আমাদের মেহমান।

তিনি আরও বলেন, শ্রীমঙ্গলে পর্যটকের আগমনে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা আর্থিকভাবে লাভবান হন, এবং শ্রীমঙ্গল শহরে পর্যটকদের আকর্ষণে এটি উপযুক্ত শহর হিসাবে গড়া হয়নি, পর্যটকবান্ধব শহর গড়ে তোলতে হবে।
ইসলামিক ফাউন্ডেশন শ্রীমঙ্গল এর সহকারি ফিল্ড সুপারভাইজার মোহাম্মদ আবদুর রব বলেন, এবারের ঈদে পর্যটকদের আগমন ব্যাপক যা ক’বছর যাবৎ দেখা যায়নি, করোনা শেষ হওয়ার কারণে পর্যটকদের ঢল নেমেছে লাউয়াছড়া উদ্যান ও বধ্যভূমি ৭১।

শ্রীমঙ্গল, হোটেল মদিনা (আবাসিক)এর ম্যানেজার পলাশ ভট্টাচার্য্য বলেন, ঈদের ছুটিতে এবার প্রচুর পর্যটক এসেছেন ঈদের দিন থেকে ৭ মে পর্যন্ত সব রুম বুকিং সম্পন্ন হয়েছিল আমাদের।

ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশন শ্রীমঙ্গল এর সভাপতি মাওলানা এম এ রহীম নোমানী বলেন, এবারের ঈদে ছুটি বেশি হওয়ার কারণে পর্যটন ব্যবসা অধিকাংশে বেশ ভালো হবে। হোটেল-মোটেল ও রিসোর্ট বুকিং হয়ে গেছে।
একই কথা জানালেন সবিতা ফার্মেসী চেয়ারম্যান অপু পাল। তিনি বলেন, আমার বন্ধু ঢাকা থেকে ফ্যামিলি নিয়ে আসার কথা ছিল আমাকে বলেছিল এক আবাসিক হোটেল দেখার জন্য হোটেলের ম্যানেজার আমাকে বলে‘ আমাদের রিসোর্টের বুকিং প্রায় শেষ। এখন আর বুকিং নেওয়া হচ্ছে না।

শ্রীমঙ্গল শহরের রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ী গাউছিয়া রেস্টুরেন্ট এন্ড চাইনিজ এর মালিক মোঃ আবুল কালাম আজাদ বলেন, তিন যুগের উপরে আমার রেস্টুরেন্ট ব্যবসা, কাচ্চি বিরানী পর্যটদের আকর্ষণ, ধারণার চেয়ে বেশি পর্যটক হওয়ায় করোনার পরে আমার ব্যবসা অনেক ভালো হচ্ছে।

কিছু হোটেল ব্যবসায়ী আরও বলেন, বিশ্বে মহামারি করোনার পরে আমরা এখন কিছুটা ভালো অবস্থানে। আজ ৪ মে থেকে ৭ মে পর্যন্ত চাপ বেশি থাকবে। আমাদের বুকিং শেষ, যদি পর্যটকগন আসতে থাকেন করোনায় যে ক্ষতি হয়েছে আমরা তা পুষিয়ে উঠতে পারবো।

উপ-পুলিশ পরিদর্শক মুহাম্মাদ আসাদুর রহমান বলেন ‘ঈদের ছুটিতে বাড়তি নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে টহল জোরদার রয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশের। বিশেষ করে ট্যুরিস্ট পুলিশের বিশেষ টিম পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে টহল জোরদার রেখেছে। পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে।

মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকারিয়া বলেন, জেলার পর্যটন কেন্দ্রগুলো বিচ্ছিন্নভাবে বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে রয়েছে। ঈদের ছুটিতে পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তায় প্রস্তুত রয়েছে পুলিশ বাহিনী। ট্যুরিস্ট পুলিশের সঙ্গে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন থাকবে। নিরাপত্তার কমতি থাকবে না।

মোঃ জালাল উদ্দিন,

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments