আহম্মদ কবির: পর্যটকবাহী ইঞ্জিন চালিত নৌকা কিংবা স্পিডবোট দেখলেই,গান গাইতে গাইতে ছোট ছোট নৌকা নিয়ে স্কুল ছেড়ে ছোটে আসে ওয়াচ-টাওয়ারের দিকে, দেশের বিভিন্ন প্রান্ত হতে আসা পর্যটকদের বিনোদন দিতে।

টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের জয়পুর, গোলাবাড়ি,ইসলামপুর সহ তিনটি গ্রামের প্রায় অর্ধশতাধিক কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থী। ওয়াচ-টাওয়ার এলাকায় নৌকা অথবা স্পিডবোট থামালেই ছোট ছোট নৌকায় করে ডাকতে শুরু করে মামা,ভাইয়া নৌকায় উঠবেন আমি ভাল গান জানি।নৌকায় তুলে শুরু করে,টাঙ্গুয়ার হাওরের স্বচ্ছ নীল জলরাশির সুর মিশিয়ে বাউল সম্রাট শাহ আব্দুল করিমের গান।আগে কী সুন্দর দিন কাটাইতাম, মধু হই হই আঁরে বিশ হাওয়াইলা,আমরা সবাই হাওরবাসী হাওর ছাড়া বুঝিনা।এইভাবেই গান গেয়ে টাঙ্গুয়ার হাওরে আসা পর্যটকদের বিনোদন দিয়ে সামান্য কয়েকটা টাকা রোজকারের আশায় বিদ্যালয় ছেড়ে বিদ্যালয়গামী শিশুরা এখন দিনব্যাপী অপেক্ষায় থাকে পর্যটকদের। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সপ্তাহে সাত দিনই ওরা গান গায় ও ছোট ছোট নৌকা বেয়ে আনন্দ দেয় পর্যটকদের আর বিনিময়ে পায় সামান্য কয়েকটা টাকা।এই লোভে পরে দিনের পর দিন স্কুল বিমুখ হচ্ছে টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের জয়পুর, গোলাবাড়ি, জয়পুর নতুন হাটি ও ইসলামপুর গ্রামের অর্ধশতাধিক কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থী।ওরা পার্শ্ববর্তী ছিলানী তাহিরপুর গ্রামে অবস্থানরত জয়পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।হেমন্তে মাঝেমধ্যে বিদ্যালয়ে গেলেও এখন আর বিদ্যালয়ে যায় না বললেই চলে।এই প্রত্যন্ত হাওরাঞ্চলের শিশুদের পড়ালেখার চেয়ে এখন প্রিয় হয়ে উঠেছে বিস্কুট, চকলেট আর সামান্য কয়েকটি টাকা।

সরেজমিনে টাঙ্গুয়ার হাওরে দেখা যায়, কোমলমতি শিশুরা,ছোট ছোট নৌকা নিয়ে পর্যটকবাহী ইঞ্জিন চালিত নৌকার ধারে ধারে ঘুরছে,,আর বলছে মামা,ভাইয়া নৌকায় উঠবেন আমি ভাল গান জানি,আমি আপনাদের আমার নৌকায় করে ঘোরাতে ঘোরাতে সুন্দর সুন্দর গান শোনাব।কেউ বা আমার পর্যটকদের নৌকায় তুলে সারিবদ্ধ গাছে নিজ দিয়ে ঘোরাচ্ছে ও গান শোনাচ্ছে। এমন সময় কথা শিশু শিক্ষার্থী জাবের ও আজহারুল মিয়ার সাথে কথা হলে জানাযায়, তারা সবাই জয়পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। তারা হেমন্তে মাঝেমধ্যে বিদ্যালয়ে গেলেও বর্ষায় যাতায়াত ব্যবস্থা ভাল না থাকায় একেবারেই বিদ্যালয়ে যায় না।সবাই ছোট ছোট নৌকা নিয়ে পর্যটকদের নৌকায় তুলে গান শুনিয়ে আনন্দ দেয়,বিনিময়ে পর্যটকরা তাদের কিছু টাকা দেয়।টাকার লোভেই তারা এ কাজে আসে।

 

এ ব্যাপারে স্থানীয় সচেতন মহল জানান শিক্ষার আলো ছাড়া একটি এলাকা কখনো এগিয়ে যেতে পারে না।কোন এলাকার ভবিষ্যতের অন্ধকারময় রাস্তায় শিক্ষা আলোরস্বরূপ কাজ করে।কোন এলাকায় শিক্ষা ব্যবস্থা বা শিক্ষার আলো না থাকলে সেই এলাকা অন্ধকারের অতল গহবরে হারিয়ে যেতে খুববেশি সময় লাগে না। তারা জানান এই এলাকার মানুষদের একমাত্র মাছের উপর নির্ভরশীলতা কমাতে প্রজন্মের মধ্যে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতে হবে।এতে করে সরকারের নানামুখী উদ্যোগ নিতে হবে।

তারা জানান যে বয়সে শিশুর হাতে থাকার কথা ছিল বই আর পেন্সিল কিন্তু তার পরিবর্তে শিশুটি টাকার লোভে নিজের আহার জোগানোর জন্য নৌকা-বৈঠা হাতে নিয়ে,গান শুনিয়ে পর্যটকদের বিনোদন দিতে বাধ্য।আর এই সকল শিশুদের দারিদ্র্যের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে, ওদের দ্বারা নৌকা চালিয়ে গান শুনে আনন্দ উপভোগ করাটা কতটুকু রুচিসম্মত কাজ সেই প্রশ্ন থেকেই যায়।অন্যদিকে বাংলাদেশ জাতীয় শ্রম আইন ২০০৬ অনুযায়ী ১৪বছরের কম বয়সী শিশুদের কাজ করানো হলে যদি শিশু শ্রমের অন্তর্ভুক্ত বলে গণ্য হয়,তাহলে এগুলো কী শিশু শ্রম নয়?

বিগত কয়েকবছর ধরে দেশের দ্বিতীয় রামসার সাইট টাঙ্গুয়ার হাওর পর্যটকদের কাছে উল্লেখযোগ্য ভাবে পরিচয় পায়।এতে হাওরের প্রকৃতির সৌন্দর্য দেখতে প্রতিদিন শতশত পর্যটক আসেন হাওর সংলগ্ন ওয়াচ-টাওয়ার এলাকায়। পার্শ্ববর্তী জয়পুর, গোলাবাড়ি,ও ইসলামপুর গ্রামের অধিকাংশ শিশু পর্যটকদের বিনোদন দেওয়ার কাজে ব্যস্ত।

প্রথম দিকে হাওর পাড়ের দু-চারজন শিশু ছোট ছোট নৌকা নিয়ে ওয়াচ-টাওয়ার সংলগ্ন হিজল করচের বাগানের ভেতর দিয়ে ঘুরে দেখাতো,ও গান গেয়ে শোনাতো। বর্তমানে প্রায় শতাধিক শিশু রয়েছে এই পর্যটকদের বিনোদন দিয়ে টাকা রোজগারের কাজে।টাকার লোভে দিনের পরদিন এই এলাকার অনেক শিশু বিদ্যালয় বিমুখ হয়ে পড়ছে। এই এলাকার অধিকাংশ পরিবার হতদরিদ্র যাদের প্রতিনিয়ত অভাব-অনটন লেগেই থাকে,অভাবের তাড়নায় এখানকার শিশুরা বিদ্যালয়ে না গিয়ে রোজগারের কাজে লেগেছে বিষয়টি পরিবারের লোকজন খুব স্বাভাবিক ভাবেই দেখছেন। আর এ থেকেই এখানকার শিশুরা লেখাপড়া বাদ দিয়ে এ পেশায় জড়িয়ে পড়েছে।

জয়পুর নতুন হাটি গ্রামের ছাত্র অভিভাবক আলীম উদ্দিন ও জয়পুর পুরাতন হাটি’র আরিছ উদ্দিন মিয়ার সাথে কথা হলে তারা জানান, স্কুল আমাদের গ্রাম হতে কিছুটা দুরত্বে থাকায় নদী পার হয়ে যেতে হয়।ঝড়-তুফান হলে যেতে পারেনা।তাই প্রতি প্রতিদিন যেতে চায়না।

এ ব্যাপারে তাহিরপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সৈয়দ আবুল খয়ের বলেন বিষয়টি আমরা দেখবো,এলাকার ছাত্র অভিভাবকদের সাথে কথা বলে।

Previous articleময়মনসিংহ গফরগাঁও সরকারি কলেজে হামলার প্রতিবাদে রংপুরে কর্মবিরতি ও মানববন্ধন
Next articleউখিয়ায় পৌনে ৫ কোটি টাকার ইয়াবাসহ, গ্রেপ্তার ৫
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।