স্বপন কুমার কুন্ডু: ঈশ্বরদীতে পদ্মা নদীতে পানি বেড়েই চলেছে। সেই সাথে শুরু হয়েছে নদী ভাঙন। ভাঙন আতংকে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন পদ্মা পাড়ের মানুষ। প্রতিদিনই ৩০ থেকে ৫০ সেন্টিমিটার পানি বাড়ায় নদীর চরাঞ্চল ডুবতে শুরু করেছে।

সাঁড়া ইউনিয়নের নদী তীরবর্তী কয়েকটি গ্রামের মানুষের মধ্যে ভাঙ্গনের আতঙ্ক বাড়ছে। নদী ভাঙ্গনের ফলে হুমকির মধ্যে রয়েছে সাঁড়ায় লালনশাহ সেতু রক্ষাবাঁধ ও নদীর বাম তীর সংরক্ষণ বাঁধটি। সাঁড়ার থানাপাড়া ও বøকপাড়ায় বাঁধের সামনের জমি ভাঙতে শুরু করেছে। ইতিমধ্যে বাঁধের সামনের ১০ বিঘা জমি নদীতে বিলীন হয়েছে।

সাঁড়া ইউনিয়নের ঝাউদিয়া ব্লকপাড়া গ্রামের হযরত আলী জানান, সাঁড়ার এই নদীর পাড়ে কয়েক মাস পূর্বে বালুর বস্তা ফেলে ভাঙ্গন রোধ করার চেষ্টা করা হয়েছিল। এবার আবারো নদীতে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। নদী ভাঙতে ভাঙতে বাধের প্রায় কাছাকাছি চলে এসেছে। এভাবে ভাঙতে থাকলে নদীরক্ষা বাঁধেও ভাঙ্গন দেখা দিতে পারে। সেজন্য আমরা আতংকে আছি।

সাঁড়া থানা পাড়া এলাকার আঞ্জুয়ারা বেগম আঞ্জু বলেন, নদীর পানি বৃদ্ধি দেখে আমাদের মনে আতংক দেখা দিয়েছে। এমনতিই নদীতে আমাদের বসতবাড়ি-জমিজমা হারিয়েছি। এখন বাঁধের পাশে রেলের পরিত্যক্ত জায়গায় বাড়ি করে আছি। বাঁধের সামনে জমিতে ভাঙন দেখা দিয়েছে। নদীকে তো বিশ্বাস করা যায় না। যদি তীব্র সোতে বাঁধ ভেঙ্গে যায় তাহলেতো আমাদের বাড়ি-ঘরও ভেঙ্গে যাবে।

পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ড পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রীজ পয়েন্টের গ্রেজ রিডার আরিফুন নাঈন ইবনে সালাম জানান, বুধবার (২২ জুন) বিকেলে পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রীজ পয়েন্টে পানির প্রবাহ ছিল ৯.৪৫ মিটার। এই পয়েন্টে পানির বিপদসীমা ১৪.২৫ মিটার। বিপদসীমার প্রায় ৫ মিটার নিচে রয়েছে পানি প্রবাহ। তিনি জানান, প্রতিদিনই পানি বাড়ছে।

সাঁড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এমদাদুল হক রানা সরদার বলেন, সাঁড়ার ব্লকপাড়া ও থানা পাড়ায় এর আগে ভাঙ্গন দেখা দেয়ায় তিনদফায় জিও প্যাক ডাম্পিং করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাকে ফোন দিয়ে নদী এলাকার খোঁজখবর রাখতে বলেছেন। আমি সরেজমিনে নিজে নদী এলাকা পরিদর্শন করেছি এবং এলাকার বাসিন্দাদের এব্যাপারে জানিয়েছি। কোন সমস্যা দেখা দিয়ে তারা যেন আমাকে দ্রুত জানায়। আমাদের কৃষকরা প্রতিদিনই খুঁটি দিয়ে পানি পরিমাপ করে থাকেন। গতকালের চেয়ে আজ প্রায় ২০ ইঞ্চি পানি বেড়েছে। তীব্র ভাঙ্গন দেখা দিলে প্রশাসনের মাধ্যমে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সারোয়ার জাহান সুজন বলেন, কিছুদিন পূর্বে আমি সরেজমিনে সাঁড়া ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছি। সেখানে জিও প্যাক ডাম্পিং করে ভাঙ্গন রোধ করা হয়েছে। আবারো ভাঙ্গন দেখা দিলে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleরংপুরে জিংক সমৃদ্ধ ধান ও চাল সংগ্রহ বিষয়ক কর্মশালা
Next articleবন্যায় ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে: স্বাস্থ্য অধিদফতর
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।