আহম্মদ কবির: টানা ভারী বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় স্বরণকালের ভয়াবহ বন্যায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

গত এক-সপ্তাহ ধরে উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের প্রায় দেড়-দুই লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি ছিল।গেল সোমবার হতে উপজেলার হাওর নদীতে পানি কমতে থাকায়,বিভিন্ন এলাকার বসতবাড়ি ও রাস্তাঘাট থেকে বন্যার পানি সরে যেতে থাকে। তবে লোকালয় থেকে বন্যার পানি নেমে গেলেও নানা দুর্ভোগে পড়েছে এ অঞ্চলের বানভাসি অসহায় মানুষ।

এরই মধ্যে বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রে বিভিন্ন স্বজনদের বাড়িতে আশ্রয় নেওয়া লোকজন বাড়িতে ফিরতে শুরু করলেও,যাদের বাড়িঘর ও বসতভিটা হারিয়েছে তারা এখনো বিভিন্ন গ্রামে ও আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রিত রয়েছে। বন্যার পানি নেমে যাওয়ায় উপজেলার নিম্নাঞ্চলের বিভিন্ন গ্রামের নলকূপগুলো কয়েকদিন ধরে পানিতে ডুবে থাকায় পানি উঠছে না।এতে বিশুদ্ধ পানির চরম ভোগান্তিতে পড়ছে বন্যা কবলিত মানুষ।টানা একসপ্তাহ বন্যার পর বন্যার পানি লোকালয় হতে সরে যাওয়ায় ভেসে উঠছে। বন্যার পানির  স্রোতের চাপে ভাঙাচোরা রাস্তাঘাট ও বসতবাড়ি এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,মসজিদ,মন্দির,কবরস্থানসহ বিভিন্ন শ্মশান ঘাটের  ক্ষতচিহ্ন।

গতকাল ২২জন উপজেলার বিভিন্ন বিভিন্ন তথ্যসুত্রে ও উপজেলার বিভিন্ন এলাকা সরেজমিনে ঘুরে দেখাযায় উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের জয়পুর, গোলাবাড়ি,তরং,শিবরামপুর, ছিলানী তাহিরপুর, উজ্জ্বলপুর,তেরঘর সহ বিভিন্ন গ্রামে বন্যার পানির স্রোতর চাপে ভাঙাচোরা বসতঘর, কোন কোন গ্রামে ধ্বংসের স্তুপের মতো পড়ে আছে এক টুকরো টিন।এ ব্যাপারে টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের জয়পুর গ্রামের মৃত লায়েছ মিয়ার স্ত্রী আয়শা বেগম জানান,গেল কিছুদিন পূর্বে স্বামী মারা গেছেন এমনিতেই খুব কষ্টে দিনাতিপাত করছি। এরমধ্যে সর্বনাশা বন্যার পানিতে ধান চউল সহ ঘরবাড়ি ভাসিয়ে নিয়ে গেছে। উনি জানান স্বামী মারা যাওয়ার পর আত্মীয় স্বজন ও এলাকাবাসীর সাহায্যে কিছু ধান ও চাউল ক্রয় করে ঘরে রেখেছিলাম ধান চাউল সহ ঘরবাড়ি ভাসিয়ে নিয়ে গেছে বন্যার পানিতে এখন আমি অবুঝ দুই সন্তান নিয়ে কি করে চলব।

অন্যদিকে উপজেলার তাহিরপুর হতে জেলা সদর সুনামগঞ্জের সাথে সড়কপথে যোগাযোগের একমাত্র  সড়কটি বন্যার পানিতে বিভিন্ন স্থানে ভেঙেচুরে যাওয়ায়, সড়কপথে যোগাযোগের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে উপজেলাবাসীর।তাহিরপুর হতে সুনামগঞ্জ যাতায়াতে জনপ্রতি ১০০টাকা ভাড়ার স্থলে যাত্রীদের দিতে হচ্ছে ৪০০-৫০০টাকা।

এ ব্যাপারে তাহিরপুর উপজেলা প্রকৌশলী ইকবাল কবির বলেন বন্যায় অনেক রাস্তাঘাট, তবে এখনো বন্যার পানিতে তলিয়ে আছে অধিকাংশ এলাকার রাস্তাঘাট।পানি নেমে গেল সঠিক ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা যাবে,জরিপ চলমান।গুরুত্বপূর্ণ সড়কের মেরামত করা হবে বাজেট অনুসারে। যদি এমপি মহোদয় বিশেষ বরাদ্দ দেন, তাহলে সব রাস্তাঘাট মেরামত করা সম্ভব হবে।উনি বলেন বিষয়টি এমপি মহোদয় কে অবগত আরো সুবিধা হত।

 তাহিরপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা রায়হান কবির বলেন,বন্যায় ক্ষতি গ্রস্ত মানুষের জন্য ত্রাণসামগ্রীসহ রান্না করা খাবা বিতরণ চলমান রয়েছে,।বসতবাড়ি ভেঙে যাওয়া পরিবার গুলোর তালিকা তৈরির কাজ চলমান।তিনি আরও বলেন,যাতে করে কোন ক্ষতিগ্রস্ত  মানুষ ত্রাণ হতে বঞ্চিত না হয়। সেই দিক বিবেচনা করে,আগামী কাল থেকে প্রতিটি বাড়িতে বাড়িতে  গিয়ে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হবে।

Previous articleবাসাইলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত
Next articleফুলবাড়ীতে বন্যা কবলিত এলাকায় ত্রাণ বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।