জয়নাল আবেদীন: দেশে যেকোন প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থাগুলোও এগিয়ে আসে । তাদের মধ্যে আরডিআরএস বাংলাদেশ অন্যতম । এই সংস্থাটি মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং পরবর্তী যুদ্ধ বিধ্বস্থ বৃহত্তর রংপুর এবং দিানাজপুর অঞ্চলের পূনর্বাসনে ১৯৭২ সালের ৮ ফেব্রæয়ারি থেকে কার্যক্রম শুরু করে । সেই থেকে এই সংস্থাটি দেশের যেকোন দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি নিজের্ওা এগিয়ে এসে মানবকল্যানে নিয়োজিত রাখে ।

সম্প্রতি সিলেটের বন্যায় আরডিআরএস বাংলাদেশ বন্যার্তদের পাশে হাত বাড়িয়ে দেয় । জেলার বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা ইউনিয়ন পরিষদ চত্বর ছাড়াও খাজাঞ্চি, অলংকারি, ওলামাকাজি ইউনিয়নের ৫শ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করে। এর মধ্যে ছিলো শুকনো খাবার, শিশুখাদ্য, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট, স্যানিটেশন সহ জীবনরক্ষাকারী জরুরি সামগ্রী। এছাড়াও ৭ কেজি চাল, ১ কেজি ডাল, ২ কেজি চিড়া, ৫শ গ্রাম গুড়, ৩ কেজি আলু, ১ লিটার সয়াবিন তেল, ৫শ গ্রাম গুঁড়া দুধ, ১ প্যাকেট বিস্কুট, ১ প্যাকেট পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট, ৫টি মোমবাতি, ১ ডজন দিয়াশলাই, ১টি সাবান, ৫শ গ্রাম ডিটারজেন্ট পাউডার এবং ১ ডজন খাবার স্যালাইন ।

সিলেটের বন্যা মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা আরডিআরএস বাংলাদেশ

সংস্থার নির্বাহী পরিচালক তপন কুমার কর্মকারের সঙ্গে ত্রাণ বিতরন বিষয়ে আলাপকালে তিনি এ প্রতিবেদককে জানান আরডিআরএস বাংলাদেশ বৃহত্তর দিনাজপুর এবং রংপুর ৮জেলা ছাড়াও বর্তমানে দেশের ৩২টিঁ জেলার ১শ৬১টি উপজেলায় কাজ করছে । তিনি বলেন প্রতিটি কর্মএলাকায় সংস্থার পক্ষ থেকে আপদকালীন মজুদ সংরক্ষন করে রাখা হয় । বিশেষ করে খরা বন্যা এবং শীতকালীন সময়ে সংস্থার পক্ষ থেকে দুস্থদের মাঝে শীতবস্ত্র সহ ত্রাণ বিতরণ করা হয়ে থাকে । আর এসব ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের ক্ষেত্রে অধিক ক্ষতিগ্রস্ত ও বিপন্ন পরিবারগুলোকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়। যেসব পরিবারে প্রবীণ, অসুস্থ, শিশু, গর্ভবতী, স্তন্যদানকারী মা ও প্রতিবন্ধী সদস্য আছে নি¤œআয়ের যাদের কাছে কোনো সহায়তা পৌঁছেনি; আশ্রয় কেন্দ্রে যারা পানি ও খাদ্য সংকটে আছে, ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের ক্ষেত্রে এমন পরিবারগুলো সর্বাগ্রে বিবেচনায় আনা হয়।

সিলেটের বন্যা মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা আরডিআরএস বাংলাদেশ

সংস্থার কর্মীরা বন্যাকবলিত এলাকায় এই ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দেন। ত্রাণ বিতরণের সময় সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে সংস্থা দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতি নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করছে। প্রয়োজনে জরুরি সহায়তা প্রদানের জন্য সংস্থা প্রস্তুত আছে বলে তিনি জানান । নির্বার্হী পরিচালক আরো বলেন সিলেটে ৫শ পরিবারকে ইতোমধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে এ ছাড়াও ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে ।

Previous articleবাংলাদেশকে নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলতে চায় পাকিস্তান
Next articleঈশ্বরদী পৌরসভার উদ্বৃত্ত বাজেট ঘোষণা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।