জয়নাল আবেদীন: রংপুর অঞ্চলের চার জেলার করোনা পরীক্ষার একমাত্র পিসিআর মেশিনটি প্রায় ৪মাস ধরে বিকল হয়ে পড়ে আছে। দীর্ঘদিন ধরে মেশিনটি বিকল অবস্থায় থাকলেও তা সংস্কারে কোনও পদক্ষেপ নেয়নি কর্তৃপক্ষ। এতে এ অঞ্চলের মানুষ করোনা পরীক্ষা করাতে দুর্ভোগে পড়েছেন।

সিভিল সার্জন, বিভাগীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, রংপুর মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিয়ে একে অপরের ওপর দায় চাপাচ্ছেন। সিভিল সার্জন, বিভাগীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা রংপুর মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষের ওপর দায় চাপাচ্ছেন আর করোনা ইউনিটের প্রধান এবং রংপুর মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. বিমল চন্দ্র ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠি দিয়ে নিজের দায় সেরেছেন। তবে এখনও মেশিনটি সচল হয়নি। একে অপরের ওপর দোষারোপ করছেন আর দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন রোগীরা ।

স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে প্রায় ২ বছর আগে করোনা রোগীদের শনাক্ত করার জন্য রংপুর বিভাগের আট জেলার জন্য দুটি পিসিআর মেশিন বরাদ্দ দেয় স্বাস্থ্য অধিদফতর। এর মধ্যে রংপুর মেডিক্যাল কলেজে একটি এবং দিনাজপুরের আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজে অপর মেশিনটি স্থাপন করা হয়। রংপুর মেডিক্যালের পিসিআর মেশিন রংপুর সিটি করপোরেশন ও পুরো জেলা ছাড়াও গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাট জেলার রোগীদের করোনা পরীক্ষা হতো। ওই পিসিআর মেশিনে প্রতিদিন ১৮০ জনের করোনা পরীক্ষা করা সম্ভব। বিগত ৬/৭ মাস ধরে করোনার প্রকোপ কমে এলেও পরীক্ষা চলছিল। কিন্তু প্রায় ৪ মাস আগে পিসিআর মেশিনটি বিকল হয়ে যায়। অনেক চেষ্টা করেও তা সচল করা যায়নি।

মেডিক্যাল কলেজের মাইক্রেবায়োলজি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, পিসিআর মেশিন বিকলের বিষয়টি স্বাস্থ্য অধিদফতরকে জানানো হলে দু’জন বিশেষজ্ঞ পিসিআর মেশিনটি সচল করার চেষ্টা করেন ও ব্যর্থ হন। এরপর পিসিআর মেশিনটি আর সচল করার কোনও উদ্যোগ দেখা যায়নি। পরে রংপুর মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. বিমল চন্দ্র স্বাস্থ্য অধিদফতরে চিঠি দিয়ে জানায়। তবুও কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।এ বিষয়ে জানতে চাইলে রংপুরের সিভিল সার্জন ডা. শামিম আহাম্মেদ বলেন, পিসিআর মেশিনটি দেখভাল করে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ। প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ ঢাকায় চিঠি দিয়েছেন বলে শুনেছি। সচল করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে কিনা তারাই বলতে পারবেন।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রংপুরে করোনা পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। তবে আমরা র‌্যাপিড টেস্ট চালু রেখেছি।রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক ডা. জাকিরুল ইসলাম লেলিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনিও পিসিআর মেশিন বিকল হওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন আপাতত জরুরি কিছু পরীক্ষা দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ ও রংপুর সিএইমএইচে করানো হচ্ছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

এদিকে রংপুর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন পিসিআর মেশিন ভালো করা নিয়ে অপরাজনীতি হচ্ছে এটি স্যাবোটাজ মনে হচ্ছে। মমতাজ উদ্দিন বলেন করোনার প্রকপ দিন দিন বাড়ছে মানুষের মধ্যে আতংক বিরাজ করছে আর স্বাস্থ্য বিভাগ এবং জেলা সিভিল সার্জন ও মেডিকেল কর্তৃপক্ষ একে অপরের ওপর দায় চাপিয়ে সাধারন জনগন বিশেষ করে করোনা রোগীরা দুর্ভোগ পোহাবে তা হতে দেয়া যায়না । তিনি বলেন সরকারের ভাবমুর্তি যারা নষ্ট করছে তাদের বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় দ্রæত পদক্ষেপ নেবেন ।

Previous articleনারী শিক্ষায় অগ্রগামী কালাই সরকারী মহিলা কলেজ
Next articleটাঙ্গাইলে অবৈধ বাংলা ড্রেজার ধ্বংস, বালু উত্তোলনের দায়ে লক্ষ টাকা জরিমানা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।