আতিউর রাব্বী তিয়াস: ভ্যানচালক, দিনমজুর এবং অন্যের বাড়ি কাজ করা মানুষগুলোর মতো অসহায় পরিবারের কাছে জমি কিনে পাকা ঘর করে থাকাটা রীতিমতো অধরা স্বপ্ন। আর, এসব মানুষের কাছে সে স্বপ্ন এখন বাস্তবেই ধরা দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘরে স্বপ্নপূরণ হয়েছে অসহায় এসব মানুষের। যাঁরা একসময়ে সরকারি জায়গায়, ভাড়াবাড়ি, অন্যের দয়ায় কারও রান্নাঘর বা বারান্দায় থাকতেন, তারা এখন প্রত্যেকেই এক টুকরো জমি এবং একটি আধপাকা ঘরের মালিক।

মুজিব জন্মশতবর্ষ উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের তৃতীয় পর্যায়ের দ্বিতীয় ধাপে আক্কেলপুরে ৭টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পেয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহারের ঘর। প্রত্যেক পরিবারকে দেওয়া হয়েছে দুই শতক জমিসহ আধপাকা নতুন ঘর। ঘরে বিদ্যুৎ-সংযোগও রয়েছে। প্রকল্প এলাকায় রয়েছে টিউবওয়েলও।

আজ বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) সকাল ১০টার সময় আক্কেলপুর উপজেলা হলরুমে সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে অংশগ্রহণ করেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট উম্মুল বানীন দ্যুতি, আক্কেলপুর উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম আনন্দ, উপজেলা নিবাহী অফিসার এস এম হাবিবুল হাসান, আক্কেলপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি মৌসুমী হক, আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো মোকছেদ আলী,
আক্কেলপুর পৌর সভার মেয়র শহীদুল আলম চৌধুরী,
প্যানেল মেয়র মুক্তিযোদ্ধা সাদেকুর রহমান, সাবেক কমান্ডার নবীবুর রহমান,
আক্কেলপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আবু বকর সিদ্দিক, ইলেকট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্দ।

আক্কেলপুর উপজেলার সাতজন গৃহহীন মানুষের মাঝে দুই শতক জমির দলিলসহ তাদের মাঝে চাবি হস্তান্তর করেন আক্কেলপুর উপজেলা নির্বাহি অফিসার এস এম হাবিবুল হাসান।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম হাবিবুল হাসান বলেন, ভূমিহীন ও গৃহহীনদের সরকারি ব্যবস্থাপনায় দুই শতক জমিতে দু’কক্ষ বিশিষ্ট সেমি পাকা করণ ঘর সাত জন পরিবারের মাঝে এ ঘর হস্তান্তর করা হয়।এসব ঘরে রয়েছে পানি ও বিদ্যুৎসহ প্রতিটি গৃহে ইটের দেয়াল, কংক্রিটের মেঝে, সবুজ টিনের ছাউনি, একটি রান্না ঘর, টয়লেট ও সামনে খোলা বারান্দা। রয়েছে আধুনিক ও উন্নত জীবন যাত্রার সকল সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।

তৃতীয় পর্যায়ের দ্বিতীয় দফায় জমিসহ ঘর পাওয়া ভ্যান চালক আতোয়ার হোসেন (৫৭) বলেন, ‘আমি ভ্যানগাড়ী চালিয়ে কোন রকমে সংসার চালায়। কোনোদিন চিন্তাও করিনি জমিসহ একটি নতুন পাকা ঘর পাব। খুব খুশি ও আনন্দ লাগছে ঘর পেয়ে। ধন্যবাদ জানাই প্রধানমন্ত্রীকে এবং তার জন্য প্রাণ খুলে দোয়া করি।’

শাহিনা বেগম (৫০) বলেন, আমি ঘর পেয়ে খুব খুশি, যা বলার মতো নয়। এমন ঘর করার সামর্থ্য তো কোনোদিন হতো না। সরকারের প্রতি শুকরিয়া, সরকার ভালো থাকুক দোয়া করি।’

এদিকে এর আগে যাঁরা আশ্রয়ণের জমিসহ ঘরে উঠেছেন, তারাও এখন ঘুরে দাঁড়িয়েছেন। কারণ, মূল আয় থেকে এখন আর ঘরভাড়া দিতে হয় না তাদের। বেঁচে যাওয়া সে টাকা দিয়েই তারা তাদের ঘরের পাশের জমিতে সবজির চাষাবাদ ও পশুপালনও করছেন। এ ছাড়া বিভিন্ন সময়ে সরকারের দেয়া অনুদানের টাকা দিয়ে নতুন নতুন কাজের মধ্য দিয়ে আয় বাড়িয়ে এখন সুখে-শান্তিতেই আছেন তারা।

আশ্রয়ণের পুরানো বাসিন্দা সামছুল ইসলাম জানান, তাদের ঘরের চারপাশে সবজি চাষ, হাঁস-মুরগি ও ছাগল পালন করছেন। আগের মতো আর কষ্ট নেই। ঘরের নারীরাও সেলাই মেশিন দিয়ে এবং হাতের কাজ করে আয় করছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তাদের জমি ও ঘর দিয়েছেন, তাই খেয়ে পরে ভালো আছেন তারা। তারা বলেন, আমরা আশ্রয়ণবাসী প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম হাবিবুল হাসান বলেন, ঘরগুলো অত্যন্ত সুন্দরভাবে নির্মাণ করা হয়েছে। ভালো মানের মালামাল ব্যবহার করা হয়েছে ঘরগুলোতে। জমির দলিল ও ঘরের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করে তা তুলে দেওয়া হচ্ছে সুবিধাভোগীদের হাতে। মূলত যাচাই-বাছাই করেই অহায় গরীব দিনমজুর, অন্যের বাড়ি কাজ করে—এমন লোকজনকেই দেওয়া হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের এ ঘরগুলো।

তিনি আরও বলেন, পর্যায়ক্রমে নতুন নতুন ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে, যা দেওয়া হবে সমাজের অবহেলিত-অসহায় ভূমি ও গৃহহীনদের মধ্যে। প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার—দেশের একটি মানুষও ভূমি ও গৃহহীন থাকা পর্যন্ত আশ্রয়ণ প্রকল্পের এ কার্যক্রম চলমান থাকবে।

Previous articleদলমত নির্বিশেষে আমি প্রতিটি নাগরিকের প্রধানমন্ত্রী
Next articleইসলাম গ্রহণের পর আবেগে কাঁদলেন ২০ বছর বয়সী জার্মান তরুণী (ভিডিও)
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।