জয়নাল আবেদীন: বিদ্যুতের সমবণ্টন ও সময়সূচি মেনে লোডশেডিংয়ের দাবিতে রংপুরে মানববন্ধন ও সমাবেশ হয়েছে। সমাবেশ থেকে অবিলম্বে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী এলাকাভিত্তিক লোডশেডিংয়ের সময়সূচি অনুসরণ করতে বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের কাছে দাবি জানানো হয়।

অন্যথায় লোডশেডিং নিয়ে বৈষম্য নিরসনে বৃহৎ আন্দোলনের হুঁশিয়ারিও দেন বিক্ষুদ্ধ বিদ্যুৎ গ্রাহকরা। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে রংপুর নগরির কলেজ রোডে নেসকোর বিদ্যুৎ বিতরণ কার্যালয়ের সামনে শিক্ষার্থীরা এই মানববন্ধনের আয়োজন করেন। এতে বিভিন্ন স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছাড়াও দিনমজুর, অটোচালক, শ্রমিক, ব্যবসায়ী ও গৃহিণীরাও অংশ নেন।

মানববন্ধন চলাকালে বিক্ষুদ্ধ বক্তারা বলেন, রংপুরে নিয়মবহির্ভূতভাবে বিদ্যুৎবিভ্রাট লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সরকার ঘোষিত নির্দেশনা অমান্য করে এলাকাভিত্তিক লোডশেডিংয়ে সময়সূচির কোনো তোয়াক্কা করা হচ্ছে না। যেখানে দিনে এক থেকে দুই ঘণ্টা লোডশেডিং হবার কথা, সেখানে সারাদিনে ৫-৭ বার লোডশেডিং দেওয়া হচ্ছে। বক্তারা বলেন ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মাত্র ১০ ঘন্টা বিদ্যুৎ পাচ্ছি আর ১৪ ঘন্টাই লোডশেডিং।তারা আরও বলেন, আমরা লোডশেডিংয়ের বিপক্ষে নই। কারণ সংকট মোকাবিলায় সরকার একটি ভালো সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু আমরা নিয়মমাফিক লোডশেডিং চাই। সারা দেশের চিত্র আর রংপুরের চিত্র এক নয়। এখানে ঘন ঘন লোডশেডিং দেওয়াতে ব্যবসা-বাণিজ্য, উৎপাদন, পড়ালেখা ও কর্মক্ষেত্রসহ জনজীবন ব্যাহত করছে।

অতিরিক্ত গরম আর লোডশেডিংয়ে শিশু ও বয়স্করা অসুস্থ হয়ে পড়ছে।দিনের মতো রাতের বেলাতেও ঠিক মতো বিদ্যুৎ সরবরাহ হচ্ছে না। এমন অসহনীয় লোডশেডিং বন্ধ করে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সময়সূচি মেনে লোডশেডিং দিতে হবে। নইলে বৈষম্যের বিরুদ্ধে আগামীতে বৃহৎ কর্মসূচি দেওয়া হবে। বক্তব্য প্রদান করেন অভিনয়শিল্পী আদনান চৌধুরী, শিক্ষার্থী উদয় কুমার দাস, শাহরিয়ার, সুবা নাহিয়ান, ব্যবসায়ী ইস্তেফাক আহমেদ নূর, মাহবুবার রহমান, গৃহিনী হোসনে আরা পপি । মানববন্ধন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শুরু হবার কথা থাকলেও অনুমতি না থাকায় প্রথমে পুলিশি বাধার সম্মুখীন হন আয়োজকরা। পরে অবশ্য তাদেরকে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য মানববন্ধন করতে দেওয়া হয়।

এদিকে কর্মসূচি শেষ করে নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি (নেসকো) লিমিটেডের রংপুর বিতরণ অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী বরাবর স্মারকলিপি দেন তারা।অপরদিকে চাহিদার বিপরীতে অর্ধেক মেগাওয়াট বিদ্যুৎতের কারণে এই সংকট ও লোডশোডিংয়ের সময়সূচিতে হেরফের হচ্ছে বলে জানিয়েছে নেসকোর রংপুর বিতরণ অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী মো. শাহাদৎ হোসেন।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, রংপুরে দিনের বেলায় বিদ্যুতের চাহিদা ৭০০ থেকে ৭৫০ মেগাওয়াট আর সন্ধ্যায় ৯০০ থেকে ৯৫০ মেগাওয়াট। আমরা বুধবার মোটে ৭০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পেয়েছি। আজ বৃহস্পতিবার বেলা দুইটা পর্যন্ত পেয়েছি ৫০০ মেগাওয়াট।তিনি আরও বলেন, চাহিদার তুলনায় রংপুরে যে ঘাটতি রয়েছে, তার প্রভাবে সময়সূচি মেনে লোডশেডিং দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। আমরা এলাকাভিত্তিক লোডশেডিংয়ের যে সময়সূচি তৈরি করেছি, তা পরিবর্তন করে লোডশেডিং কমিয়ে আনার চেষ্টা করব।

Previous articleকলাপাড়ায় গৃহহীনদের মাঝে জমিসহ ঘর হস্তান্তর
Next articleভারতীয় যুদ্ধজাহাজে আগুন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।