বাংলাদেশ ডেস্ক: ফের ভারতীয় নৌবাহিনীর বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ আইএনএস বিক্রমাদিত্যে আগুন লেগেছে। কর্নাটক উপকূলে মহড়ার সময় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

বৃহস্পতিবার ভারতীয় গণমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিন এই খবর নিশ্চিত করেছে। খবরে জানানো হয়েছে, এতে এখন পর্যন্ত কারো হতাহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি। এহেন অত্যাধুনিক জাহাজে কীভাবে আগুন লাগল, তা জানতে তদন্ত শুরু করেছে নৌবাহিনী।

নৌবাহিনী সূত্রে জানা গেছে, বুধবার যুদ্ধবিমানবাহী রণতরীটিতে আগুন লাগে। বর্তমানে, কর্নাটকের উত্তর কন্নড় জেলার কারওয়ার বন্দরে রয়েছে আইএনএস বিক্রমাদিত্য। এদিন মাঝ সমুদ্রে মহড়া চালাচ্ছিল রণতরীটি। তখনই আগুন লাগে। নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ‘জাহাজে মজুদ অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থার মদতেই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এই ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কারো হতাহত হওয়ার কোনো খবর নেই। ঘটনাটি খতিয়ে দেখতে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।’

এর আগে ২০১৯ সালের এপ্রিলে কারওয়ার বন্দরে ঢোকার মুখে অগ্নিকাণ্ডের শিকার হয়েছিল আইএনএস বিক্রমাদিত্য। সেই ঘটনায় মৃত্যু হয়েছিল নৌসেনার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার ডিএস চৌহানের। তারপর ফের ২০২১ সালে আগুন লাগে জাহাজটিতে।

প্রসঙ্গত, রাশিয়ার থেকে ২৩০ কোটি মার্কিন ডলারে বিমানবাহী রণতরীটি কিনেছিল ভারত। ২৮৪ মিটার লম্বা এবং ৬০ মিটার চওড়া এই যুদ্ধজাহাজটি ২০ তলা বাড়ির সমান উঁচু। ওজন ৪০ হাজার টন। বিক্রমাদিত্যের ডেকে ৩০টি যুদ্ধবিমান এবং ৬টি হেলিকপ্টার রাখার ব্যবস্থা রয়েছে। সব মিলিয়ে শত্রুর বুকে কাঁপন ধরাতে এই জাহাজটি যথেষ্ট। ভারত মহাসাগরে চীন ও পাকিস্তানকে রুখে দিতে ভারতের অস্ত্রভাণ্ডারে অন্যতম হাতিয়ার হচ্ছে ‘বিক্রমাদিত্য’।

২০১৩ সালে ভারতীয় নৌবাহিনীর অন্তর্ভুক্ত হয় আইএনএস বিক্রমাদিত্য। রুশ নির্মিত এই রণতরীতে রয়েছে অত্যাধুনিক মিগ-২৯ যুদ্ধবিমান, বারাক মিসাইল-সহ একাধিক ঘাতক অস্ত্র। ১৯৮৭ সালে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের নৌবাহিনী ‘বাকু’ নামে এই জাহাজটি অন্তর্ভুক্ত হয়। এরপর ১৯৯২-তে ‘অ্যাডমিরাল গর্শকভ’ নামে এটি অন্তর্ভুক্ত হয় রুশ সেনায়। ১৯৯৬ পর্যন্ত রুশ সেনায় কাজ করার পর ভারতের কাছে জাহাজটি বিক্রির প্রস্তাব দেয় রাশিয়া। এই যুদ্ধজাহাজ আইএনএস বিক্রমাদিত্য থেকেই ভূমি থেকে আকাশে হামলায় সক্ষম বারাক-৮ ক্ষেপণাস্ত্রটির সফল পরীক্ষা করে ভারত। আরব সাগরে হওয়া এই পরীক্ষায় খুবই নিচ থেকে দ্রুতগতিতে ছুটে চলা লক্ষ্যবস্তুতে সফলভাবে আঘাত হানতে সক্ষম হয় বারাক-৮। যার ফলে ভারতের নৌবাহিনী এবং এয়ারক্র্যাফ্ট ক্যারিয়ারের শক্তি আরো বেড়ে গিয়েছে বলেই মত প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের।

Previous articleবিদ্যুতের সমবণ্টন ও সময়সূচি মেনে লোডশেডিংয়ের দাবিতে রংপুরে মানববন্ধন ও সমাবেশ
Next articleশাহজাদপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের জমিসহ ঘর পেলেন ২৫ গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।