নাজমুল হক: রাজধানীর কামার পাড়া থেকে মোহাম্মদপুর শিয়া মসজিদ পর্যন্ত চলাচলকারি আলিফ পরিবহনের ওয়েবিল নিয়ে মালিক ও শ্রমিক পক্ষের দ্বন্দ্বের জেরে আজ বন্ধ ছিলো এই রুটের বাস। বাস ড্রাইভার, কন্ট্রাক্টর ও হেল্পাররা ওয়েবিল সমস্যার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি ঘোষণা করে।

আলিফ বাসের ড্রাইভার মোহাম্মদ রুবেল প্রতিবেদককে জানান সরকারি ভাবে ওয়েবিল নিষিদ্ধ কিন্তু মালিক পক্ষ তা মানছে না। যার দরুন প্রতিদিন যাত্রীদের সাথে আমাদের ঝগড়া করতে হয়। কামার পাড়া থেকে মোহাম্মদপুর শিয়া মসজিদ পর্যন্ত ভাড়া ধার্য করা হয়েছে ৫০ টাকা। আবার কুড়িল বিশ্বরোড থেকেও একই ভাড়া নিচ্ছে কর্তৃপক্ষ অথচ মাইলেজ হিসেবে ভাড়া হওয়া উচিত ৩০ টাকা। কর্তৃপক্ষ এখনো ওয়েবিল পদ্ধতিতে ভাড়া নিচ্ছে। তবে গোপনে টোকেন সিস্টেমে তা আদায় করছে। যার দরুন আমাদের বেশি জমা দিতে হয় মালিক পক্ষকে। আলিফ পরিবহনের হেল্পার আরাফাত জানায় আমরা ওয়েবিল পদ্ধতির ভাড়া চাইলে যাত্রীরা তা দিতে চায় না। মাঝেমধ্যে গায়েও হাত দেয় , আমরা কি করতে পারি বলেন ?

প্রতিদিন এই রুটের যাত্রী ব্যাংকার মাহবুবর রহমান প্রতিবেদককে জানান সরকারি মাইলেজ হিসেবে আমার ভাড়া হওয়া উচিত ২৫ টাকা অথচ আমাকে ৫০ টাকা দিতে হচ্ছে, এইটা বড় ধরনের জুলুম। এই বিষয়ে আলিফ পরিবহনের ব্যবস্থাপক আশরাফ জানান আমরা ওয়েবিল বন্ধ করে দিয়েছি। তবে যাত্রী হিসাব ঠিক রাখার সুবিধার্থে টোকেন চালু করেছি। তবে বেশি ভাড়া আদায়ের ব্যপারে সে শ্রমিকদের দোষারোপ করেন।

বাড়তি ভাড়া আদায় নিয়ে সমালোচনার মুখে ওয়েবিল প্রথা বাতিল করার ঘোষণা দিয়েছে ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি। তারা বলছে, ঢাকা ও এর আশপাশের শহরতলির বাসে রাস্তায় কোনো পরিদর্শক (চেকার) থাকবে না। গত ৮ আগস্ট ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি এক বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ১০ আগস্ট এ–সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত গণমাধ্যমে জানিয়ে বলা হয়, সেদিন থেকেই তা কার্যকর হয়েছে।

নগর ও শহরতলির বাস-মিনিবাসে ওয়েবিল প্রথা দীর্ঘদিন ধরেই চলে আসছে। এই ব্যবস্থায় একটি রুটে সাধারণত নির্দিষ্ট কয়েকটি জায়গায় বাসমালিকের লোকেরা এই পরিদর্শন বা চেক করেন। তাঁরা নির্দিষ্ট স্থানে বাস থামিয়ে কতজন যাত্রী আছে তা লিখে দেন। এর ফলে একজন যাত্রীকে বাসে উঠে পরের স্ট্যান্ডে নেমে গেলেও পরবর্তী ওয়েবিল লেখার স্থান পর্যন্ত ভাড়া দিতে হয়। এভাবে সরকার নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে বাড়তি আদায় করে থাকেন পরিবহন মালিক শ্রমিকেরা। এ ছাড়া সিটিং সার্ভিস, গেটলক সার্ভিসের নামেও বাড়তি ভাড়া আদায় করা হয়। সড়ক পরিবহন আইন অনুসারে, ওয়েবিল প্রথা, সিটিং সার্ভিস, গেটলক সার্ভিস অবৈধ। বাড়তি ভাড়া আদায়ের দায়ে সংশ্লিষ্ট পরিবহন কোম্পানির চলাচলের অনুমতি বাতিল করার বিধান আছে।

Previous articleরংপুরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে আধাবেলা দোকানপাট বন্ধরেখে মানববন্ধন
Next articleসিঙ্গাপুরে লাইফ সাপোর্টে মীরজাদী সেব্রিনা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।