শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার গোপীনাথপুর বাজারে হাটের জায়গা জোরপূর্বক দখলে নিয়ে বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ অব্যাহত রেখেছেন স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও কীটনাশক ব্যবসায়ী আলহাজ নূরুল ইসলাম।

তিনি স্থানীয় গোপীনাথপুর ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা হাসান আলীর সাথে যোগসাজস করে উপজেলা ভূমি অফিস থেকে কীটনাশক দোকানের ট্রেড লাইসেন্স দেখিয়ে ওই জায়গা এক বছরে লীজ নিয়ে বহুতল ভবনের কাজ করছেন বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। শুধু তাই নয়, দলীয় প্রভাব খাটিয়ে তিনি আজও নির্মাণ কাজ চলমান রেখেছেন।

বর্তমানে ওই জায়গায় বহুতল ভবনের দ্বিতীয় তলার কাজ চলমান। ভবনের দ্বিতীয় তলার ছাদ ঢালাইয়ের পূর্বে আক্কেলপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম হাবিবুল হাসান কাজ বন্ধ রাখার কথা বলে আসলেও তিনি কাজ চলমান রেখেছেন। দিনের বেলায় প্রকাশ্য হাটের জায়গায় বহুতল ভবনের কাজ চলমান দেখে স্থানীয়রা হতবাক। যেন দেখার কেউ নেই। তবে হাটের জায়গায় বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে এমন কথা স্বীকার করে প্রভাবশালী গোপীনাথপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আলহাজ নূরুল ইসলাম বলেন, যে জায়গায় নির্মাণ কাজ হচ্ছে সেই জায়গা আমি এক বছরের জন্য উপজেলা সহকারি ভূমি অফিস থেকে লীজ নিয়েছি। আমার কীটনাশকের দোকানে কয়েকবার চুরি হয়েছে। এতে আমি আর্থিকভাবে খুব ক্ষতিগ্রস্ত। বাজারে বসবাস করার মত আমার কোনো জায়গা নেই। এই ভবনের দ্বিতীয় তলায় বসবাস করলে চুরি বন্ধ হবে। আমি সবার সাথে কথা বলেই দ্বিতীয় তলার কাজ করছি।

গোপীনাথপুর ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা হাসান আলী বলেন, আমি কিভাবে তার সাথে যোগসাজস করতে পারি। আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে। তবে ওই জায়গা উপজেলা সহকারি ভূমি অফিস থেকে এক বছর মেয়াদে লীজ দেওয়া হয়েছে। লীজের জায়গায় স্থায়ী ভবন নির্মানের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি এই অফিসে একা। বিভিন্ন সময়ে অফিসিয়াল কাজে বাহিরে থাকতে হয়। রাতের অন্ধকারে প্রভাব খাটিয়ে ভবন নির্মাণের কাজ করছেন তিনি। আমি নিষেধও করেছি। তারপরও কাজ বন্ধ না করলে আমার করার কি আছে আপনিই বলেন।

সরজমিনে রোববার দুপুরে গোপীনাথপুর হাটে গিয়ে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, আক্কেলপুর উপজেলার গোপীনাথপুর হাটের কয়েক একর জমি রয়েছে। সেই জায়গায় প্রতিদিন বাজার এবং প্রতি শুক্রবার ও সোমবার হাট বসে। গোপীনাথপুর বাজারের চারমাথার উত্তরপাশের্^ পাকা সড়কের পূর্বপাশে হাটের প্রায় ৩ শতক জায়গার উপর নজর পড়ে গোপীনাথপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সিনজেন্টা কীটনাশক কোম্পানীর স্থানীয় ডিলার প্রভাবশালী আলহাজ নূরুল ইসলামের। স্থানীয় ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা হাসান আলীর সাথে যোগসাজস করে প্রথমে টিনের বেড়া দিয়ে ওই জায়গা নিজের দখলে নেন। এরপর তিনি হাটের জায়গায় বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করেন। প্রথমে একতলার কাজ করেন। পরে দ্বিতীয় তলার ছাদ ঢালাইয়ের কাজ শেষ করেন। এরমধ্যে বিভিন্ন সময়ে হাট ইজারাদার, প্রশাসনের লোকজন এবং স্থানীয়রা হাটের জায়গা উদ্ধারের চেষ্টাও করেছেন কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। বরং তিনি উল্টো একের পর এক ওই ভবনের তলা বাড়িয়ে নির্মাণ কাজ করেই যাচ্ছেন।

গোপীনাথপুর বাজারের ব্যবসায়ী আব্দুল হান্নান বলেন, এত বাঁধা আসার পরও হাটের জায়গায় কিভাবে স্থায়ী বিল্ডিং এর কাজ করছেন নূরুল হাজী। সবাই নিষেধ করেছে তবু শোনেননি তিনি। ছাদ ঢালাই দিয়ে এক তলার কাজ করেছে তাতেও হয়নি, আবার দ্বিতীয় তলার ছাদও দিচ্ছে। এতকিছুর পরও যে ব্যক্তি সরকারি জায়গা দোকানানের নামে এক বছরের লীজ নিয়ে ছাদ ঢালাই দিয়ে বহুতল ভবন নির্মাণ করতে পারেন, সে অবশ্যই দূর্ধর্ষ ব্যক্তি। সে যে একজন ভয়ানক লোক তা আর বলার উপেক্ষা রাখে না।

গোপীনাথপুর হাটের ইজারাদার সাজ্জাদ হোসেন বলেন, শুধু নূরুল ইসলামই নয়, আরও অনেকেই প্রভাব খাটিয়ে হাটের জায়গায় ব্যক্তিগত ভবন নির্মাণ করছেন। তারা দিনের বেলায় প্রকাশ্য কাজ করছেন। তার দেখাদেখি অন্যরাও হাটের জায়গা দখল করছে। জায়গার অভাবে একদিন গোপীনাথপুরের হাটই উঠে যাবে। নিষেধ করেও কোনো লাভ হয়না। এতে করে দিনদিন হাটের জায়গা ছোট হয়ে আসছে। হাটের জায়গায় স্থায়ী স্থাপনা গড়ে ওঠার কারনে হাটের ভিতরে কোনো যানবাহন প্রবেশ করতে পারেনা। হাটে আসা ব্যবসায়ীদের যাতায়াত কমে গেছে। ইজারার (ডাক) তুলনায় আদায়ও কম। বিভিন্ন কারনে গত কয়েক বছর ধরে এই হাট খাস কালেকশনে চলছিল। এবার এই হাটের দায়িত্ব আমি নিয়েছি বটে, আগামীতে আর নিব না। দেখবেন সরকার এই হাট থেকে যে পরিমান রাজস্ব পেত তা থেকে বঞ্চিত হবে।

আক্কেলপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম হাবিবুল হাসান বলেন, দোকানের ট্রের্ড লাইসেন্সের ভিত্তিতে সরকারি জায়গায় অস্থায়ী ঘর নির্মাণ করে ব্যবসা করার জন্য তাকে এক বছরের লীজ দেওয়া হয়েছে। কোনোভাবেই তিনি স্থায়ীভাবে ভবন নির্মাণ করতে পারেন না। নূরুল ইসলাম ওই জায়গায় ভবন নির্মাণের কাজ করছেন তা জানার পর আমি নিজে গিয়ে কাজ বন্ধ করে আসছি। তারপরও যদি সে কাজ করেন তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা প্রশাসক শরীফুল ইসলাম বলেন, কেউই সরকারি জায়গায় স্থায়ী ভবন নির্মান করতে পারবেন না। গোপীনাথপুর বাজারের হাটের জায়গায় ভবন নির্মানের বিষয় শুনেছি। তদন্ত করে খুব দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleরংপুরে আরএন্ডআর ট্রের্ডাসের গুদামে অভিযান, ২ হাজার ২শ বস্তা সার জব্দ
Next articleদেড় হাজার টাকার জন্য তিন ব্যবসায়ীকে খুন, ১৭ বছর পর গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।