অতুল পাল: ১৯৭২এর জাতীয় পতাকা বিধিমালা অনুযায়ী প্রতিটি সরকারি দপ্তরে প্রতি কর্মদিবসে জাতীয় পতাকা উত্তোলণের বিধান থাকলেও বাউফলের নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদে জাতীয় পতাকা উত্তোলণ করা হচ্ছে না।

বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন মহলে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। সরেজমিন আজ মঙ্গলবার বেলা পৌনে একটার দিকে নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে দেখা গেছে ভবনের সামনে টানানো হয়নি পতাকা। খালি পড়ে রয়েছে পতাকার স্ট্যান্ড। পরিষদ ভবনের একটি কক্ষে কাজ করছেন উদ্যোক্তা মো. আল-আমিন। অফিস সময়ে কর্মস্থলে দেখা যায়নি ইউপি সচিব এবং দায়িত্বরত গ্রাম পুলিশ ও পিয়নকেও।

স্থানীয়রা জানান, সরকারি নিময় থাকলেও নিয়মিত ইউনিয়ন পরিষদে জাতীয় পতাকা উত্তোলণ করা হয় না। এমনকি জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বাষির্কীতেও জাতীয় পতাকা উত্তোলণ করা হয়নি। এছাড়া জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে কোন আলোচনা বা মিলাদ মাহফিলেরও আয়োজন করা হয়নি। একারণে এলাকাবাসীরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেছেন।

ইউনিয়ন পরিষদে উপস্থিত উদ্যোক্তা আল-আমিন জানান, পিয়ন হেলাল উদ্দিন পতাকা উত্তোলণের দায়িত্বে রয়েছেন। তিনি মাঠে আমন ধানের বীজ তুলতে গিয়েছেন, তাই পতাকা উত্তোলণ করা হয়নি। নিয়মিত জাতীয় পতাকা উত্তোলণ না করার বিষয়ে নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. রুবেল তালুকদারের কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান, পিয়নের দায়িত্ব পতাকা উত্তোলণ করা। কেন করেনি খোঁজ নিচ্ছি। আর শোক দিবস পালন না করার বিষয়ে তিনি কোন সদোত্তর দিতে পারেনি।

বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আল-আমিনের দৃষ্টি আর্কষণ করা হলে তিনি বলেন, খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleবাউফলে পানিতে ডুবে দুই শিশু সহোদরের মৃত্যু
Next articleখেলা হবে সাম্প্রদায়িক ও স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির বিরুদ্ধে: শামীম ওসমান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।