বাংলাদেশ প্রতিবেদক: চট্টগ্রামের পটিয়ায় নিখোঁজের ৪ দিন পর মোহাম্মদ ইদ্রিস (৩৯) নামের এক খামারের কর্মচারীর অর্ধ গলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরকীয়ার রাস্তা পরিষ্কার করতেই তাকে খুন করা হয়েছে বলে স্বীকার করেছে নিহতের স্ত্রী।

মঙ্গলবার রাত ৮টায় পটিয়া পৌরসভার ইন্দ্রপোল এলাকার খামারের অদূরে একটি ডোবা থেকে ওই লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত ইদ্রিস জিরি ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের নজরুলের বাড়ি এলাকার নাগু মিয়ার ছেলে।

জানা যায়, ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ইদ্রিসের স্ত্রী শারমিন আকতারকে (৩২) আটক করে পুলিশ। পরে তাকে বুধবার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি নেয়া হয়। স্ত্রীর দেয়া তথ্য মতে, পরকীয়ার কারণে তার স্বামীকে হত্যা করে ডোবায় ফেলে দেন। পটিয়া ইন্দ্রপোল লবণ শিল্প এলাকার পটিয়া সল্টের পাশে হাজী সিরাজুল মোস্তফার গরুর খামারের কর্মচারী মো. ইদ্রিস দীর্ঘ দিন ধরে খামারের পাশে একটি ভাড়া বাসায় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে বসবাস করছিলেন। গত শনিবার রাত ১০ টার দিকে তিনি নিখোঁজ হন। নিখোঁজের ঘটনায় ইদ্রিসের মা জহুরা বেগম পটিয়া থানায় একটি নিখোঁজ ডায়েরি করেন। পরে তাদের সন্দেহ হলে ১০-১৫ জন শ্রমিক দিয়ে ইন্দ্রপোল এলাকার পাশের একটি ডোবাতে খোজাখুঁজি করে। এক পর্যায়ে পচা লাশের দুর্গন্ধ পেয়ে পটিয়া থানা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। রাতে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়।

ইদ্রিসের মা জহুরা বেগম অভিযোগ করে বলেন, তার পুত্রবধূর সাথে একজনের পরকীয়ার সম্পর্ক রয়েছে। এসব নিয়ে প্রায় সময় পুত্রবধূর সাথে বাকবিতণ্ডা করত। ধারণা করা হচ্ছে এ কারণে পরিকল্পিতভাবে তার ছেলে ইদ্রিসকে হত্যা করা হয়েছে।

পটিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রাশেদুল ইসলাম জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। মাথায় ও শরীরের কয়েকটি স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ইদ্রিসের স্ত্রী শারমিন আকতারকে(৩২) গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়। আদালতে তিনি ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে খুনের বিষয়টি স্বীকার করেন।

Previous articleপ্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ম্যানেজিং কমিটি গঠন নিয়ে ছলচাতুরীর অভিযোগ
Next articleপুলিশ নেতা-কর্মীদের তালিকা সংগ্রহ করছে অভিযোগ বিএনপির
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।