জয়নাল আবেদীন: রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার কয়েকটি এলাকায় আমন মৌসুমে আগাম জাতের ধান কাটা মাড়ার ধুম পড়েছে । প্রযুক্তির ছোঁয়ায় অতিরিক্ত শ্রমিক ছাড়াই কৃষকের ঘরে উঠছে ধান, ফলনও ভালো হয়েছে। এতে হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে।

কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, পীরগঞ্জে উপজেলায় ২৫ হাজার ৪ হেক্টর জমিতে রোপা আমনের চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে হাইব্রিডসহ প্রায় ৫ হাজার হেক্টর জমিতে ব্রি ধান ৭৫, ব্রি ধান ৭১, বিনা-৭, বিনা ধান- ১৭, হীরা-২, হিরা-১০ এবং ধানী গোল্ড আগাম জাতের ধানের চাষ করা হয়েছে। স্থানীয়রা বলছেন, আগাম জাতের ধান চাষিদের কাটা-মাড়াই নিয়ে কোন চিন্তা নেই। খড় (পল) ব্যবসায়ীরা নগদ টাকা দিয়ে মাঠ থেকে নিয়ে যাচ্ছেন। কাঁচা আটি বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে। আগাম জাতের ধান চাষে খরচও কম।উপজেলার আগাচতরা গ্রামের মোসলেম উদ্দিনের ছেলে চাষি আইয়ুব বলেন, তিনি ১৪ বিঘা জমিতে ধানী গোল্ড জাতের ধান আবাদ করে। বিঘা প্র্রত ১৮ থেকে ২০ মণ হারে ধানের ফলন পাচ্ছেন। কাচা ধান মাঠ থেকেই চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। ধান কাটা মাড়া নিয়ে কোন চিন্তা নেই তার। গোখাদ্য খড় বা (কাচা আটি) ব্যবসায়ীরা বাড়ি বাড়ি ঘুরছে কেনার জন্য। কিষাণ পাট ছাড়াই ধান ঘরে তুলছেন তিনি। খড় ব্যবসায়ীরা বিঘা প্রতি ৪ হাজার টাকা দিয়ে, ধান কাটা মাড়া করে (কাচা আটি) বাজারে নিয়ে বিক্রি করছে।

খড় ব্যবসায়ী আয়নাল বলেন, জমিতে দাড়ানো ধান সাবধানে কাটা লাগে এবং ধান কেটে সাথে সাথেই আটি বানাতে হয়। যে কারণে তারা চাষিদের জমি থেকে নিজেরাই কাটা মাড়াই করছে।তিনি আরও বলেন চাষিরা তাদের মতো করে ধান কাটা মাড়া করলে কাঁচা আটি রোদে শুকিয়ে যায় এবং শুকনো আটির চাহিদা কম বাজারে।

এদিকে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাদেকুজ্জামান সরকার বলেন, উপজেলায় আগাম জাতের ধানের ফলন ভালোই হয়েছে। কৃষক আগেভাগেই তাদের ধান ঘরে তুলছে। আগাম ধানের কাঁচা আটির প্রচুর চাহিদা বাজারে এছাড়াও ধান কাটা জমিগুলোতে আবার নতুন ফসলের চাষ করবে।

Previous articleছাত্রলীগের মামলায় ছাত্র অধিকারের ২৪ সদস্যকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ
Next article‘দোকান মালিক ও কর্মচারি ভাই ভাই সবার মধ্যে শান্তি চাই’
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।