যমুনা নদীতে হঠাৎ অসময়ে পানি বৃদ্ধি পেয়ে বাদামসহ তলিয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন ফসল। ছবিটি শুক্রবার দুপুরে উপজেলার চরচিতুলিয়া চরাঞ্চল থেকে ছবি তুলেছেন আব্দুল লতিফ তালুকদার।

আব্দুল লতিফ তালুকদার: কৃষক শহিদুল ইসলাম। সে স্থানীয় এনজিও থেকে ঋন করে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনা নদী চরাঞ্চলে অনেক কষ্টে হাড়ভাঙা পরিশ্রম করে প্রায় ১০-১২ বিঘা জমিতে রবি মৌসুমে বাদাম, কাতি কালাই, ধানসহ নানা ধরণের ফসল চাষাবাদ করেছিল। কিন্তু যমুনায় এক রাতে পানি বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় ৬ বিঘা মতো জমির সব ফসলই নিমিষেই তলিয়ে বিলীন হয়ে যায়। ফলে তার কষ্টের স্বপ্নগুলো যেন স্বপ্নই থেকে যায়।

শহিদুল উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের কুকাদাইর গ্রামের বাসিন্দা। তিনি বলেন, এ নিয়ে যমুনা নদীতে ৬ষ্ঠবারের মতো পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এরআগেও নানা ধরণের ফসল পানিতে তলিয়ে যায়। তবে, তাতে তেমন ক্ষতি না হলেও অসময়ে পানি বৃদ্ধির কারণে আবারো স্বপ্নের ফসল তলিয়ে যাওয়ায় সীমাহীন ক্ষতির মুখে পড়েছি।

শুধু শহিদুল একা নয়, তার মতো কৃষাণি শান্তি বেগম, কৃষক হুরমুজ প্রামাণিক, রহিজ উদ্দিন ও সবুর আলী বলেন, বিগত বছরগুলোতে এমন সময়ে কখনো এমন পানি বৃদ্ধি পেতে দেখেনি। এ বছর কয়েক দফায় বন্যার কারণে চরাঞ্চলবাসী কৃষকদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। এ সময়ে বাদাম ও কার্তি কালাইসহ অন্যান্য ফসল চোখের সামনে তলিয়ে যাচ্ছে। এভাবে পানি বাড়লে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারব না।

সরেজমিনে উপজেলার যমুনা নদীর গোবিন্দাসী, গাবসারা ও অর্জুনা চরাঞ্চলে ঘুরে দেখা যায়, গেল কয়েক সপ্তাহ আগে ধরে চরাঞ্চলে বাদাম, কার্তি কালাই ও ধানসহ বিভিন্ন ফসল রোপন করে। সেগুলো নতুন পানিতে তলিয়ে গেছে ও ভাসছে। অনেকের ফসলি জমি ভেঙে নদী গর্ভে বিলীন হচ্ছে। সবমিলিয়ে এসময়ে কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে কৃষি প্রণোদনা সহযোগিতার দাবি জানিয়েছেন তারা। জানা যায়, উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও টানা বৃষ্টিতে টাঙ্গাইলের যমুনা নদীতে এ বছর দফায় দফায় পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এবার ৬ষ্ঠ দফায় পানি বাড়ছে। দফায় দফায় পানি বৃদ্বির কারণে ঠিক সময়ে ফসল উৎপাদন করতে না পারায় কৃষকরা হতাশ হয়ে পড়ছে। তবে তাদের অভিযোগ, বালু খেকোরা অবৈধভাবে ফসলি জমি কেটে বালু উত্তোলনের কারণে নদীর গতিপথ পরিবর্তনের ফলে চরাঞ্চলের কৃষকরা প্রতিনিয়িত এমন ক্ষতির শিকার হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ড. মো. হুয়ামূন কবীর বলেন- যমুনা নদীতে হঠাৎ পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় উৎকণ্ঠা কৃষকরা। তবে এ পানি বৃদ্ধিতে চরাঞ্চলে কৃষিতে তেমন ক্ষতি হবে না। কেননা পুরোপুরিভাবে কৃষকরা বাদামসহ অন্যান্য রবি ফসল রোপন করেনি। আগে যেসব কৃষক বিভিন্ন ফসল রোপন করেছিল সেগুলো তলিয়ে গেছে শুনেছি। তবে, কৃষকরা যাতে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারে সে লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleহাতীবান্ধায় মুক্তিযোদ্ধা ফুড ভিলেজের উদ্বোধন
Next articleসরকারের হাতে ক্ষমতা থাকতে ইসির পক্ষে সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব নয়: গয়েশ্বর
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।