জি.এম.মিন্টু: সোমবার (১৭ অক্টোবর) যশোর জেলা পরিষদ নির্বাচন। যশোর জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৮নং সাধারণ আসনে কেশবপুর উপজেলা থেকে সাধারণ সদস্য পদে ৭ জন প্রার্থী নির্বাচন করছেন। নির্বাচনকে ঘিরে কেশবপুরে জমে উঠেছে নির্বাচনী প্রচারণা। ব্যানার ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা ও উপজেলা প্রাঙ্গন। প্রতিটি ইউনিয়নের ভোটারদের সঙ্গে প্রার্থীরা যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন। তারা বিভিন্ন হাটে-বাজারে ঘুরে ঘুরে প্রার্থীদের নিজ নিজ অবস্থান জানান দিয়ে যাচ্ছেন।

কেশবপুর উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন, ১ টি পৌরসভা ও উপজেলা পরিষদসহ মোট ভোট সংখ্যা ১৫৯ টি। এ উপজেলা থেকে সদস্য পদে ৭ জন ও সংরক্ষিত আসনের মহিলা সদস্য পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। তারা হলেন, রুকসানা ইয়াসমিন পান্না (দোয়াত কলম), তাসরিন সুলতানা শোভা (ফুটবল) ও নাদিরা খাতুন (মাইক) । সাধারণ সদস্য পদের প্রার্থীরা হলেন, সাবেক জেলা পরিষদ সদস্য সোহরাব হোসেন (তালা প্রতিক), উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মহব্বত হোসেন (অটোরিক্সা), উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক যুবলীগ নেতা খন্দকার আব্দুল আজিজ (হাতি প্রতিক), সাংবাদিক সাঈদুর রহমান সাঈদ (টিউবওয়েল প্রতিক), আওয়ামীলীগ নেতা নজরুল ইসলাম খান (ঘুড়ি প্রতিক), মঙ্গলকোট ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুজ্জামান মাসুদ (উটপাখি) ও বৈদ্যুতিক পাখা মার্কায় ছাত্রলীগ নেতা জাকির হোসেন মুন্না। এদের মধ্যে আজিজ, মহব্বত, সোহরাব ও সাঈদ মুল প্রতিদ্বন্দিতায় থাকছেন বলে ভোটাররা জানান।

হাতী প্রতিকের প্রার্থী খন্দকার আব্দুল আজিজ বলেন, ভোটারগনের চাওয়াকে প্রাধান্য দিতে গিয়েই আমি জেলা পরিষদ নির্বাচনে সদস্য পদে প্রার্থী হয়েছি। আমার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে পদ পদবীকে পুঁজি করে কোন দিন কোন প্রকার প্রভাব খাটানোর নজির নেই। আমি জনসেবা করার লক্ষে প্রার্থী হয়েছি। ভোটারদের ধারে ধারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছি। আমার বিশ্বাস সচেতন ভোটারগন তাদের পবিত্র আমানতের ভোটটি দিয়ে জেলা পরিষদের সদস্য হিসেবে বিপুল ভোটে আমাকে নির্বাচিত করবেন। টিউবওয়েল প্রতিকের প্রার্থী সাঈদুর রহমান সাঈদ ও থেমে নেই। প্রথমবারের মত প্রার্থী হয়েছেন তিনি। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্তও তাকে দেখা যায় ভোটারদের বাড়িবাড়ি গিয়ে ভোট প্রার্থনা করতে।

তিনি বলেন, প্রতিটা ভোটারের সাথে আমার পেশার কারনে সম্পর্ক থাকায় জয়ের ব্যাপারে আমাবাদী। তিনি বলেন, অতীতে যিনি এ পদে ছিলেন তিনি ব্যাপক অনিয়ম করেছেন যার একাধিক অভিযোগ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে রয়েছে। তিনি পাশ করলে সকল অনিয়ম দূর করে জেলা পরিষদের সেবা মানুষের মাঝে পৌছে দিবেন আশা ব্যক্ত করেন। অপরদিকে অটোরিক্সা প্রতিকের প্রার্থী মহব্বত হোসেন বিভিন্ন ইউনিয়নে নিজ নির্বাচনী প্রচার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে ভোটারদের মাঝে তেমন কোন উৎসাহ দেখা যাচ্ছে না।

সোহরাব হোসেন বলেন, আমি গত মেয়াদে জেলা পরিষদের সদস্য হিসেবে ছিলাম। জনগনের পাশে থেকে সাধ্যমতো সেবা দিতে চেষ্টা করেছি। অতএব ভোটারগন আমাকে ভোট দিয়ে পুনরায় জয়যুক্ত করবেন। আমার পুরাতন নির্বাচনী এলাকার প্রায় প্রতিটি মসজিদ, মাদরাসা ও মন্দিরসহ সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে সামান্য হলেও আমার মাধ্যমে জেলা পরিষদের অনুদান এসেছে।

মো. নজরুল ইসলাম জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে নির্বাচনী মাঠে আছেন। এর আগে আমি ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছি। সকল সচেতন ভোটারগন তাদের সুচিন্তিত সমর্থনের মাধ্যমে যোগ্য প্রার্থী হিসেবে আমাকে নির্বাচিত করবেন বলে আমি আশাবাদী। এছাড়াও মাসুদুজ্জামান মাসুদ ও জাকির হোসেন জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। সচেতন মহলের অভিমত, জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দী সকলেই আওয়ামীলীগের নেতা ও কর্মী । ১৫৯ ভোটারের মধ্যে প্রায় ৫০ টি ভোট রয়েছে বিএনপি ও জামায়াত সমর্থিত। যে প্রার্থীর পকেটে এই ভোট গুলো যাবে সেই হবে জেলা পরিষদের সদস্য।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক ভোটার বলেন, উপজেলা পর্যায়ের ক্ষমতাসীন দলের নেতৃবৃন্দ নিজ সমর্থিত প্রার্থীকে পাশ করাতে নানা কৌশল বেছে নিয়েছেন। এ কৌশলের মধ্যে নগদ অর্থ, বিভিন্ন প্রকল্প কাজের প্রতিশ্রুতি, আত্মীয়তার সম্পর্ক খুজে ভোট চাওয়া হচ্চে। অনেক ভোটারকে বিভিন্নভাবে হুমকিও প্রদান করছেন। জেলা রির্টানিং কর্মকর্তা সূত্রে জানা গেছে, জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৮ নং সাধারণ আসন কেশবপুরে মোট ভোটার ১৫৯জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১২২ ও নারী ভোটার ৩৭ জন। কেশবপুর উপজেলা পরিষদের হলরুমে ইভিএম এর মাধ্যমে জেলা পরিষদের সদস্য ভোট ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে।

Previous articleপীরগাছায় কারিগরি শাখায় প্রায় তিন মাসেও বেতন নেই, শিক্ষকদের মানবেতর জীবন যাপন
Next articleনির্বাচন কমিশন কোনো চাপে নেই: সিইসি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।