বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২৪
Homeসারাবাংলাকেশবপুরে মুক্তিযোদ্ধা মোসলেম উদ্দীনের বিরুদ্ধে তদন্ত স্থগিত করলো হাইকোর্ট

কেশবপুরে মুক্তিযোদ্ধা মোসলেম উদ্দীনের বিরুদ্ধে তদন্ত স্থগিত করলো হাইকোর্ট

জি.এম.মিন্টু: কেশবপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোসলেম উদ্দীনের বিরুদ্ধে তদন্ত ৬ মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। ১৭ অক্টোবর বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট বিভাগের হাইকোর্ট ডিভিশনের বিচারপতি মোহাম্মদ আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ সোহরাওয়ার্দী কর্তৃক গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চের মাধ্যমে এ আদেশ দিয়েছেন।

রিটে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয়ের সচিব, জামুকার মহাপরিচালক, জামুকার সহপরিচালক, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের চেয়ারম্যান, যশোর জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তাকে বিবাদী করা হয়েছে। জানা গেছে, বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান, আবুল হাসান খান, সামছুর রহমান,আব্দুস সাত্তার,আব্দুল লতিফ,শাহাবুদ্দিন সরদার, অসিত কুমার ভদ্র, আমীর আলী খা, আব্দুর রহমান ঢালী, অদিত্য কুমার ও নিমাই দেবনাথ কর্তৃক বুড়িহাটি গ্রামের মো. মোসলেম উদ্দীন, চিংড়া গ্রামের আব্দুল খালেক, মেহেরপুর গ্রামের আলা উদ্দীন আহমেদ, নতুন মূলগ্রামের কামাল উদ্দীন আহম্মেদ ও বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের বাবর আলী সরদারকে অমুক্তিযোদ্ধা আখ্যা দিয়ে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বরাবরে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

অভিযোগে বলা হয়েছে ১৯৬৬ সাল থেকে ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত মোসলেম উদ্দীন উপজেলার প্রতাপপুর নিভারাণী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সে কারনে তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেন নি। অভিযোগের ভিত্তিতে ২০২২ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের চেয়ারম্যান কর্তৃক এদের বিরুদ্ধে তদন্ত কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে অধিকতর তদন্তের জন্য ০৩ অক্টোবর জামুকার চেয়ারম্যানের নির্দেশনা অনুযায়ী জামুকার সহকারী পরিচালক মোহাঃ আলাউদ্দীন কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট মোসলেম উদ্দীনসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত করার নির্দেশনা প্রদান করেন। ওই তদন্ত স্থগিতের দাবিতে ১৭ অক্টোবর হাইকোর্টে রিট করেন মোসলেম উদ্দীন।

এ বিষয়ে মোসলেম উদ্দীন বলেন, অভিযোগকারী ফজলুর রহমান ৫ নং সেক্টরের সিলেটে যুদ্ধ করেছেন। তিনি কিভাবে ৮ নং সেক্টরে মোসলেম উদ্দীন যুদ্ধ করেছেন কিনা সেটা জানবেন- প্রশ্ন রাখেন তিনি । তিনি দাবি করেন, ১৯৬৮ সালে প্রতাপপুর নিভারানী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করেছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ শুরুর পূর্বে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সরকারি-বেসরকারী অফিস, কোর্ট- কাচারি ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো অনিদিষ্টকালের জন্য বন্ধ রাখার ঘোষনা দিলে বাংলাদেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মত প্রতাপপুর নিভারাণী মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি বন্ধ হয়ে যায়। এরপর বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেন। তাছাড়া, অ‌ভি‌যোগকারী জনাব শাহবু‌দ্দিন, আব্দুস সাত্তার, আব্দুর রহমান ঢালী ও নিমাই চন্দ্র দেবনাথ ২০০০ সা‌লে য‌শোর জেলা কমান্ডার আব্দুল হাই কর্তৃক স‌রেজ‌মি‌নে তদন্ত কা‌লে বীর মু‌ক্তি‌যোদ্ধা মোঃ মোস‌লেম উ‌দ্দিন একজন প্রকৃত মু‌ক্তি‌যোদ্ধা এবং তার বিরুদ্ধে সকল অ‌ভি‌যোগ মিথ‌্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক ম‌র্মে প্রত‌্যয়ন দিয়ে‌ছিলেন। ইহা‌তে প্রমানীত হয় যে, অ‌ভি‌যোগকারীরা অসৎ উ‌দ্দে‌শ্যে উদ্দ্যেশ্যমুলকভাবে হয়রানি করার জন্যে এ অভিযোগ করা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments