জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গ্রাম্য আদালতে জনসম্মুখে সেনা সার্জেন্টকে দড়ি দ্বারা পিঠমোড়া দিয়ে বেঁধে রাখার নির্দেশ প্রদান ও হাড় গোড় ভেঙ্গে দেওয়াসহ তাকে চাকুরিচ্যুত করার হুমকীর অভিযোগ পাওয়া গেছে।এ ঘটনায় সেনা সদস্য হারুন অর রশিদ বাদী হয়ে ঐ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মঙ্গলকোট গ্রামের চারের মাথা ঈদগাহ সংলগ্ন ক্রয়কৃত জমির দখল নিয়ে ঈদগাহ কমিটির সাথে মঙ্গলকোট গ্রামের মৃত আবুল বাসার গুলদারের ছেলে সেনা বাহিনীর সার্জেন্ট হারুন অর রশিদের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। বর্তমানে হারুন অর রশিদ চট্টগ্রামের রাঙ্গামাটি জোনের খাগড়াছড়ি গ্যারিসনে সেনা বাহিনীর সার্জেন্ট হিসেবে কর্মরত আছেন। সম্প্রতি তিনি ছুটিতে বাড়ি এসে উভয় পক্ষের সমঝোতার এক পর্যায়ে তিনি তার ক্রয়কৃত সম্পত্তির দখল নিয়ে সেখানে তিনি ফলজ গাছ রোপন করেন। তার ক্রয়কৃত জমিতে গাছ রোপনের কিছুদিন পার হতে না হতে এলাকার একটি কুচক্রী মহলের ইন্দোনে বিষয়টিকে ধর্মীয় ইস্যু তৈরি করে মিথ্যা ও ভুল তথ্য দিয়ে স্বার্থ হাচিলের জন্য গত ১৮-১০-২২ তারিখে ঈদগাহ কমিটির পক্ষে আব্দুল গফুর গোলদার বাদী হয়ে “অবৈধভাবে ঈদগাহের মাটি কাটা” প্রসঙ্গ এনে সেনা সার্জেন্টের বিরুদ্ধে ৫নং মঙ্গলকোট ইউনিয়ন পরিষদ বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেন। ঐদিন পরিষদ কর্র্তৃক একটি নোটিশ তাকে দেওয়া হয়। যার মামলা নং-১৩৯/২২ ইং।প্রাপ্ত নোটিশে ২২-১০-২২ তারিখে শনিবার সকাল ১১ ঘটিকায় পরিষদের গ্রাম্য আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়। পরবতির্তে তারিখ পরিবর্তন করে ২৯-১০-২২ তারিখ সালিশের দিন নির্ধারন করা হয়। ধার্য তারিখে যথাসময়ে ঐ সেনা সার্জেন্ট ও ঈদগাহ কমিটির লোকজন মঙ্গলকোট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কাদেরের গ্রাম্য আদালতে হাজির হন।

আদালতের বিচারক সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান বিবাদীর কোন কথা না শুনে সম্পূর্ন বিআইনীভাবে বাদীগনের পক্ষ অবলম্বন করে ্ধসঢ়;তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে তার ক্রয়কৃত জমি ঈদগাহে দিতে চাপ সৃষ্টি করতে থাকে। শালিশে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের গ্রাম্য আদালতে উপস্থিত জনসম্মুখে প্রকাশ্যে ঐ সেনা সার্জেন্টকে দড়ি দ্বারা পিট মোড়া দিয়ে বেঁধে রাখার হুকুম প্রদান করে।শুধু তাই নয়,ঐ জমির উপর গেলে তাকে(সেনা সার্জেন) হাড়গোড় ভেঙ্গে দেওয়া, এমনকি তাকে চাকুরি চ্যুত করারও হুমকী প্রদান করেন ঐ চেয়ারম্যান। এঘটনায় ঐ সেনা বাহিনীর সার্জন বাদী হয়ে গত ৩১-১০-২২ তারিখে চেয়ারম্যান আব্দুল কাদেরের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

এব্যাপারে মঙ্গলকোট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, এই ধরনের কোন ঘটনা আমার পরিষদে ঘটেনি। আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য নয়। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম এম আরাফাত হোসেন বলেন, চেয়ারম্যান আব্দুল কাদেরের বিরুদ্ধে সেনা সার্জেন্টের একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Previous articleজেলহত্যা মামলার পলাতক আসামিদের দেশে ফিরিয়ে সাজা কার্যকর করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
Next articleলিটনের ব্যাটিংয়ে মুগ্ধ রাহুল, করলেন ভূয়সী প্রশংসা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।