মাসুদ রানা রাব্বানী: সাতচল্লিশ বছর আগে কারাগারে জাতীয় চার নেতাকে হত্যার দিনটি শোক আর শ্রদ্ধায় স্মরণ করছে রাজশাহীবাসী। সকালে নগরীর কাদিরগঞ্জ এলাকায় জাতীয় চার নেতার অন্যতম এএইচএম কামারুজ্জামানের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

দিবসটি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন শহীদ কামারুজ্জামানের পুত্র বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এছাড়াও পরিবারের সদস্যসহ রাজশাহী মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগ ও বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

শ্রদ্ধা নিবেদনের পর শেষে রাসিক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন সাংবাদিকদের বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তাঁর পরিবারের ঢাকায় বসবাসরত সকল সদস্যকে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল স্বাধীনতার পরাজিত শক্তিরা। একটিই কারণ সেটি হচ্ছে স্বাধীন বাংলাদেশের অগ্রযাত্রাকে রুখে দেওয়া এবং দেশকে আবার পাকিস্তানী ভাবধারায় ফিরিয়ে নেওয়ার জন্যে। এরই ফলশ্রুতিতে পরবর্তীতে আমরা দেখি, যখন খুনিচক্র বুঝতে পারে তাদের উদ্দেশ্যে ওই মুহুর্তে বাস্তবায়িত হবে না, দেশ ত্যাগ করার চিন্তাভাবনা তারা করে। সে সময়ে ৩রা নভেম্বর জেলখানায় আবদ্ধ জাতীয় চারনেতাকে নিশ্চিহ্ন করে দিতে সমাজের সকল রীতি-নীতি ভঙ্গ করে রাত্রীবেলায় জেলখানায় সশস্ত্র সেনাবাহিনী খুনি রিসালদার মোসলেহ উদ্দিনের নেতৃত্বে পাঠানো হয় এবং তারা সেই জঘন্য হত্যাকা-টি ঘটায়। চার জাতীয় নেতা জীবনে ও মরণে বঙ্গবন্ধুর সাথে ছিলেন। এই বেদনাবিধুর দুটি ঘটনা বাংলাদেশকে হয়তোবা একেবারে শেষ করে দিতে পারতো, যদি না আমাদের মাঝে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের হাল না ধরতেন, ক্ষমতায় না আসতেন, তাহলে দেশ আজকের এই জায়গায় থাকতো না। মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন আরো বলেন, হত্যাকা-গুলির রায় পরিপূর্ণ বাস্তবায়ন হয়নি। মানবাধিকারের কথা বলে কানাডা, আমেরিকা ইত্যাদি উন্নত দেশ বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের ফেরত দিচ্ছে না,

জাতীয় চার নেতার খুনিরাও ভারতসহ বিভিন্ন দেশে পলাতক আছে। তাদেরকেও ফেরত আনা যাচ্ছে না-ইত্যাদি নানা ঘটনায় এই বিচারের পথটি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এটি সহসায় কাটবে বলে আমি আশা করি।

তিনি আরো বলেন, ৩রা নভেম্বরকে যথাযথ মর্যাদায় রাষ্ট্রীয়ভাবে পালন করার যে আহ্বানটি এসেছে, আমি মনে করে দলের হাইকমান্ড এটি সুবিচেনায় নিবেন এবং এ বিষয়ে দ্রুতই ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নিবেন। এর আগে মহানগর আওয়ামী লীগ অফিসের স্বাধীনতা চত্ত্বরে বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এর পর সেখান থেকে শোক র‌্যালি বের করে কামারুজ্জামানের সমাধিতে যায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

সকালে শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের বাস ভবনে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। পরে শহীদ কামারুজ্জামানের সমাধিস্থলে আলোচনাসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী সিটি মেয়র ও আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলির সদস্য এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য বেগম আক্তার জাহান, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বিশিষ্ঠ সমাজসেবী শাহিন আকতার রেনী, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, রাজশাহী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ দারাসহ বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

Previous articleরেইনগজ মিটারসহ ডিভাইস অকেজো, ঈশ্বরদীর কৃষকরা আবহাওয়ার আগাম তথ্য পাচ্ছে না
Next articleরামেক হাসপাতালে ডেঙ্গুতে বৃদ্ধের মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।