জয়নাল আবেদীন: আগামী ২৭ ডিসেম্বর রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন উপলক্ষে নগরীতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের পক্ষে লাগানো ব্যানার, ফেস্টুন, প্রচার বিলবোর্ড আগামী ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে সরানোর নির্দেশ সহ সকল প্রকার মিছিল-মিটিং ও শোডাউনের উপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে । সেই সঙ্গে প্রার্থী নিজ দায়িত্বে প্রচার সামগ্রী অপসারণ না করলে আচরণ বিধি অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এই নির্দেশনা দেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও নির্বাচনী প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক মোঃ আবদুল বাতেন। এ সময় রংপুর জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেনসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। আব্দুল বাতেন বলেন, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন একটি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেওয়া হয়েছে। এই চ্যালেঞ্জ নিতেই আমরা দায়িত্ব নিয়েছি। সবার সহযোগিতায় এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করবো। এজন্য সকল রাজনৈতিক দলের সহযোগিতা প্র্রয়োজন। সবাই সহযোগিতা করলে একটি শান্তিপুর্র্ণ নির্বাচন সম্ভব।

তিনি আরও বলেন, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন ইভিএম ব্যবহার করা হবে। এর আগেও রংপুরের নির্বাচনে কিছু কিছু কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করা হয়েছে। এবার প্রত্যেকটি কেন্দ্র সিসি ক্যামেরার আওতায় থাকবে। রংপুর সিটি কর্পোরেশেনের তৃতীয় বারের মতো নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে । অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্পন্ন করতে যা যা করণীয়, তাই করা হবে জানিয়ে আবদুল বাতেন বলেন, একটি গ্রহণযোগ্য আইনানুগ সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আচরণ বিধি প্রতিপালনের কোনো বিকল্প নেই। আচরণ বিধি অনুযায়ী তফসিল ঘোষণার পর প্রার্থী কিংবা প্রার্থীর পক্ষে লাগানো সকল ধরনের ব্যানার, পোস্টার ফেস্টুন, বিলবোর্ডসহ প্রচার-প্রচারণা সামগ্রী অপসারণ করতে হবে। কিন্তু গত ৭ নভেম্বর তফসিল ঘোষণা হলেও এখনো নগরজুড়ে বিলবোর্ড, ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টারে ছেয়ে আছে।

রিটার্নিং কর্মকর্তা আরও জানান, ইভিএমে ভোট প্রদান নিশ্চিত করতে মাঠ পর্যায়ে মগভোটিং কার্যক্রম চলবে। এজন্য খুব দ্রুত দায়িত্ব পাওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রশিক্ষণের কার্যক্রম শুরু হবে। সকল কেন্দ্রে ইভিএম এবং গোপন কক্ষ ছাড়াও সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হবে।গাইবান্ধার মত সিসিটিভি ক্যামেরার সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হলে সিসিটিভি ক্যামেরা চালু রাখতে কি ধরনের উদ্যোগ নেয়া হবে, এমন প্রশ্নের উত্তরে রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন বলছেন, এগুলো নির্বাচন কমিশনের নলেজে আছে। কেউ যেন কোনো ভাবেই নির্বাচন কমিশনারের উদ্যোগে বাধা তৈরি করতে না পারে, সে ব্যাপারে কমিশন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। সিসিটিভি ক্যামেরা নির্বাচন কমিশন থেকেও মনিটরিং করা হবে। কোথাও কোন ধরনের অনিয়ম হলে ভোট কেন্দ্র বন্ধসহ পুরো নির্বাচন বন্ধের বিষয়েও সিদ্ধান্ত নিবে নির্বাচন কমিশন।

আগামী ২৭ ডিসেম্বর ২০১টি ভোট কেন্দ্রে সকাল সাড়ে আটটা থেকে বিকেল সাড়ে চারটা পযন্ত ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ২৯ নভেম্বর মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন। ৮ ডিসেম্বর চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ এবং ৯ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু হবে বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। উল্লেখ্য রংপুর সিটি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে জাতীয় পার্টির একক প্রার্থী হিসেবে বর্তমান মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের এটিএম গোলাম মোস্তফা বাবু, নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা চালালেও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ এখনো প্রার্থী চূড়ান্ত করতে পারেনি। তাদের হাফ ডজন প্রার্থী মনোনয়নের জন্য মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। এছাড়াও একাধিক স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তৃতীয় বারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন। আয়তনে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম এই সিটির ৩৩টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে লড়তে তিন শতাধিক প্রার্থী মাঠে নির্বাচনী বিভিন্নভাবে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

Previous articleঝিকরগাছায় ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল চালক নিহত
Next articleএনামুল হক হত্যা মামলায় পিতা-পুত্রসহ ৪ জনের যাবজ্জীবন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।