মিজানুর রহমান বুলেট: কুয়াকাটা বেরীবাঁধ উন্নয়নে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ২৯৩টি অবৈধ স্থাপণা উচ্ছেদ করা হয়েছে। এসব অবৈধ দখলদারদের একাধিকবার নোটিশ দেওয়ার পরও ওইসব স্থাপণা সরিয়ে না নেওয়ায় এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সিরাজুম মনিরা ও নঈম উদ্দিন উচ্ছেদ অভিযানের নেতৃত্ব দেন। এসময় পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাসহ মহিপুর থানা পুলিশের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে এসব দখলদারদের পাউবো’র পক্ষ থেকে ক্ষতিপূরণের টাকা প্রদান করা হয়েছে। ক্ষতিপুরণের টাকা পাওয়ার পরে গত তিন বছরেও এসব স্থাপণা সরিয়ে না নেওয়ায় কর্তৃপক্ষ এমন সিদ্ধান্ত নেয়। এদিকে উচ্ছেদে ক্ষতিগ্রস্থ তিন শতাধিক ব্যবসায়ী বেকার হয়ে পরেছে। এমন অবস্থায় ক্ষতিগ্রস্থ্য ব্যবসায়ীরা পুর্নবাসনের দাবী জানিয়েছে। অন্যথায় পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতে হবে বলে দাবী ব্যবসায়ীদের।
বহু বছর ধরে কুয়াকাটা চৌরাস্তার জিরো পয়েন্টের দু’দিকে ১ কিলোমিটার এলাকার বেড়িবাঁধে এসব অবৈধ স্থাপনা গড়ে তোলা হয়েছিল। উচ্ছেদের ফলে দখলমুক্ত হলো বেড়ীবাঁধ এলাকা।

কলাপাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মেহেরাজ হোসেন জানান, কুয়াকাটার জিরো পয়েন্টের দুই দিকে ১ কিলোমিটার এলাকায় এসব অবৈধ দখলদারদের সরে যেতে ক্ষতিপূরণ দিয়ে সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে। তারপরও তারা আইন না মানায় জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়েছে।এরা সরকারের কোন আইন মানেনা।

পটুয়াখালী জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট নঈম উদ্দিন বলেন, কুয়াকাটা সৈকত সুরক্ষা বেড়িবাঁধ উন্নয়ন প্রতিবন্ধকতায় ছিল ওইসব অবৈধ স্থাপনা। তাই জেলা প্রশাসকের নির্দেশে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

Previous articleদিনাজপুরে গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেফতার ৪
Next articleকুলাউড়ায় জয়নাল হত্যার প্রধান আসামি গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।