বাংলাদেশ প্রতিবেদক:রাজশাহী নগরীতে সাংবাদিককে মাদক সেবী বলে আটকের হুমকি দিয়ে নগদ ১হাজার টাকা নেয়ার অভিযোগ কাটাখালী থানার এসআই আজাহারের বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার রাত ৭টার দিকে নগরীর কাটাখালি থানাধিন চৌমহিনি, টাংগণ এলাকার মাদক কারবারি জনৈক রুমনের (রুমন ন্যংড়া) বাড়ি থেকে বের হচ্ছিলেন কাটাখালি থানার এসআই মুনির ও এসআই আজাহার। এ সময় সাংবাদিক আলাউদ্দিনের সামনে পড়ে ওই দুই এসআই। তারা তাদের অপরাধ ঢাকতে সাংবাদিককে বলেন, আপনি এখানে কেন ? উত্তরে সাংবাদিক বলেন তার ব্যক্তিগত কাজের কথা বলেন। এরপর এসআই তার পরিচয় জানতে চান। পত্রিকার পরিচয় দিলে তারা ক্ষুদ্ধ হয়ে থানায় নিয়ে যাবেন বলে ভয়ভীতি প্রদর্শণ করেন। কোন উপায় না দেখে তাদের নগদ ১ হাজার টাকা দিয়ে সেখান থেকে চলে আসেন সাংবাদিক।

স্থানীয়রা জানান, এসআই আজাহার কাটাখালি থানায় যোগদান করার পর থেকে মাদক কারবারিদের সাথে সখ্যতা রেখে মাসোহারা এবং হপ্তা আদায় করেন থাকেন। কিন্তু ওই এলাকা থেকে মাদক সেবন করে ফিরে আসার সময় শহরের বিভিন্ন প্রান্তের যুবকদের মোটরসাইকেল থামিয়ে আটকের হুমকি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে ২’শত টাকা থেকে শুরু করে ১০০০ হাজার টাকা পর্যন্ত নিয়ে থাকেন বলে অভিযোগ দীর্ঘদিনের।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক মাদক কারবারি জানায়, এসআই আজাহারের মতো ছেচড়া এসআই এর আগে কাটাখালি থানায় কখনো দেখিনি।

ভুক্তভোগী সাংবাদিক মোঃ আলাউদ্দিন জানান, আমাকে আটকের হুমকি দিয়ে ১হাজার টাকা নিয়ে মুক্তি দেন এসআই আজাহার ও মুনির। পরে পত্রিকার আইডি কার্ডের ছবি তুলে রাখেন তারা।

এ ব্যপারে এসআই আজাহারের মুঠো ফোনে ফোন দিয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমি কোন সাংবাদিকের কাছে টাকা নেয়নি। তবে পত্রিকার আইডি কার্ডের ছবি তোলার বিষয়টি এড়িয়ে যান তিনি।

এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ১২টায় মতিহার বিভাগের (এডিসি) মোঃ একরামুল হক এর মুঠো ফোনে ফোন দিয়ে বিষয়টি অবগত করা হয়। তিনি বলেন, পুলিশ কমিশনার স্যার বরাবর একটি অভিযোগ দেন। তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleলালমনিরহাটে উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মারধর ও শ্লীলতাহানি অভিযোগে মানববন্ধন
Next articleশ্রীমঙ্গলের কালাপুর পেট্রোল পাম্প এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।