রবিবার, জুন ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাতাহিরপুরে ফসল রক্ষায় অপরিকল্পিত বাঁধ, মাছ প্রজননে বাধাগ্রস্ত ও জীববৈচিত্র্য হুমকিতে

তাহিরপুরে ফসল রক্ষায় অপরিকল্পিত বাঁধ, মাছ প্রজননে বাধাগ্রস্ত ও জীববৈচিত্র্য হুমকিতে

আহম্মদ কবির: আগাম বন্যা হতে ফসল রক্ষার নামে প্রতি বছর সুনামগঞ্জ তাহিরপুর উপজেলায় অপরিকল্পিত ভাবে যে পরিমাণ বাঁধ নির্মাণ করা হয়।তা মাছের জন্য ক্ষতিকর বলে মনে করেছেন হাওর পাড়ের সচেতন মহলসহ বিশেষজ্ঞরা।তারা জানান কোন জলাশয় মাছের জন্য নিরাপদ এবং নির্বিঘ্নে চলাচল খুবই জরুরি। এটি বাধাগ্রস্ত হলে মাছের প্রজনন ব্যাপকভাবে বাধাগ্রস্ত হয়। এছাড়াও অপরিকল্পিত ভাবে যেখানে সেখানে বাঁধ নির্মাণে টাঙ্গুয়ার হাওর সহ উপজেলার বিভিন্ন হাওরের কান্দা গুলো রয়েছে হুমকিতে, উজাড় হচ্ছে প্রাকৃতিকভাবে কান্দায় বেড়ে উঠা গাছগাছালি সহ বনজঙ্গল। যাহা ভড়া বর্ষায় মাছের আশ্রয়স্থল ও হেমন্তে বন্যপ্রাণীসহ বিভিন্ন পাখির আশ্রয়স্থল হিসাবেই ব্যবহার হয়ে থাকে।

হাওর পাড়ের অনেকের সাথে কথা বলে জানাযায় হাওরে দেরিতে পানি প্রবেশ না হওয়ায় সময়মতো মাছের প্রজনন হয়নি।জার ফলে আগের মতো মাছের উৎপাদন হচ্ছে না।মাছ উৎপাদনে এমন আকাল অবস্থার জন্যে হাওরপাড়ে ফাসল রক্ষার জন্য নির্মিত অপরিকল্পিত বাঁধ ও নির্বিচারে মৎস্য নিধন কে দায়ি করেছেন হাওরপাড়ের সচেতন মানুষ। তাদের মতে ফসলরক্ষার নামে টাঙ্গুয়ার হাওরসহ উপজেলার সবকটি হাওরের চারপাশে নির্মিত করা হয়েছে বাঁধ।বন্ধ করা হয়েছে টাঙ্গুয়ার হাওরসহ বিভিন্ন হাওরের অনেক গুরুত্বপূর্ণ নালা।অপরিকল্পিতভাবে বাঁধ নির্মাণ করে পানির ধারা বন্ধ করার ফলে সময় মতো হাওরে পানি ঢুকতে পারেনি।ফলে প্রকৃতির নিয়ম অনুযায়ী মাছের প্রজনন না হওয়ায় মাছের উৎপাদন হয়নি।তারা জানান অন্যদিকে বাঁধের মাটি বৃষ্টির সঙ্গে ধুয়ে হাওর ও বিলে গিয়ে নদী ও হাওরে পলি জমে দিনের পর দিন এগুলো ভরাট হচ্ছে।ভবিষ্যতে হাওর ও নদী গুলো থাকবেনা ফলে ধান ও মাছ দুটোরই ক্ষতি হবে।

ফসল রক্ষার নামে অপরিকল্পিত ভাবে যেখান সেখানে বাঁধ নির্মাণ করে,হাওর জলাশয়ের সাথে নদীর পানি ধারা বন্ধ করে দিলে আগামীতে মাছের উৎপাদন আরও কমে যাওয়া ও জীববৈচিত্র‍্য বিনষ্ট হওয়ার আশঙ্কা করেছেন হাওরপাড়ের সচেতন মহল।তারা হাওরের চরিত্র বুঝে প্রকৃতির সঙ্গে মিল রেখে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড হাতে নেয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন।

বিভিন্ন তথ্যসুত্রে জানাযায় গত কয়েক বছরে উপজেলার টাঙ্গুয়ার হাওরসহ আশপাশের গুলো হতে বিলুপ্ত হয়েছে প্রায় ৫০প্রজাতির মাছ,পূর্বে এই হাওর গুলোতে ১৪৩ প্রজাতির মাছের আশ্রয়স্থল ছিল।বর্তমানে টাঙ্গুয়ার হাওরসহ এই হাওর গুলোতে ৯৩ প্রজাতির মাছ দেখা যায়।জলাশয় ভরাট হয়ে যাওয়া, অপরিকল্পিত বাঁধ নির্মাণ,অতিরিক্ত কীটনাশক ব্যবহার ও অবাধে মৎস্য নিধনের ফলে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ।

সম্প্রতি উপজেলার টাঙ্গুয়ার হাওরসহ বিভিন্ন হাওর ঘুরে দেখাযায়,টাঙ্গুয়ার হাওরের রূপাবুই, নয়হাল,হানিয়া কলমা সহ কয়েকটি বিলে স্বাভাবিক ভাবে মাছ চলাচলের যে রাস্তা গুলো রয়েছে তা মাটি দিয়ে বন্ধ রয়েছে।এছাড়াও বিভিন্ন বাঘমারা গুপ সহ কয়েকটি কান্দা হতে দানবযন্ত্র এক্সভেটর দিয়ে এমন ভাবে মাটি কাটা হয়েছে এতে কান্দায় প্রাকৃতিকভাবে বেড়ে উঠা গাছগাছালি সহ বনজঙ্গল।এ সময় কথা হয় টাঙ্গুয়ার হাওর পাড়ের জয়পুর গ্রামের জেলে কপিলনুর মিয়া বলেন,ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণে এক্সভেটর দিয়ে কান্দায় যেভাবে মাটি কাটা হয়, এমনভাবে মাটি কাটা হতে থাকলে একসময় হাওর এলাকায় কান্দার অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যাবে না।আর ফসল রক্ষার নামে অপরিকল্পিত ভাবে যেখানে সেখানে বাঁধ দিয়ে মাছের স্বাভাবিক চলাচলের পথ বন্ধ করে দেওয়ায় মাছ উৎপাদনে দিনের পর দিন কমে যাচ্ছে।

একই এলাকার শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের হুকুমপুর গ্রামের কৃষক আবুল কালাম বলেন টাঙ্গুয়ার হাওর এলাকায় ফসল রক্ষার কিছু বাঁধ দেওয়া হয় যাহা হাওরের মাধ্যভাগ দিয়ে এইভাবে না দিয়ে হাওরের কিনারে কিনারে দেওয়ার সুযোগ রয়েছে এতে সরকারের টাকার অপচয় কম হবে।অন্যদিকে হাওরের পরিবেশের তেমন ক্ষতি হবে না।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments