জি.এম.মিন্টু: কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা কাজী রফিকুল ইসলামকে একদল সন্ত্রাসী প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে। তাকে লাঞ্ছিত করার চেষ্টা করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের নিচে পৌর আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক আলমগীর সিদ্দীক টিটুসহ ১৫/২০ জন তাকে অপমান ও নানারকম হুমকি প্রদান করেছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী রফিকুল ইসলাম কেশবপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগে উপজেলা চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী রফিকুল ইসলাম (৭৬) বলেছেন, আমি কেশবপুর উপজেলা পরিষদের অফিসে প্রতিদিনের ন্যায় অফিসিয়াল কার্যক্রম শেষে ইং-০১/১২/২০২২ তারিখ দুপুর অনুমান ০১.৪০ ঘটিকায় কার্যালয়ের দোতলা থেকে নিচে নেমে একা গাড়িতে উঠার পূর্ব মুহুর্তে আসামী মোঃ আলমগীর সিদ্দীকি টিটু এর নেতৃত্বে ১৫/২০ জন আমার সামনে এসে দাড়িয়ে আলমগীর সিদ্দীক টিটু আমাকে বলে,  আমার সঙ্গে আপনার কিসের সমস্যা ? আমি বলি, “তোমার সাথে আমার কোন সমস্যা নাই। তখন সে বলে “আমার মায়ের সম্পর্কে আপনি বিভিন্ন রকম কথা বলেছে। তখন আমি বলি, আমি তথ্য প্রমান ছাড়া কিছু বলি না। তোমার মা বর্তমানে নাশকতা মামলার আসামী এবং সেই কেস বর্তমানে কোর্টে চলমান। আর আমি যে সমস্ত কথা বলেছি সেগুলো মিথ্যা প্রমান করে দেখাও। তখন সেসহ আসামীরা আমাকে উদ্দেশ্য করে মুক্তিযোদ্ধার মা বাবাদেরকে নিয়ে কু-রুচিপূর্ণ গালিগালাজ শুরু করে। আমি প্রতিবাদ করলে উক্ত আসামীরা আমাকে ও আমার ছেলেদেরকে মেরে ফেলার হুমকী দেয়।

অভিযোগ যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে তারা হলেন, ১। মোঃ আলমগীর সিদ্দীকি টিটু (৪০), পিতা-আবু বক্কার, সাং-বারুইহাটি, থানা-কেশবপুর, জেলা-যশোর বর্তমানে সাং- হাবাসপোল, (হাসপাতালের পূর্ব পাশে), ০১ নং ওয়ার্ড, কেশবপুর পৌরসভা, ২। মোঃ রাজিব খান (৩৫), পিতা-মিজানুর রহমান খান, সাং-মধ্যকুল, ৩। মোঃ আরিফ হোসেন (৩৫), পিতা-আব্দুর রহিম, সাং-ভোগতী নরেন্দ্রপুর, ৪। মোঃ জামাল হোসেন (৩২), পিতা- গণি, সাং-মধ্যকুল, ৫। ইকরামুল (৩৫), পিতা-অজ্ঞাত, সাং-আলতাপোল (০৫ নং ওয়ার্ড, কেশবপুর পৌরসভা), ৬। শামিম (২৫), পিতা-অজ্ঞাত, সাং-মধ্যকুল (তেল পাম্পের পাশে), ৭। মাসুদ হোসেন (২৬), পিতা-মুকুল হোসেন, সাং-বায়সা, সর্ব থানা – কেশবপুর, জেলা-যশোর সহ অজ্ঞাতনামা ১৫/২০ জন।

আলমগীর সিদ্দীক টিটু জানান, তিনি আমার মাকে নিয়ে বিভিন্ন সভায় নানারকম মন্তব্য করেছেন। আমি সে বিষয়ে জানতে চাইলে সেখানে তার সাথে কথা কাটাকাটি হয়েছে। কেশবপুর থানার ওসি মফিজুর রহমান জানান, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ ঘটনায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

Previous articleউলিপুরে লাউ শাক চাষে দ্বিগুণ লাভ
Next articleফুলবাড়ীতে ৩৩ কেজি গাঁজাসহ আটক ১, কাভার্ড ভ্যান ও মোটরবাইক জব্দ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।