বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৮, ২০২৪
Homeসারাবাংলাপপির জন্য এখনো পথ চেয়ে বসে আছেন মা

পপির জন্য এখনো পথ চেয়ে বসে আছেন মা

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: আগামীকাল ২৪ ডিসেম্বর সুগন্ধা নদীতে অভিযান-১০ লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিদুর্ঘটনার এক বছর পূর্ণ হচ্ছে। সুগন্ধা নদীর মাঝে ভয়াবহ সেই ট্রাজেডিতে নারী-পুরুষ ও শিশুসহ ৪৯ জন প্রাণ হারিয়েছেন। আহত হয়েছেন শতাধিক। নিখোঁজও আছেন অনেকে, তাদের মধ্যে আছেন পাথরঘাটা উপজেলার ফজিলা আক্তার পপিও।

সেই ট্রাজেডির এক বছর পূর্ণ হলেও এখনো পপির পথ চেয়ে বসে আছেন তার মা আমেনা বেগম। সেদিনের মানুষ পোড়া গন্ধে স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে ওঠেছিল সুগন্ধা নদীর তীর। তার মধ্যে অনেক খোঁজাখুজির পরেও পপির কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

ফজিলা আক্তার পপি পাথরঘাটা উপজেলার চরদুয়ানি ইউনিয়নের ছোট টেংরা গ্রামের মো: আফজাল হোসেনের মেয়ে।

বরগুনা জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ঘটনার পরদিন নিহতদের মধ্যে অজ্ঞাত পরিচয়ের ২৪ জনকে বরগুনার ঢলুয়া ইউনিয়নে পোটকাখালীর গণকবরে দাফন করা হয়। এদের মধ্যে ডিএনএ টেস্টে তাদের ১৬ জনের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে। বছর পেরিয়ে গেলেও বাকিদের ডিএনএ টেস্টের রিপোর্ট শনাক্ত না হওয়ায় নিহতদের অর্থ সহায়তাসহ হস্তান্তর করা হয়নি কবর।

এদিকে বরগুনা সিআইডি অফিস জানিয়েছেন, সিআইডি ঢাকা ফরেন্সিক ডিএনএ ল্যাবরেটরি থেকে তাদের স্যাম্পল সংগ্রহ করা হয়েছিল। এটা তারা বলতে পারবে। বরগুনা অফিসে কোনো তথ্য নেই।

পপির মা আমেনা বেগম জানান, পপি ঢাকার সাভার এলাকার একটি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন। অষ্টম শ্রেণী পড়ুয়া মেয়েকে ঢাকায় ভালো কোন স্কুলে লেখাপড়া করাবেন সেই স্বপ্ন নিয়ে অভিযান-১০ লঞ্চে বাবার বাড়িতে ফিরছিলেন। পথিমধ্যে সুগন্ধা নদীতে অভিযান-১০ লঞ্চে আগুন লেগে নিখোঁজ হয়। ওই দিন রাত ৯টার দিকেও কথা বলেছেন তার মেয়ের সাথে।

তিনি আরো বলেন, সন্তানহারা মা কিভাবে থাকে। সন্তানের অভাব কেউ পূরণ করতে পারে না। খুব কষ্টে দিন পার করছি। পপি লঞ্চে ওঠার সময় ফোন দিয়া বলছিলো- মা ছুটি কম, রুটি পিঠা খাইতে মন চায়। যা খাওয়াবা জলদি খাওয়াবা। সকালে শুনি যে লঞ্চে আমার মেয়ে ছিল সেই লঞ্চেই আগুন লেগে পুড়ে গেছে। আর আমার মেয়ে আসলো না। রুটি পিঠাও খাওয়াতে পারলাম না। আমি এখন নিশ্চিত আমার মেয়ে আর নেই।

পপির মা আরো জানান, ‘এখন পর্যন্ত ডিএনএ রিপোর্টেও শনাক্ত হয়নি পপির লাশ। একারণে আমরা কোনো সরকারি সহায়তা পাইনি। এতে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছেন পপির মেয়ের লামইয়ার ভবিষ্যৎ। পপির মৃত্যুর সনদ না পাওয়ায় মেয়ের জন্য গচ্ছিত ডিপিএসের জমা টাকাও তুলতে পারছি না আমরা।’

কবর বুঝে নিতে চাইলে আবেদন করার কথা বলেছেন বরগুনা জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান। এছাড়াও খুব শিগগিরই শনাক্তদের সহায়তার অর্থ প্রদান করা হবে বলেও জানান তিনি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments