আবুল কালাম আজাদ: কুড়িগ্রামের উলিপুরে উপজেলার পৌরসভাধীন বড় বাজারে শীতে খেজুর গুড়ের কদর বেড়েছে। গুড়ের দোকানে ক্রেতার ভীড় দেখা যায়। আখের গুড়ের বাজার বেশি থাকলেও ক্রয় করতে পিছিয়ে নেই ক্রেতেরা। শীতে পিঠা পায়েশ খেতে খেজুর গুড়ের প্রয়োজন। তাই খেজুর গুড়ের প্রতি ক্রেতার অনেক চাহিদা।

সরেজমিন উপজেলার পৌরসভাধীন বড় বাজারে গুড় হাটিতে গিয়ে দেখা যায় ক্রেতারা আখের গুড় ক্রয় করার জন্য সারি সারি দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। কেউ খেজুর গুড় ক্রয় করছেন কেউ দরদাম নিয়ে ব্যাস্ত আছেন। খেজুর গুড় বিক্রেতা সার্বক্ষণিক খেজুরের গুড় সহ অন্যান্য বিভিন্ন নামের গুর বেচতে ব্যাস্ত সময় পার করছেন। শীতের সময় খেজুরের গুড় বিক্রির হিরিক পড়ে যায় বলে জানান ব্যাবসায়ীরা। তবে বিভিন্ন ধরনের গুড়ের বাজার বিভিন্ন ধরনের। গুড়ের কোয়ালিটি ভেদে দাম বেঁধে দেয়া হয়েছে।

উপজেলার বড় বাজারে গুড় কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে আখের পাটলা গুড় ১’শ ৪০ টাকা, আখের চকি গুড় ১’শ ১০ টাকা, খেজুরের মুঠা গুড় ২’শ টাকা, আখের দানা গুড় ১’শ ১০ টাকা দরে বিক্রি করছেন। বর্তমান গুড়ের বাজার দর বেশি থাকায় আগের তুলনায় বেশি বিক্রি হচ্ছেনা। তবে শীত কালীন সময়ে গুড়ের চাহিদা অনেক বাড়ে বলে জানান বিক্রেতারা।

উপজেলার ধরনিবাড়ি ইউনিয়নের কিশামত মালতিবাড়ি থেকে আখের গুড় ক্রয় করতে আসা শফিকুল ইসলাম বলেন, আমি শীতকালীন সময়ে বেশিরভাগই খেজুরের গুড় ক্রয় করে থাকি। আজ প্রায় ২ কেজি ক্রয় করলাম ২’শ টাকা দড়ে। বাসায় পিঠা পায়েশ তৈরি হবে পরিবারের সকলে মিলে খাব। তিনি আরও বলেন, আমার পরিবারের সকল সদস্য আখের গুড় পছন্দ করে।

এ ছাড়া জুম্মাহাটের জাহেদুল ইসলাম বলেন, আমি ও আমার স্ত্রী সহ খেজুরের গুড় কিনতে আসেছি। গুড়ের বাজার অনেক চড়া থাকায় পায়েশ খাওয়ার জন্য পড়িমাণ মত খেজুরের গুড় ক্রয় করলাম। জাহেদুলের স্ত্রী বলেন খেজুর গুড় শীত কালে বেশি পাওয়া যায়। শীতকালে খেজুর গুড়ের পিঠা পায়েশ খেতে অনেক ভালই লাগে। অনেক দাম থাকায় পরিমাণ মত খেজুরের গুড় ক্রয় করলাম বলে জানান তিনি।

এছাড়া খেজুরের গুড় ক্রয় করতে আসা মোস্তাফিজার, কামরুজ্জামান, আসাদুজ্জামান, জোবেদা বেগম সহ আরও অনেকে বলেন, শীত কালে খেজুরের গুড়ের চাহিদা অনেক বেড়ে যায়। শীতকালে খেজুরের গুড় দিয়ে বিভিন্ন ধরনের পিঠা পায়েশ তৈরি করে খেতে অনেক ভালো লাগে। তারা আরও বলেন শীতকালে খেজুরের গুড় খেলে অনেক উপকার করে। তবে খেজুরের গুড়ের বাজার অনেক বেশি হওয়ায় চাহিদার থেকে বেশি কেনা সম্ভব হচ্ছেনা বলে জানান তারা।

উপজেলার গুড় বিক্রেতা আব্দুল জলিল ব্যাপারী বলেন, আমি এখানে প্রায় ৩৫ বছর থেকে গুড়ের ব্যাবসা করে আসতেছি। শীতের সময় খেজুরের গুড় ও আখের গুড়ের চাহিদা অনেক বেড়ে যায়। এবারে গুড়ের বাজার অনেক বেশি হওয়ায় ক্রেতার চাহিদা অনেক কম। তিনি বলেন প্রতিদিন প্রায় ৫ হাজার থেকে ৬ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়ে থাকে। ১০ হাজার টাকার গুড় পাইকেরিতে ক্রয় করে তা ১২ হাজার টাকা খুচরায় বিক্রয় করা যায়। তবে প্রতিদিন ১ হাজার টাকা পর্যন্ত লাভ করা যায় বলে যানান তিনি।

Previous articleমির্জা ফখরুল-আব্বাসের ৬ মাসের জামিন
Next articleকুড়িগ্রামে বিদেশি মদ ও গাঁজাসহ আটক ২
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।