বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪
Homeসারাবাংলারংপুরে অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে ইটভাটা, নানান প্রতিকুলতার মধ্যে কাজ করছে পরিবেশ অধিদপ্তর

রংপুরে অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে ইটভাটা, নানান প্রতিকুলতার মধ্যে কাজ করছে পরিবেশ অধিদপ্তর

জয়নাল আবেদীন: রংপুর বিভাগের আট জেলার ৫৮টি উপজেলায় ১ হাজার ১৮টি ইটভাটার মধ্যে শুধুমাত্র ১শ৫১টি বৈধ। বাকি ৮শ৬৭টি ইটভাটা নিয়ম না মেনে অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে। এরমধ্যে রংপুর জেলায় সবচেয়ে বেশি অবৈধ ইটভাটা রয়েছে, আর সবচেয়ে কম লালমিনরহাটে।

পরিবেশ অধিদপ্তর রংপুর বিভাগীয় কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে রংপুর জেলার ২শ৪০টি ইটভাটার মধ্যে অবৈধই ২শ১২টি, বাকি ২৮টির ছাড়পত্র রয়েছে। লালমনিরহাটে ৫৪টির মধ্যে ৩৪ অবৈধ, দিনাজপুর ২শ১৫টির মধ্যে অবৈধ ১শ৬৫, কুড়িগ্রামে ১শ১১টির মধ্যে ৯০টি অবৈধ ভাবে গড়ে ওঠা। এছাড়া পঞ্চগড় জেলার ৪৯টি ইটভাটার মধ্যে বৈধতা নেই ৪২টির, ঠাকুরগাঁওয়ের ১শ১৯টির মধ্যে ১শ১৪টি অবৈধ, নীলফামারীর ৫৪টির মধ্যে ৫০টি অবৈধ এবং গাইবান্ধার ১শ৬০টি ভাটার মধ্যে ১শ৪৪টিই অবৈধ।২০২২ সালের নভেম্বরে দেশের সব জেলার অবৈধ ইটভাটা ও ইটভাটার জ্বালানি হিসেবে কাঠ ব্যবহার ৭ দিনের মধ্যে বন্ধ করার নির্দেশনা জারি করেন মহামাণ্য হাইকোর্ট। এ নির্দেশনা বাস্তবায়নে দেশের অন্যান্য স্থানের মতো রংপুর বিভাগেও মাঠে নেমেছে পরিবেশ অধিদপ্তর। কিন্তু জনবল সংকটের কারণে কর্তৃপক্ষ ঠিকমতো অভিযান চালাতেই পারছে না। ফলে উচ্চাদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী সাতদিনের মধ্যে সব অবৈধ ইটভাটা বন্ধের নির্দেশনা বাস্তবায়নে ব্যর্থ হয় পরিবেশ অধিদপ্তর।

তবে রংপুর বিভাগের আট জেলায় গত ১৩ নভেম্বর থেকে ৩ জানুয়ারি পর্যন্ত ২২টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়েছে। এসব অভিযানে নিয়ম না মেনে ইটভাটা গড়ে তোলার অপরাধে মাত্র ৪৬টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। এছাড়াও অভিযানে অবৈধ ৩৭টি ইটভাটা ভেঙে দেওয়া হয়। একই সঙ্গে আরও ১১টি ইটভাটা বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় ১ কোটি ১৯ লাখ ৪০ হাজার জরিমানাও আদায় করা হয়। এছাড়া অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে পরিবেশ আদালত/স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নভেম্বরে একটি এবং ডিসেম্বরে চারটিসহ মোট ৫টি মামলা হয়েছে।সরকারিবিধি অনুযায়ী রংপুর বিভাগের ৮শ৬৭ ইটভাটা সম্পূর্ণ অবৈধ। এসব ভাটায় বিধি লঙ্ঘন করে পোড়ানো হচ্ছে ইট, জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে কাঠ। এতে পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে ।

পরিবেশ অধিদপ্তরের রংপুর বিভাগীয় পরিচালক সৈয়দ ফরহাদ হোসেন এ প্রতিনিধিকে বৃহস্পতিবার বলেন একেকটি ইটভাটা একবার করে পরিদর্শন করলে পুনরায় সেটি পরিদর্শন করা তিন থেকে চার বছরেও সম্ভব না। ফলে অভিযানের পর যেসব ইটভাটা বন্ধ করে দেওয়া হয়, তা কিছুদিন পর আবার চালু হয়। শুধু তাই নয় রংপুর বিভাগে অধিদপ্তরে জনবল কম থাকার সুযোগ নিয়ে অসাধু চক্র সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে ভাটায় কাঠ পুড়িয়ে ইট উৎপাদন ও বিপনন করছে। তিনি আরো বলেন বর্তমানে রংপুর বিভাগীয় কার্যালয়ে কর্মরত আছেন মাত্র ৬ জন। অথচ সেখানে জনবল থাকার কথা ২৬ জন। বিভাগীয় কার্যালয়টিতে একমাত্র প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেটসহ তিনজন অন্যত্র পেষণে দায়িত্ব পালন করছেন। অনুমোদিত ১৩ পদে কোনো জনবলই নেই। এই ১৩টিসহ ১৬ পদে জনবল শূন্য রয়েছে ১৭ জন।

তিনি বলেন অনেক সংকটের মধ্যেও ২০২২ সালে বিভিন্ন অবৈধ ইটভাটায় অভিযান চালিয়ে ২ কোটি ৮৭ লাখ ৮০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে । একই সময়ে ৩০টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ৮৫টি অবৈধ ইটভাটার ব্যক্তিপ্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। অভিযান পরিচালনার সময় অবৈধ কোনো ইটভাটা কিংবা পরিবেশের ক্ষতিকর অবৈধ অন্য কোনো স্থাপনা উচ্ছেদ করতে খননযন্ত্র অপরিহার্য হয়ে পড়ে। কিন্তু আমাদের কার্যালয়ে নিজস্ব কোনো খননযন্ত্র নেই, এটি ভাড়া করে কাজ করতে হয়। জনবল সংকটসহ এমন নানা প্রতিকূল অবস্থাতে আমরা পরিবেশ সংরক্ষণে সাধ্যমত দায়িত্ব পালনে চেষ্টা করে যাচ্ছি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments