মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২৪
Homeসারাবাংলাকেশবপুরে ৪৩ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করে বৃদ্ধা মাকে বাড়ি থেকে বের করে...

কেশবপুরে ৪৩ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করে বৃদ্ধা মাকে বাড়ি থেকে বের করে দিল জামাই-মেয়ে

জি.এম.মিন্টু: মৃত স্বামীর রেখে যাওয়া ব্যাংক একাউন্ট থেকে ৪৩ লক্ষ টাকা উঠিয়ে সমুদয় টাকা আতœসাৎ করে বিধবা মাকে বিতাড়িত করে বসতঘর ও দোকানে তালা মেয়ে দিয়েছে কুলাঙ্গার জামাই ও মেয়ে। কেশবপুর উপজেলার গোপসানা গ্রামে এই ঘটনাটি ঘটেছে।

সোমবার (২৭ ফেব্রুয়ারী-২৩)দুপুরে সরেজমিনে গোপসানা বাজারে গেলে বৃদ্ধা মা হাসিনা বেগম(৭৪) সাংবাদিকদের কাছে হাউ মাউ করে কেঁদে বলেন,আমার স্বামী ঈমান আলী গাজী বেঁচে থাকা কালীন সময়ে তার অর্জিত টাকাসহ জমি বিক্রয় করা যাবতীয় টাকা কেশবপুর সোনালী ব্যাংক,ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকসহ পোষ্ট অফিসে ফ্যমিলি ডিপোজিট করে রাখে ও মেয়ে আনোয়ারা খাতুনকে ব্যাংকের নমিনি নিযুক্ত করেন। গত ১০-০২-২০২২ সালে আমার স্বামীর মৃত্যুর পর আমিসহ আমার অন্যান্য ছেলে-মেয়ে ও সকল ওয়ারেশগন স্বামীর রেখে যাওয়া অর্থ সম্পদ ও টাকা পয়সা ভাগ বন্টন করার লক্ষে মেয়ে আনোয়ারার দারস্থ হলে সে জানাই সময়মত টাকা উত্তোলন করে সকল ওয়ারেশগনকে বন্টন করা হবে বলে আশ্বাস্থ করে।কিন্তু পরবর্তিতে সুচতুর আনোয়ারা- জামাই আনোয়ার হোসেন ও সতিনের ছেলে রেজাউল ইসলামের পরসপর যোগসাজসে পূর্বপরিকল্পনা মোতাবেক আমাকে সহ আমার স্বামীর সকল ওয়ারেশগনের অগোচরে স্বামীর নামীয় ব্যাংক ও পেষ্ট অফিসের আনুমানিক ৬৩ লক্ষ টাকা উত্তোলন করে মেয়ে আনোয়ারা, তার স্বামী ও সৎ ভাই মিলে সেই টাকা আতœসাৎ করে। আমি আমার স্বামীর রেখে যাওয়া টাকার হিসাব চাইলে সে আমাকে ও আমার অন্যান্য ওয়ারেশগনকে বিভিন্নভাবে হুমকী- ধামকী দিতে থাকে। একপর্যায়ে কোন উপায়ন্তর না পেয়ে স্বামীর রেখে যাওয়া টাকা ফেরৎ চেয়ে মেয়ে-জামাই ও সতিনের ছেলের বিরুদ্ধে গত ২৪-০১-২৩ তারিখে আমি বাদী হয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যানসহ কেশবপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করি।পরবর্তিতে আদালতেও তাদের বিরুদ্ধে মামলা করি। থানায় ও আদালতে মামলা করায় ক্ষীপ্ত হয়ে জামাই-মেয়ে ও সৎ ছেলে বহিরাগত সন্তাসী দিয়ে আমাকে বাড়ী থেকে বের করে দিয়ে নিচে দোকান ঘর ও দ্বো-তলার বসত ঘরে তালা মেরে দেয়।

এ ব্যাপারে ঐ বৃদ্ধা মায়ের বড় সন্তান আবুল বাসার সাংবাদিকদের জানান,আমার পিতা জীবিত থাকাবস্থায় উল্লেখিত গোপসানা বাজারে অবস্থিত ১০ শতক জমির মধ্যে ০৮ শতক জমি বিক্রি করে দেয়।পিতার মৃত্যুর পর অবশিষ্ট ২ শতক জমির মধ্য থেকে স্থাপনাসহ দু-ভাই সিরাজুল ও কাইফুর ও মাতা হাসিনা বেগমের অংশ রেজিঃ করে নিই। যার দলিল নং-৪০৭০।পিতার মৃত্যুর পর মা দ্বো-তলায় বসবাস করত ও নিচে দোকান ঘর ভাড়া দেওয়া রয়েছে। সম্প্রতি পিতার ব্যাংকের টাকার হিসাব চাওয়ায় বৃদ্ধা মাকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে আনোয়ারা গং উপরে ও নিচে তালা মেয়ে দিয়েছে।

ব্যাংকের টাকা ও ঘরে তালা মারার ব্যাপারে আনোয়ারা খাতুন সাংবাদিকদের জানান,ব্যাংকের নমিনি যেহেতু আমার নামে তাই ব্যাংকের সমুদয় টাকার মালিক আমি। তাছাড়া দোকানঘরসহ বসতবাড়ী আমার টাকায় করা তাই তালা মেরে দিয়েছি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments