সোমবার, জুলাই ১৫, ২০২৪
Homeসারাবাংলাচাঁপাইনবাবগঞ্জে কালেক্টরেট শিশু পার্ক চালু হচ্ছে ৩ মে

চাঁপাইনবাবগঞ্জে কালেক্টরেট শিশু পার্ক চালু হচ্ছে ৩ মে

ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা শহরের কোমলমতি শিশুদের বিনোদনের খোরাক মেটাতে অবশেষে ৩ মে ২০২৩ থেকে চালু হচ্ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসনের ‘কালেক্টরেট শিশু পার্ক। তবে জেলা প্রশাসনের তত্বাবধানে গড়ে তুলা এ সুন্দর পার্কটিতে প্রবেশ করতে কোন প্রবেশ ফি বা টিকিট লাগবেনা। সর্ব সাধারনের জন্য উন্মুক্ত এ পার্কটিতে প্রতিদিন সকাল ১০ টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এখানে শিশুদের নিয়ে ঘুরে বেড়ানো যাবে।

জানা যায়, জেলা প্রশাসনের কর্তৃত্বাধীন ক্যালেক্টরেট শিশু পার্কটি দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে ছিল। সম্প্রতি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খাঁনের নির্দেশে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকা এ পার্কটির নতুন আঙ্গিকে সংস্কার করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। অবশেষে সেই শিশুপার্কটি পূর্ণাঙ্গ শিশু পার্ক হিসেবে চালু হতে যাচ্ছে ৩ মে। এ শিশুপার্কটি উদ্বোধন হয়ে গেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিশুরাসহ সকল শ্রেণী পেশার মানুষজন এখানে ছুটিরদিনসহ অবসর সময়ে এখানে এসে ঘুরে যাবেন।

পার্ক টি সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, পার্কের মধ্যবর্তী স্থানে একটি সুন্দর বড় ঝরণা, একদিকের প্রবেশ মুখে স্টাচু অব লির্বার্টি, গরিলা, ড্রাগন, ডায়নাসর, বড় হাতি ছোট হাতি, আমের প্রতিকৃতি, অন্যদিকের প্রবেশ মুখে বিভিন্ন ধরনের পাখি, এছাড়াও বিভিন্ন জায়গায় বাঘ, জিরাপ, ঘোড়া, হরিন, পঙ্খিরাজ, ক্যাঙ্গারু, মটু-পাতলু, মিকি, খরগোস, ময়ূর, স্পিং, দোলনা, সাইকেল, হাঁস, দোয়েল, কবুতরসহ আরো অংসখ্য প্রাণির প্রতিকৃতি স্থাপন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে রয়েছে সব খেলার ও বসার সামগ্রী। এই পার্কটি চালুর পর শিশুরা এখানে এসে সেইসব প্রাণিদের সম্পর্কে জানতে পারবে, তাদের মানসিক বিকাশও ঘটবে। পার্কের যেকোন একদিকে একটি ক্যান্টিন ও দোকান করা হবে। যাতে বিনোদন প্রেমীরা পার্কে ঘুরতে এসে হালকা খাবারও খেতে পারে।

ক্যালেক্টরেট শিশু পার্কটির বিষয়ে জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খাঁন বলেন, জেলা প্রশাসনের ১ একর ৭০ শতক জায়গা নিয়ে এ পার্ক। দীর্ঘদিন পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকায় সেখানে কেউ যাতাযাত করতো না। এছাড়াও এ অঞ্চলে শিশুদের জন্য ভালো কোন পার্ক না থাকায় আমরা এ ক্যালেক্টরেট পার্কটি শিশুদের উপযোগী করার সিদ্ধান্ত নেই। আমরা সুস্থ মানুষের জন্য ওয়ার্কওয়ে, শিশুদের জন্য বিভিন্ন ধরনের রাইড, খেলনা দিয়ে সাজানোর চেষ্টা করছি। আশেপাশের বিভিন্ন স্কুলের শিশু শিক্ষার্থীরা এখানে ঘরতে আসবে। আমরা চাই এ পার্কটি এ জেলার মানুষের বিকেল বেলার সুস্থ বিনোদন পার্ক হোক।

পার্কের সার্বিক দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম জানান, জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খাঁন স্যারের পরিকল্পনায় জেলা পর্যায়ে শিশুদের সুস্থ বিনোদনের জন্য বিভিন্ন প্রাণির ম্যুরাল ও খেলাধূলার রাইড স্থাপন, বিভিন্ন ডিজাইনের বসার জায়গা নির্মাণ, পার্কিং টাইলস দিয়ে ওয়াকওয়ে নির্মাণ করছি। এসব কাজের মাধ্যমে কালেক্টরেট শিশুপার্কটির সংস্কার ও আধুনিকায়ন করা হচ্ছে। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই শিশুপার্কটি পরিবর্ধিত ও পুনর্বিন্যাসকৃত অবস্থায় ৩ মে ২০২৩ থেকে চালু হতে যাচ্ছে। আশা করা হচ্ছে এই শিশুপার্কটি এই এলাকার শিশুসহ বিভিন্ন বয়সী জনসাধারণের কাছে অবসর সময়ের অন্যতম আকর্ষণীয় নির্মল বিনোদনকেন্দ্রে পরিণত হবে এবং শিশুদের মানসিক বিকাশে পার্কটি অন্যতম ভূমিকা থাকবে। ইতোমধ্যেই অনেকের কাছ থেকে শিশুপার্কটির বিষয়ে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যাচ্ছে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments