বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪
Homeসারাবাংলাউলিপুরে ৫ মিনিটের প্রবল ঝরের তান্ডবে লন্ডভন্ড ঘরবাড়ি

উলিপুরে ৫ মিনিটের প্রবল ঝরের তান্ডবে লন্ডভন্ড ঘরবাড়ি

বাংলাদেশ প্রতিবেদক:কুড়িগ্রামের উলিপুরে ৫ মিনিটের প্রবল ঝরের তান্ডবে লন্ডভন্ড হয়ে যায় অনেক বসতবাড়ি, গাছপালা ও বৈদ্যুতিক তার। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে ৫ মিনিট স্থায়ী ঝর আঘাত হানে।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুন) রাত সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলার উপর দিয়ে প্রবল ঝড় বয়ে যায়। প্রায় ৫ মিনিট ধরে চলা ঝড়ের তান্ডবে ১৩টি ইউনিয়নের কম পক্ষে ২১টি গ্রাম তছনছ হয়ে গেছে। লন্ডভন্ড হয়েছে ঘরবাড়ী, গাছপালা ও বিভিন্ন ধরনের ফসলের ক্ষেত। এর মধ্যে থেতরাই ইউনিয়ন, তববপুক ইউনিয়ন, বজরা ইউনিয়ন,গুনাইগাছ ইউনিয়ন ও উলিপুর পৌরসভার কিছু অংশ ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়া উপজেলার থেতরাই ইউনিয়নের তিস্তা নদীর উভয় তীরে অবস্থিত হোকডাঙা, কিশোরপুর, সাতদরগাহ ও হারুনেফড়া, বাড়াইপাড়া, বকশিপাড়া,সরকার পাড়া গ্রামে ঝড়ের আঘাতে ব্যাপক ক্ষতি হয়। এসব এলাকসহ উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

থেতরাই ইউনিয়নের কিশোরপুর কবিরাজ পাড়া গ্রামের রহিমা বেগম (৪০) বলেন, গত রাত্রে ঝরের তান্ডবে আমার ঘর উড়ে নিয়ে পুকুরে ফেলে দিয়েছে। আমি খোলা আকাশের নিচে অচেতন অবস্থায় পড়ে ছিলাম। সেখানে থাকা আমের গাছ আমার উপরে পড়ে যায়। পরে এলাকাবাসী আমাকে উদ্ধার করে বলেই কান্না করতে থাকেন। তিনি বলেন আমি বিধবা আমার স্বামী মারা গিয়েছে আমি গরিব মানুষ কিভাবে ঘর উঠাব বলেই কান্না করতে থাকেন।
একই এলাকার মোহাম্মদ আলী বলেন, আমি অনেক কষ্ট করে ১১ লক্ষ টাকা খরচ করে চার মাস আগে ঘর উঠিয়েছি। ৫ মিনিটের প্রবল ঝরে আমার ঘর উড়ে নিয়ে গেছে। অল্পের জন্য বেঁচে আছি। ঘরের চালার টিন কোথায় উড়ে গেছে এখন পর্যন্ত খুঁজে পাইনি বলে কেঁদে ফেলেন।

থেতরাই ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা বলেন, ৫ মিনিটের ঝড়ের কবলে পড়ে এ ইউনিয়নের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যান আরও বলেন, ঝড়ে এলাকার শতাধিক ঘর-বাড়ি, অসংখ্য গাছপালাসহ একাধিক বৈদ্যুতিক তার বিচ্ছিন্ন হয়েছে। এ ছাড়া কিশোরপুর গ্রামের রহিমা বেগমের ঘর উড়ে নিয়ে গেছে। তারপর গাছ ভেঙে গায়ের উপরে পড়ে আহত হলে এলাকাবাসী তাকে উদ্ধার করে।

বজরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম সরকার বলেন, আমার ইউনিয়নের দুটি গ্রামে প্রায় ১’শর বেশি ঘরবাড়ি ও গাছপালার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

তবকপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোকলেছুর রহমান জানান, আমার ইউনিয়নের ৫টি গ্রামে ঘরবাড়ি ও গাছপালার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

গুনাইগাছ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোকলেছার রহমান জানান, আমার ইউনিয়নের ৫ টি গ্রামের ঘরবাড়ি ও গাছপালার ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

উলিপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার শোহানুর রহমান বলেন, গত রাতে ঝরের তাণ্ডবে পৌরসভার নারিকেল বাড়ি এলাকায় ১টি বৈদ্যুতিক খুঁটি ভেঙে পড়েছে। তার ছিঁড়ে গেছে ২০ টি স্থানে। বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ৩৫ টি স্থানে বৈদ্যুতিক লাইনে গাছ পড়েছে এবং গাছ পড়ার কারণে ২৫ টি মিটার সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শোভন রাংসা বলেন, ঝড়ে ক্ষতির বিষয়ে মোবাইল ফোনে থেতরাই, বজরা, পান্ডুল, তবকপুরসহ কয়েকটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরা জানিয়েছেন। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ লিখিতভাবে পেলে জেলা কার্যালয়ে জানিয়ে সাহায্য চাওয়া হবে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments