মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২৪
Homeসারাবাংলাকুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট ও দিনাজপুরের সীমান্ত দিয়ে বেশি আসছে মাদক

কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট ও দিনাজপুরের সীমান্ত দিয়ে বেশি আসছে মাদক

জয়নাল আবেদীন: রংপুর বিভাগের ৮জেলার মধ্যে ৬জেলা সীমান্ত রয়েছে আর এই সীমান্ত ঘেসা কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট ও দিনাজপুরের সীমান্ত দিয়ে বেশি আসছে মাদক, এক বছরে অভিযানে সাড়ে ৩ লাখ ইয়াবা উদ্ধার হয়েছে ।গাঁজা, ফেন্সিডিল, ইয়াবা, ইনজেকটিং মাদক এসব সীমান্তবর্তী জেলা থেকে সারাদেশে সরবরাহ করছে মাদক চোরাকারবারীরা।

সোমবার রংপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে ‘মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধে করনীয়’ শীর্ষক রংপুর বিভাগীয় সেমিনারে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়। সকালে এ কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন, রংপুর বিভাগীয় কমিশনার হাবিবুর রহমান। জেলা প্রশাসক চিত্রলেখা নাজনীনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, রংপুর রেঞ্জ ডিআইজি মোহাঃ আবদুল আলীম মাহমুদ, রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের বিদায়ী কমিশনার নুরে আলম মিনা, জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হোসাইন মুহম্মদ রায়হান এবং শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন মহানগর আওয়ামীলীগের আহবায়ক ডা: দেলোয়ার হোসেন । কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্যে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর রংপুর বিভাগীয় কার্যালয়ের অতিরিক্ত পরিচালক আলী আসলাম হোসেন ।

তিনি জানান, গত ২০২২ সালে রংপুর বিভাগে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, রেঞ্জ পুলিশ, রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ, বিজিবি, র্যা বের অভিযানে ৩ লাখ ৫৬ হাজার ৭শ১১পিস ইয়াবা, ৩৯ কেজি হেরোইন, ৭ হাজার ৭শ১৮ কেজি গাঁজা, ১ লাখ ২৪ হাজার ৬শ৭০ বোতল ফেন্সিডিল, ১ লাখ ৮৩ হাজার ৯৮ পিস টাপেন্ডাডল, ৩৭ হাজার ৬শ৯ অ্যাম্পুল ইনজেকশন, ১০ গ্রাম আইস উদ্ধার করা হয়েছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের আইনে মামলা হয়েছে ৮ হাজার ১শ১৫টি। ভারত থেকে সীমান্তবর্তী জেলাগুলো থেকে মাদক দেশে প্রবেশ করে সারাদেশে সরবরাহ করা হচ্ছে। এর মধ্যে কুড়িগ্রামে আসছে গাঁজা ও ফেন্সিডিল এবং দিনাজপুর ও লালমনিরহাটে আসছে ফেন্সিডিল, ইনজেকটিং মাদক।

তিনি আরো বলেন ২০২০ সালের জরিপ অনুযায়ী, বন্ধুদের মাধ্যমে প্রভাবিত হয়ে ২১ থেকে ২৫ বছর বয়সীরা সবচেয়ে বেশি মাদকে নিমজ্জিত হচ্ছে। মাদকের বিস্তার রোধে রংপুর বিভাগের জেলা-উপজেলা পর্যায়ে আলোচনা সভা, কর্মশালা, লিফলেট বিতরণ, কমিউনিটি ভলান্টিয়ার টিম গঠনসহ নানা কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। কর্মশালার প্রধান অতিথি রংপুর বিভাগীয় কমিশনার হাবিবুর রহমান বলেন, আসবাবপত্রে অর্থাৎ কাঠে ঘুণ ধরলে যেমন সেই সম্পদ নষ্ট হয়ে যায় ঠিক তেমনি যিনি মাদকাষক্তে আক্রান্ত হন তিনি সহ তার পরিবার ধ্বংসের পথে চলে যায় ।তিনি মাদক নির্মূলে সকলকে একযোগে কাজ করার আহবান জানান ।তিনি বলেন বর্তমান সরকার মাদকের বিরুদ্ধে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য তৃণমূল পর্যায় থেকে মাদক বিরোধী নানা কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। সরকারী উদ্যোগে জেলায় জেলায় মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র তৈরী হচ্ছে। নতুন প্রজন্মকে মাদকের ভয়বহতা সম্পর্কে সচেনতন করতে পারলে আমরা উন্নত বাংলাদেশ গঠন করতে পারবো। ‘মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধে করনীয়’ শীর্ষক রংপুর বিভাগীয় সেমিনারে ৮টি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে বেশ কিছু সুপারিশ তৈরি হয় ।

বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর রংপুর বিভাগীয় কার্যালয়ের উদ্যোগে এ কর্মশালায় রংপুর বিভাগের বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের কর্মকর্তা, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি ও গণমাধ্যম কর্মীরা অংশ নেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments