শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলামৌলভীবাজারে পাহাড়, টিলা ও সমতল ভূমিতে আম চাষে সফল চাষিরা

মৌলভীবাজারে পাহাড়, টিলা ও সমতল ভূমিতে আম চাষে সফল চাষিরা

মোঃ জালাল উদ্দিন: এ বছর শুরুতেই মৌলভীবাজার সদর, শ্রীমঙ্গল, কমলগঞ্জ, কুলাউড়া, জুড়ি ও বড়লেখা উপজেলার পাহাড়ি টিলা ও সমতল ভূমিতে আম বাগানগুলো মুকুলে মুকুলে ভরে উঠে। এ বছর বাংলাদেশ কৃষি গবেষণার উদ্ভাবিত আম বারি-৪ ও ১১সহ উন্নত জাতের আমের ভালো ফলন হয়েছে। এরই মধ্যে চাষিরা এসব আম বাজারজাত করতে শুরু করেছেন। চাহিদা থাকায় বেচাকেনাও ভালো হচ্ছে। এদিকে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর বাগান আরও সম্প্রসারণে চাষিদের সার্বিক সহায়তার কথা জানিয়েছেন।

পাহাড়ি টিলা ও সমতল ভূমি সরেজমিনে দেখা যায়, পাহাড়ের টিলায় দৃষ্টিনন্দন আমবাগান। সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আছে ছোট-বড়-খাটো আকৃতির আমগাছ। বাণিজ্যিকভাবে গড়ে ওঠা এসব বাগানের গাছে গাছে অসংখ্য আম ঝুলে আছে। সবুজ থোকায় থোকায় আমের ভারে এক রকম নুয়ে পড়ছে গাছগুলো।

মৌলভীবাজার জেলা এ অঞ্চল মূলত প্রকৃতিগতভাবেই পাহাড় টিলা আর সমতলের সমন্বয়ে গড়ে ওঠা। এখানের মাটি ও আবহাওয়া মৌসুমি ফল চাষের অনুকূলে থাকায় অন্যান্য ফসলের মতো আম চাষেরও ব্যাপক উপযোগী। ফলে এ অঞ্চলে স্থানীয় জাতের পাশাপাশি কৃষি গবেষণার উদ্ভাবিত বারি-৪ ও ১১ জাতের আমসহ উন্নতজাতের হাঁড়িভাঙা, আম্রপালি, লেংরা, ফজলি ও অমৃত সাগর জাতের আমের বাগান গড়ে উঠেছে।

খরার কবলে পড়ে বেশকিছু মুকুল ঝরে পড়ার পরও চাষিরা বলেন, তাদের এবারে ফলন ভালো হয়েছে। তবে এরই মধ্যে বাগান থেকে আম নামিয়ে বাজারজাত শুরু করেছেন তারা। ফরমালিন মুক্ত থাকায় এসব আমের চাহিদা বেশি এবং বেচাকেনাও ভালো হচ্ছে। হাটবাজারের পাশাপাশি অনেক তরুণ চাষি অনলাইনের মাধ্যমে আম বিক্রি করছেন। আম চাষিরাও ভালো দাম পাওয়াতে খুশি।

তবে খরার পরও তার বাগানে আমের ফলন ভালো হয়েছে বলে জানিয়েছেন মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ত্রৈলক্ষবিজয় গ্রামের আম চাষি আবদুল কাইয়ূম। তিনি আরও বলেন, এ পর্যন্ত তিনি লক্ষাধিক টাকার আম বিক্রি করেছেন। সবই অনলাইনের মাধ্যমে বিক্রি হয়েছে।

অন্যদিকে আরেক চাষি মমরোজপুর গ্রামের নোমান মাহমুদ। তিনি বলেন, গত পাঁচ বছর ধরে বাণিজ্যিকভাবে বারি-১১সহ উন্নতজাতের আম বাগান গড়ে তুলেছেন। এ পর্যন্ত তিনি ৪০০ মণ আম বিক্রি করেছেন। প্রচুর অর্ডার রয়েছে। এবং তার বাগানে নভেম্বর মাস পর্যন্ত বিভিন্ন জাতের আম পাওয়া যাবে বলে জানান তিনি।

মৌলভীবাজার জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক সামছুদ্দিন আহমদ বলেন, এ বছর জেলায় উন্নতজাতের আমের বাম্পার ফলন হয়েছে।

আম বাগান আরও সম্প্রসারণের লক্ষ্যে কৃষি বিভাগ কাজ করছে বলে জানান তিনি।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের দেয়া তথ্য মতে, জেলার ১৯৪টি বাগানের ২ হাজার ২০৩ হেক্টর জমিতে আমের চাষাবাদ হয়েছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২৯ হাজার টন আম।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments