বৃহস্পতিবার, জুন ২০, ২০২৪
Homeসারাবাংলারংপুরের হাটে উঠতে প্রস্তুত সাড়ে ২২মণ ওজনের ‘জমিদার’

রংপুরের হাটে উঠতে প্রস্তুত সাড়ে ২২মণ ওজনের ‘জমিদার’

জয়নাল আবেদীন: পবিত্র ঈদুল আজহাকে ঘিরে রংপুরে এখনও কোরবানির পশুর হাট জমে উঠেনি। তবে হাটগুলো না জমলেও বেশকিছু গরুর খামার কিন্তু জমজমাট । কত রকম নাম, মান আর গুণের কারণে আলোচনায় থাকা গরু নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন খামারিরা। সেই তালিকায় যুক্ত হয়েছে রংপুরের নিভৃত পল্লীর এক পশু নাম দিয়েছে ‘জমিদার’।

রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার খোপাতি গ্রামের বাসিন্দা খামারি আশরাফুল মাষ্টারের কালো রঙের হৃষ্টপুষ্ট এই জমিদার মানুষের ভিড় দেখলেই শুরু করে পাগলামী। আর চলাফেরায় ভাবটা যেন জমিদারের মতোই। তিন বছর ধরে পরম-মমতায় জমিদারকে আগলে রেখেছেন তিনি । খামারেই জন্ম থেকে বেড়ে উঠেছে শাহিওয়াল জাতের এই গরুটি। খাওয়া-দাওয়া, স্বভাব আর চলনবলনের কারণে আদর করে গরুটিকে ডাকা হয় ‘জমিদার’ নামে।

দেশির খাবারে নাদুস-নুদুস ভাবে বেড়ে ওঠা ৩৪ মাস বয়সী জমিদারের ওজন এখন ৯০০ কেজি। খামারে গিয়ে দেখা যায়, জমিদারকে নিয়ে ব্যস্ত গোটা আশরাফুলের পরিবার। বিশাল আকৃতির এই গরুটিকে লালন পালন করে হাটে তোলার জন্য নেয়া হচ্ছে প্রস্তুতি। আর ঈদের হাট মাতাতে প্রস্তুত জমিদারও। আশরাফুল ও তার স্ত্রী শাহিদা বেগমের আদর-যতেœ বেড়ে ওঠা সাড়ে ২২ মণ ওজনের জমিদার এখন সবার নজরে।স্থানীয়রা বলছেন, পুরো উপজেরায় জমিদারের মত আরেকটা গরু নেই। জমিদারই তাদের কাছে সেরা। বিভিন্ন এলাকা থেকে অনেক মানুষ জমিদারকে এক নজর দেখার জন্য আসছে। গ্রামে অনেকের খামার রয়েছে তবে জমিদারের মতো লম্বা ও বিশাল আকৃতির গরু এখনো তাদের চোখে পড়েনি।খামারি আশরাফুল মাষ্টার আসন্ন ঈদুল আজহাকে ঘিরে জমিদারকে বিক্রির করতে প্রস্তুত তিনি।

এ জন্য গরুটির দাম হাঁকিয়েছেন ৭ লক্ষ টাকা। আট ফিট লম্বা ও সাড়ে ৫ ফিট উচ্চতা সম্পন্ন জমিদারের দুটি দাঁত রয়েছে। বর্তমান ওজন ৯০০ কেজির বেশি।জমিদার নাম রাখার কারণ প্রসঙ্গে তিনি জানান, গরুটির খাওয়া- দাওয়া ও চলাফেরায় বেশ জমিদারি ভাব, তাই বাসার সবাই আদর করে জমিদার বলে। ওই নামে ডাকলে সাড়াও দেয় গরুটি। এখন জমিদার প্রতিদিন ৩ কেজি খুদ চালের ভাত, ৪ কেজি ভুসি, ৪ কেজি ধানের গুড়া, কলা ও ২০ কেজি নেপিয়ার ঘাস খাচ্ছে। এছাড়াও দেশি ও লতাপাতাও জমিদারের বেশ পছন্দ। মাস্টারের প্রতিদিন ব্যয় হয় ৫শ থেকে ৬শ টাকা।আশরাফুল আরও জানান, বিভিন্ন এলাকা থেকে গরুর দালাল ও ব্যবসায়ীরা এসে জমিদারের দরদাম করছে। সর্বোচ্চ দাম ওঠেছে সাড়ে ৫ লক্ষ টাকা। তবে সাত লক্ষ দাম চাইলেও ক্রেতাদের জন্য তিনি জমিদারের দাম কেটে দিয়েছে সাড়ে ৬ লাখ টাকা। খামার থেকে বিক্রি না হলে হাটে তোলা হবে জমিদারকে।

কাউনিয়া উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. সঞ্চিতা রহমান বলেন, আশরাফুলের গরুসহ উপজেলার সকল খামারে গিয়ে প্রাণিসম্পদ বিভাগের লোকজন নিয়মিত পরামর্শ প্রদান করে আসছেন। অনলাইন হাটের মাধ্যমে কৃষক ও খামারিদের পশু ক্রয়-বিক্রয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। সকল খামারিকে এজন্য উদ্বুদ্ধও করা হচ্ছে।এদিকে ঈদুল আজহা উপলক্ষে কোরবানির জন্য রংপুর বিভাগের আট জেলায় প্রায় ১৪ লাখ পশু পস্তুত করেছেন খামারি ও গৃহস্থরা। ভালো দামের আশায় কোরবানির বাজার ধরার জন্য এসব পশু যতœ সহকারে লালন-পালন করছেন তারা। ভারত থেকে গরু না এলেও এ অঞ্চলের চাহিদা পূরণ করে উদ্বৃত্ত পশু অন্য এলাকায় সরবরাহ করা যাবে বলে রংপুর প্রাণিসম্পদ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে । সুত্র জানায় কোরবানির পশু বিক্রির উদ্দেশ্যে এ বিভাগের আট জেলায় দেড় লাখের বেশি খামারি প্রায় পাঁচ লাখ গরু বাণিজ্যিকভাবে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করেছেন। এছাড়া দুই লাখ গৃহস্থ প্রায় ৯ লাখ গরু ও খাসি বাজারে বিক্রি করার জন্য তৈরি করেছেন। এর মধ্যে রংপুর জেলায় সবচেয়ে বেশি প্রায় ৩৩ হাজার খামারে দুই লাখের ওপর গরু রয়েছে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments