বাংলাদেশ প্রতিবেদক: রাজধানীর মিরপুরের পাইকপাড়া আনসার ক্যাম্প এলাকার বাসা থেকে রাগ করে বেরিয়েছিল দুই কিশোরী। এরপর তারা স্থানীয় বখাটে চক্রের খপ্পরে পড়ে। তাদের সদরঘাট এলাকার একটি আবাসিক হোটেলে আটকে রেখে পাশবিকতা চালানো হয়। গত ২৯ সেপ্টেম্বর ১৪ বছর ও ১২ বছর বয়সী ওই দু’জন নিখোঁজ হওয়ার পর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন স্বজনরা।

গত সোমবার রাতে ডিবি পুলিশ তাদের উদ্ধারের পর এসব তথ্য জানা যায়। বর্তমানে তারা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি আছে।

এদিকে গত শুক্রবার মিরপুরের জনতা হাউজিং এলাকা থেকে স্কুলছাত্রী ও তাদের গৃহকর্মী কিশোরী নিখোঁজ হয়। গতকাল মঙ্গলবার পুলিশ তাদের নেত্রকোনার দুর্গাপুর এলাকা থেকে উদ্ধার করেছে। ১৪ বছর বয়সী স্কুলছাত্রী ও ১৩ বছর বয়সী গৃহকর্মী প্রেমের টানে ঘর ছেড়েছিল বলে পুলিশ জানিয়েছে। এ ঘটনায় রাব্বী ও সাগর নামে দু’জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এ ছাড়া পল্লবী থেকে নিখোঁজ তিন কলেজছাত্রী গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত উদ্ধার হয়নি। তবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সূত্র বলছে, তিনজনই দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে আত্মগোপন করেছে। আজকালের মধ্যেই তাদের উদ্ধার করা সম্ভব হবে বলে আশা করছেন তদন্ত-সংশ্নিষ্টরা।

পারিবারিক সূত্র ও ডিবি পুলিশ জানায়, ২৯ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার দিকে পাইকপাড়ার বাসা থেকে দুই কিশোরী বের হয়। এরপরই পূর্ব পরিচিত আরমান, সাব্বির, আল-আমিন ও নুরুল্লাহ নামে চার তরুণ তাদের জোর করে নিয়ে যায়। তাদের নিয়ে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরতে থাকে। একপর্যায়ে তারা ওই দু’জনকে রাজধানীর সদরঘাট এলাকার একটি আবাসিক হোটেলে নিয়ে ধর্ষণ করে। ডিবি পুলিশ দুই কিশোরীকে উদ্ধারে তৎপর হওয়ায় তাদের রেখে ওই চার তরুণ পালিয়ে যায়। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) মিরপুর বিভাগের ডিসি মানস কুমার পোদ্দার সমকালকে বলেন, অভিযুক্ত চারজনকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, ওই দু’জন ধর্ষণের শিকার হয়েছে। তাদের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে চিকিৎসা চলছে।

এদিকে গত শুক্রবার জনতা হাউজিং এলাকার বাসা থেকে স্কুলছাত্রী কিশোরী ও তাদের গৃহকর্মী নিখোঁজের পর স্বজনরা থানায় জিডি করেন। এরপরই পুলিশ তাদের উদ্ধারে তৎপর হয়। মিরপুর থানার ওসি মোস্তাজিরুর রহমান সমকালকে বলেন, স্কুলছাত্রী ফেসবুকে নেত্রকোনার বাসিন্দা মো. রাব্বী নামে এক উঠতি বয়সী তরুণের সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে বাসা ছেড়েছিল। তাদের গৃহকর্মী জামালপুরের বাসিন্দা মো. সাগর নামে অন্য এক তরুণের প্রেমে পড়ে ঘর ছাড়ে। মাত্র এক সপ্তাহের পরিচয়ে ওই দুই তরুণের ডাকে তারা বাসা থেকে বের হয়। এরপর তাদের দু’জনকেই নেত্রকোনার দুর্গাপুরে এক বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখান থেকেই তাদের উদ্ধার করা হয়েছে। ওসি বলেন, ওই ঘটনায় অপহরণের মামলা হয়েছে। রাব্বী ও সাগরকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আজ বুধবার আদালতে হাজির করা হবে।
নিখোঁজ ৩ ছাত্রী দক্ষিণাঞ্চলে :পল্লবী থেকে নিখোঁজ তিন কলেজছাত্রী দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে আত্মগোপন করেছে বলে একটি সূত্রে তথ্য মিলেছে। আজকালের মধ্যেই তাদের উদ্ধার করা সম্ভব হবে বলে আশা করছেন তদন্ত-সংশ্নিষ্টরা। তবে গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত দায়িত্বশীল কেউ এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য দেননি। র‌্যাব-৪-এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মোজাম্মেল হক সমকালকে বলেন, ছাত্রীদের উদ্ধারে কাজ করছে র‌্যাব। আপাতত এর বেশি কিছু বলা যাচ্ছে না।

তদন্ত-সংশ্নিষ্ট সূত্র জানায়, তিন ছাত্রী স্বেচ্ছায় ঘর ছেড়েছে। যতদূর জানা যাচ্ছে, তারা স্বভাবে স্বাধীনচেতা। পরিবারের কাছে তাদের কোনো প্রত্যাশা নেই। নিজেদের মতো জীবন কাটাতে উৎসাহী তারা। তাদের তিনজনের মধ্যে একটি বিশেষ ধরনের সম্পর্ক রয়েছে। এ কারণেই তারা যতটুকু পেরেছে টাকা-গহনা নিয়ে বের হয়েছে। বাসা থেকে বের হওয়ার সময়ই তারা তাদের মোবাইল ফোন ধ্বংস ও সিমকার্ড পুড়িয়ে ফেলে। পরে তারা বেশভূষাও পাল্টে ফেলে। এ কারণেই তাদের খুঁজে পেতে সময় লেগে যায়। অবশেষে তাদের সম্ভাব্য অবস্থানের খোঁজ পেয়ে চালানো হচ্ছে অভিযান।

পল্লবী থানার ওসি পারভেজ ইসলাম সমকালকে বলেন, পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাবসহ অন্যান্য সংস্থাও এ ব্যাপারে কাজ করছে। দ্রুতই ছাত্রীদের সন্ধান মিলবে বলে আশা করা হচ্ছে।
পল্লবী-১১ নম্বর সেকশনের সি-ব্লকের বাসিন্দা তিন কলেজছাত্রী গত ৩০ সেপ্টেম্বর সকালে বাসা থেকে বের হয়। তখন তাদের পরনে ছিল কলেজের পোশাক। তবে তারা সঙ্গে নেয় প্রচুর টাকা, স্বর্ণালংকার, মোবাইল ফোন ও স্কুলের সার্টিফিকেট।

Previous articleমানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে মূল চালিকাশক্তি মাঠ প্রশাসন
Next articleএসএসসির সিলেবাস আর সংক্ষিপ্ত করা হবে না: শিক্ষামন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।