বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা ও হলুদ সাংবাদিকতা

মো.ওসমান গনি: সংবাদপত্র ও সাংবাদিক একই সূত্রে গাঁথা।সংবাদপত্র ছাড়া যেমন সাংবাদিক কল্পনা করা যায় না ঠিক তেমনি সাংবাদিক ছাড়াও সংবাদপত্র কল্পনা করা যায় না।একে অপরের পরিপূরক হিসাবে কাজ করে থাকে।সাংবাদিক সংবাদপত্রের জন্য দেশ ও বিদেশের খবরাখবর সংগ্রহ করে সংবাদপত্র অফিসে প্রেরণ করে থাকে।সংবাদপত্র সে সাংবাদিকের পাঠানো খবরগুলো সংবাদপত্র ছেঁপে তা দেশ ও বিদেশের মানুষের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দেয়।যাতে করে মানুষ ঘরে বসে সারাবিশ্বের কোথায় কি হয়েছে জানতে পারে।যেহেতু সাংবাদিকের খবরটা সারাবিশ্বে ছড়ে যায় এবং সাংবাদিকের লেখা সংবাদের ওপর দেশ ও বিদেশের অনেক কিছু নির্ভর করে থাকে।সেহেতু সাংবাদিক কে অবশ্যই তথ্যবহুল সঠিক সংবাদ সংগ্রহ করে সংবাদপত্র অফিসে পাঠাতে হবে।যাতে করে সাংবাদিকের সংবাদের কারনে দেশে ও বিদেশের মধ্যে,অথবা কোন জাতি গোষ্ঠির মধ্যে অথবা কোন সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি না হয়।কিন্তু ইদানিং সংবাদপত্র জগতে একটি নাম সবার মুখে মুখে উচ্চারিত হয় তাহলো হলুদ সাংবাদিক।সাংবাদিক, সংবাদ কি কারণে মাঝে মাঝে হলুদ হয়, এর নাম সাদা, কালো ,লাল নীল কেনো হয়না? ,
“হলুদ সাংবাদিকতা” শব্দটা আমাদের সমাজে খুব প্রচলিত একটা শব্দ। যেটা বলতে আমরা সাধারণত মিথ্যা ,অপপ্রচার , কা-পুরুষোচিত সংবাদকেই বুঝে থাকি হলুদ সাংবাদিক ।
এখন আমার প্রশ্ন হলো,কেন হলুদ সাংবাদিকতা বলা হয়? রঙ তো বিভিন্ন কালারের আছে,হলুদ রঙের সাথে এর সম্পর্ক কি? প্রশ্নটা অনেকদিন থেকেই মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছিলো কি করবো কিছুতেই মেনে নিতে পারিনি তাই লেখতে হলো। বিভিন্ন যায়গায় ঘুরে ফিরে যা জানলাম সেটা পাঠকদের সাথে শেয়ার করলাম।

১৮৯০ সালের দিকে জোসেফ পুলিৎজারের New York World এবং উইলিয়াম হার্টস এর New York Journal পত্রিকা দুটির মধ্যে এক নীরব যুদ্ধ শুরু হয়, এই প্রতিযোগিতা ছিলো একে অন্যকে ছাড়িয়ে যাবার । পত্রিকাগুলো পাঠক ধরে রাখার জন্য বেশী করে খুন , ধর্ষণ এর খবর গুলো বেশী করে ছাপাতো, রঙ্গীন ব্যানার এবং আকর্ষনীয় ছবি দিয়ে ভরে রাখতো এবং বেশীরভাগ ক্ষেত্রে খবরগুলো মনের মাধুরী মিশিয়ে প্রকাশ করা হতো । যেটা ঐ সময়ে নীতি বহির্ভূত ছিলো । ঠিক ঐ সময়ে পুলিৎজার একটি নতুন কমিকস প্রকাশ করে যার নাম ছিলো “The yellow kid”। এখানে হলুদ বালক বলতে বোঝানো হতো এক কাপুরুষ ভীতু ছেলেকে । এখানে বলে রাখা ভালো আমেরিকায় কাপুরুষদের “yellow” বলে ব্যাঙ্গ করা হয় । আপনারা হয়তো অনেকেই Robert Zemeckis এর “Back To the Future “ সিনেমাটা দেখে থাকবেন। Back To the Future 2 তে নায়ককে তার প্রতিপক্ষরা উত্তেজিত করার জন্য বলতো “Hey You yellow” নায়ক প্রতিবারই উত্তেজিত হয়ে বলতো ‘nobody can call me yellow। যাইহোক পুলিৎজারের ঐ কমিক টা বের হবার পর yellow টার্মটা সাংবাদিকতায় চলে আসে । পরবর্তীতে যেকোনো মিথ্যা ,অপপ্রচারমূলক সংবাদের সমর্থক হিসেবে হলুদ সাংবাদিকতা বা “yellow journalism” টার্মটা ব্যবহার হতে থাকে।

হাজারো পেশার মধ্যে সাংবাদিকতা একটি মহৎ ও সম্মানজনক পেশা। তবে এর সঙ্গে আর অন্য দশটি পেশার পার্থক্য অনেক। তাই মহান পেশায় থেকে দেশের জন্য কাজ করা সাংবাদিকের গুরুত্ব অনেক বেশি।

আজকাল এ পেশায় হলুদ সাংবাদিকতা বেড়ে গেছে আশংখ্যাজনক হারে। তারা প্রশাসনের তদবির ছাড়া কিছুই বুঝে না। কিছু আছে সাংবাদিকতার নাম ভাঙ্গিয়ে চলে, অথচ তাদের বেলায় বড় বড় কথা বলতে দেখা যায় কাজের বেলায় কিছুই না। তাহলে ধরে নেয়া যাক তারা হলুদ এবং দূর্নীতিবাজ লোক তাদের দ্ধারা দেশ ও জাতীর কল্যাণ হবে না। আজকাল এ পেশায় দায়িত্বহীনতা বেড়েই চলছে। আমরা যারা এ পেশায় জরিত আছি- কথা হলো আমাদের দূর্নীতি এবং কৃতকর্মের দায়ভার পেশার উপর বর্তাবে কেন? আজকাল কিছু মানুষ দেখছি ১০ টাকার জন্য তদবির শুরু করে দেয়।এসব ‘সাংবাদিক’দের দায় নিতে হচ্ছে প্রকৃত সাংবাদিকদেরকে। এহেন কর্মকান্ড এ পেশায় শিক্ষা দেয় না। সাংবাদিকতার পেশা হলো দেশের ২য় স্তম্ভ। হোক না যতই প্রভাবশালী তাদের বিরুদ্ধে দেশে আইন আছে তারা দূর্নীতি করবে আমরা তা প্রশ্রয় দেব। কখনো হতে পারে না।

একজন ভালো ও পেশাদার সাংবাদিক হওয়ার জন্য কি কি প্রয়োজন? আজকের প্রতিষ্ঠিত ও সম্মানিত সাংবাদিকদের অনেকেই বিভিন্ন বিষয়ে পড়াশুনা করে এসেছেন। ভালো সাংবাদিক হওয়ার জন্য সাংবাদিকতাই পড়তে হবে এমনটা জরুরি নয়। তবে বিষয়টি পড়া থাকলে একজনকে ভালো সাংবাদিক হতে তা অবশ্যই সাহায্য করবে।

সাংবাদিকদের ‘সব কাজের কাজী’ হতে হয়। অর্থাৎ অনেক বিষয়ে মৌলিক জ্ঞান থাকা একজন সাংবাদিকের জন্য জরুরি। সেটা খেলা, অর্থনীতি ও বাণিজ্য, আইন-আদালত, সংবিধান, জ্বালানির মতো বিষয় হতে পারে। বিষয়টা আমার জন্য বিব্রতকর। দীর্ঘদিন ধরে সাংবাদিকতার সঙ্গে জড়িত থেকে আমি নিজে যখন কিছু সাংবাদিকের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড দেখে সমালোচনামূখর হই, তখন আমার সহকর্মীরাই আমার দিকে তেড়ে আসেন। আমাদের এই দেশে সবকিছু গোষ্ঠীবদ্ধভাবে বিবেচনার এক সংস্কৃতি আমরা চালু করেছি। যেখানে যা-ই ঘটুক না কেন, আমরা সবগুলোকে নিজেদের দলসূত্রে বেঁধে ফেলি। এর মাঝ দিয়ে হয়তো আক্রান্ত হওয়া থেকে কিছুটা রক্ষা পাওয়া যায়, কিন্তু নিজেদের দায়টুকুর দিকে নজর দেওয়া হয়ে ওঠে না। সব সাংবাদিক নির্যাতনই অপরাধীদের কাজ নয়, কখনও কখনও আমাদের পেশার প্রতি অন্য মানুষের দীর্ঘদিনের চাপা ক্ষোভ ও হতাশা থেকেও এটি হতে পারে।

আমরা যদি একে বারবার ‘সাংবাদিক নির্যাতন’ বলে এড়িয়ে যাই, তাহলে এরকম ঘটনা বন্ধ হবে না। আমাদেরকে খুঁজে দেখতে হবে সাংবাদিকদের সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মনোভাব আসলে কী?

নিজ অভিজ্ঞতায় বলতে পারি, এই মনোভাব খুব আমোদদায়ক নয়। এক শ্রেণির ‘তথাকথিত সাংবাদিকদের’ কর্মকাণ্ডে গোটা দেশের মানুষ ধীরে ধীরে এই পেশার প্রতি শ্রদ্ধা হারাচ্ছে।

এগুলো কি বিচ্ছিন্ন ঘটনা? অনেকেই হয়তো তা-ই বলবেন, কিন্তু বিচ্ছিন্ন ঘটনার প্রকোপ যখন অনেক বেশি হয়ে যায়, তখন সেটা এড়িয়ে যাওয়ার আর সুযোগ থাকছে না।

এই সমস্যার বড় কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে হরেদরে সাংবাদিক পরিচয় ব্যবহারের সুযোগ। এই সুযোগ নিয়ন্ত্রণ করতে হবে এবং এই নিয়ন্ত্রণ আরোপে প্রকৃত সাংবাদিকদের সাহসী উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন। মিডিয়ার সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে প্রতিভাবান তরুণরা এই সেক্টরে আসছেন না বলে অনেক সময় প্রায় অযোগ্য কিছু মানুষকে দিয়ে কাজ চালানো শুরু হয়েছে। এদের কোনো প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেনি অধিকাংশ চাকুরিদাতা প্রতিষ্ঠান। এসব প্রশিক্ষণবিহীন, সাংবাদিকতা সম্পর্কে ন্যূনতম জ্ঞানবিহীন অদক্ষরা সদ্য শিং-গজানো বাছুরের মতো বুকে আইডি কার্ড ঝুলিয়ে উন্মত্তের মতো আচরণ করছে। এরা রাস্তায় ট্রাফিক আইন ভাঙে, সরকারি বেসরকারি অফিসে গিয়ে ধমক দিয়ে কাজ করতে চায়।

এর বাইরে আছে স্বঘোষিত ধান্দাবাজদের ‘সাংবাদিক’ হয়ে ওঠা। পাড়া মহল্লার সাময়িকী কী এক পাতার কিছু একটা ছাপিয়েই কিছু লোক স্বঘোষিত সাংবাদিক হয়ে পড়ছে।

পাঠকরা জানেন, সাংবাদিকতা একটি স্পর্শকাতর পেশা। যে কারও হাতে যেভাবে ছুরিকাঁচি তুলে দিয়ে অপারেশনের সার্জন বানিয়ে দেওয়া গ্রহণযোগ্য হয় না।

অনেকেই হয়তো আমার এই লেখা গুলো মেনে নিতে পারবে না। সাংবাদিক নিয়ন্ত্রণের মনোভাব হিসেবে দেখতে চাইবেন।কারণ আমি যা প্রকাশ করি ভেবে চিন্তেই করি, কিন্তু আমার মনে হয় বরং প্রকৃত সাংবাদিকদেরই উচিত হবে এ বিষয়ে অগ্রণী ভূমিকা নেওয়া। আমাদের নিজেদের পেশার সুনাম রক্ষার জন্যই সাংবাদিকতার বাগান থেকে আগাছা দূর করার ব্যবস্থা জরুরি হয়ে পড়েছে।

একজন ভালোমানের সাংবাদিক হতে হলে, যেসব গুণ থাকা দরকার : ১. সিদ্ধান্ত ২. সততা ৩. ব্যক্তিত্ব ৪. ব্যবহার ৫. সাহসিকতা ৬. বস্তুনিষ্ঠতা ৭. অধ্যবসায় ৮.নিয়মানুবর্তিতা ও যোগাযোগ ৯. দায়বদ্ধতা ১০. বিচক্ষণতা

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে একথা স্বীকার করতেই হবে, এ পেশায় আজও সিংহভাগ জনশক্তিই অনাড়ি। তারা অপেক্ষাকৃত কম মেধাবী ও প্রশিক্ষণহীন। সাংবাদিকতায় পড়ালেখা করে এ পেশায় এসেছেন এমন লোকের সংখ্যা নিতান্ত নগন্য। পড়ালেখা করাতো দূরে থাক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন এমন লোকই বা কোথায়। অথচ একটি সম্ভাবনাময় ও চ্যালেঞ্জিং পেশা হিসেবে সাংবাদিকতা আজ দেশে-বিদেশে অনেক উঁচু মাপের পেশা। পৃথিবীতে যতগুলো পেশা আছে সাংবাদিকতা তার মধ্যে প্রথম সারিতে অবস্থান করছে। সাংবাদিকতায় অধ্যায়ন ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এ পেশায় প্রবেশ করতে পারলে একটি সম্ভাবনাময় ও উজ্জ্বল ক্যরিয়ার গড়া সম্ভব।

মো.ওসমান গনি

লেখক-সাংবাদিক ও কলামিস্ট