ঢাবি'র সাবেক শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার, স্বজন ও সহপাঠিদের প্রতিবাদ

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বাসা থেকে জাকারিয়া বিন হক শুভ নামের একজনের মরদেহ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে প্রতিবাদে নেমেছেন তার স্বজন ও সহপাঠিরা।

ঘটনাকে নিহতের শশুর পক্ষ আত্মহত্যা দাবি করলেও পরিবারের অভিযোগ পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। এ ঘটনায় স্ত্রী ও শাশুড়িকে আসামি করে মোহাম্মাদপুর থানায় মামলা করা হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ১৮তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন জাকারিয়া বিন হক শুভ। কাজ করতেন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সেলস অফিসার হিসেবে। ভালোবেসে আটমাস আগে বিয়ে করেন সহপাঠী, একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষককে। মোহাম্মদপুরের তাজমহল রোডের একটি বাসায় ভাড়া থাকতেন তারা।

২৪শে সেপ্টেম্বর রাতে ওই বাসা থেকে শুভর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। শ্বশুর পক্ষ বলছে, তুচ্ছ ঘটনায় আত্মহত্যা করেছেন শুভ। তবে, শুভর পরিবারের অভিযোগ, স্ত্রীর সঙ্গে বনিবনা না থাকায় পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করা হয়েছে।

এঘটনায় শুভর স্ত্রী ও শাশুড়ির নামে হত্যা মামলা করা হয়েছে। হাসিনা নাজনীন বিনতে হক, শুভর বড় বোন। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবিতে বিক্ষোভ করেছে শুভর সহপাঠী ও স্বজনরা।

মোহাম্মাদপুর থানা উপ পরিদর্শক আতিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, ময়না তদন্ত রিপোর্ট আসলে তখন আমরা বুঝতে পারবো কি ঘটনা ঘটেছিল। আসামি ধরার ব্যপারে প্রক্রিয়াধীন, আসামি পলাতক চেষ্টা চলছে।

হত্যা কিংবা আত্মহত্যা যাই-ই হোক না কেন শুভর মৃত্যুর প্রকৃত রহস্য উদঘাটন করে দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি স্বজনদের।