উচ্চশিক্ষার জন্য রাজধানীতে এসে লাশ হলেন মুন্না

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বুধবার (১৮ নভেম্বর) রাজধানীর মিরপুরে রাস্তার পাশ থেকে তুর্কি মুন্না নামের এক যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার শরীরে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। তাকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে জানিয়ে পুলিশ বলছে, জড়িতদের শনাক্তে কাজ করছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী।

তুর্কি মুন্না, সংগ্রাম হিসেবেই স্বজনদের কাছে পরিচিত। উচ্চশিক্ষার্থে IELTS করার জন্য বুধবার (১৮ নভেম্বর) ভোরে নামেন ঢাকায়। কিন্তু অজানা কারণে সংগ্রামের সংগ্রামটা থেমে গেল এখানেই, হলো না IELTS করা, হবে না উচ্চ শিক্ষা। বুধবার ভোর রাতে বাস থেকে নামার পর শাহ আলী থানার পাশেই বিদ্যুৎ অফিসের কাছে খুন হন তুর্কি মুন্না ওরফে সংগ্রাম।

ভোর সাড়ে চারটার দিকে সংগ্রামের সাথে শেষ কথা হয় রহমতের। ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে হঠাৎ থানা থেকে ফোন।

মুন্নার বন্ধু রহমত বলেন, ‘থানা থেকে ভোর ৫ টার দিকে আমাকে ফোন দিয়ে বলছে আপন কি রহমত। আমি বললাম জ্বী আমি রহমত। তারপর বলে আপনি একটু শাহ আলী থানায় আসেন। তারপর আমি আমার বড় ভাই এবং আমার এক বন্ধুকে নিয়ে থানায় আসছি।’

সংগ্রামকে খুন নাকি পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে কিছুই বুঝে উঠতে পারছেন না স্বজনরা।

মুন্নার চাচা বলেন, ‘ও লেখাপড়া করত, ও খুব নরম স্বভাবের ছিল। সব সময় মাথা নিচু করে কথা বলত। কোনদিন উগ্র মেজাজে কথা বলেনি।’

মুন্নার মামা বলেন, ‘গ্রাম থেকে ফোন আসছে। এরকম সন্দেহের যে সুত্র সেই সুত্র থেকে আসছে যে ওরই খালু। তবে এটা না জেনে বলাটাও ঠিক না।’

তবে রহস্য উদঘাটনে মাঠে কাজ করছে পুলিশের বেশ কয়েকটি টিম। অভিযোগের ভিত্তিতে আইনি ব্যবস্থার কথা জানায় পুলিশ।

শাহ আলী থানার ওসি এবি এম আসাদুজ্জামান বলেন, ‘কে বা কারা তাকে মেরেছে, ঘটনাস্থলেই সে মারা গেছে। পরে সাথে সাথে আমাদের অফিসার সেখানে যান। বিষয়টি তদন্তধীন আছে। বেশ কয়েকটি সংস্থা কাজ করছে। র‍্যাব আছে, ডিবি কাজ করছে সাথে আমরাও কাজ করছি।’

মুন্না ওরফে সংগ্রাম সৈয়দপুর ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে চলতি বছরে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেন।