জয়নাল আবেদীন: মাইগ্রেশনের দাবীতে রংপুর নর্দান প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে ।মঙ্গলবারও কলেজের ৩ শতাধিক শিক্ষার্থী গোটা নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল শেষে রংপুর প্রেসক্লাবের সামনে এসে মানবন্ধন করে । এসময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, বাংলাদেশ মেডিকেল ডেন্টাল কাউন্সিল ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদন না থাকা স্বত্ত্বেও ৩ শতাধিক দেশী-বিদেশী শিক্ষার্থীকে ভর্তি করে কর্তৃপক্ষ। অনুমোদন পাওয়ার আশ্বাস দিয়ে তারা কলেজের কার্যক্রম চালাচ্ছে। ধার করা রোগী ও শিক্ষক দিয়ে ক্লাস করিয়ে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা জীবন ধ্বংস করাসহ কর্তৃপক্ষ হাতিয়ে নিয়েছে কোটি কোটি টাকা।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার আলতাফ হোসেন বলেন, উত্তপ্ত পরিস্থিতি আমরা নিয়ন্ত্রণ করেছি। নর্দান মেডিকেলের সমস্যাটা দীর্ঘদিনের। কর্তৃপক্ষ এখানে দূর্বল-ভঙ্গুর পরিস্থিতিতে রয়েছে। ছাত্রদের জীবন নিয়ে ছিনিমিন খেলার কোন অধিকার নেই তাদের। এজন্য আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ সব জায়গায় আমরা লিখবো।

এর আগে সোমবার বিকেলে নর্দান প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চেয়ারম্যান ড. তাসকিনুর রহমান নগরীর এসোড ট্রেনিং সেন্টারে উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, নর্দান প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ সরকারী নিয়ম-নীতি অনুযায়ী চলছে। ২০০০ সাল থেকে ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষ পর্যন্ত কলেজটি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে নিয়মিত অধিভূক্তি প্রাপ্ত এবং অধিভূক্তি নবায়নের মাধ্যমে অত্যন্ত সুনামের সাথে মেডিকেল শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। বর্তমানে উল্লেখযোগ্য শিক্ষার্থী রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে রেজিষ্ট্রেশনভূক্ত ও নিয়মিত এমবিবিএস শিক্ষার্থী হিসেবে অনুমোদন পেয়েছে। অথচ বলা হচ্ছে, মেডিকেল কলেজের কোন অনুমোদন নেই, ভূয়া রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে এমবিবিএস কোর্সে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়েছে। যা সম্পূর্ণ বানোয়াট।

Previous articleডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে ঠাকুরগাঁওয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ
Next articleকলাপাড়ায় হামলা,মামলা, নির্যাতন ও হত্যার প্রতিবাদে গনমাধ্যমকর্মীদের কলম বিরতি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।