বাংলাদেশ প্রতিবেদক: হার না মানা এক মেয়ের গল্প। যদিও তার পরিধি অল্প। যার বাবা একজন সাধারণ অটোচালক। এক সময় প্যাডেল রিকশাচালক ছিলেন। কখনো পেটের দায়ে ছিল মজুর। যে ঘরে তার বাস সেখানে কেবলই নির্জনতা। উত্তর পাশটা কেবলই ঝোঁপঝাড়ে ঘেরা। বৃষ্টি এলে টিনের চালে ঝিম ঝিম শব্দ হলেও কিছুক্ষণ পর টিন বেয়ে জলের ধারা ভিঁজিয়ে দেয় পুরো মেঝ। নেই পড়ার একটি টেবিল। টি টেবিলটিই তার টেবিল। প্লাস্টিকের চেয়ারটাও অনেক পুরনো হয়ে গেছে। কখনো জোটে খাবার আবার কখনো জোটে না। কিন্তু পড়া মিস নেই। স্কুল মিস নেই। কলেজ পেরিয়ে এখন তিনি মেডিক্যালর শিক্ষার্থী।

তার আগ্রহ দেখে বাছিরুন্নেছা স্কুলের প্রধান শিক্ষক মঞ্জুর মোর্শেদ মেয়েটির পড়া ফ্রি করে দেন। তাকে উৎসাহ আর উদ্দীপনা দেন রাসেল। রাসেল হলেন মুন্সীগঞ্জের রামপাল ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম সালাম সাহেবের সন্তান। সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে তিনি বরিশাল শেরে বাংলা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হন।

মেয়েটির নাম তানজুমান। বাবা আব্দুল মামুন। গ্রাম সুখোবাসপুর। থানা ও জেলা মুন্সীগঞ্জ। তার স্বপ্ন ডাক্তার হবার পর তার মতো দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সময়টা সব সময়ই তিনি গচ্ছিত রাখতে ইচ্ছুক। এ জন্য তা শনিবার বা শুক্রবার নামক ছকবাধা কথায় বেঁধে রাখতে ইচ্ছুক নয়। দরিদ্রতার সকল বাধা অতিক্রম করে তিনি দেখিয়েছেন মনোবল ধরে রাখলে কোনো কিছুই অসম্ভব নয়। এমনই দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন তানজুম।

তানজুম সৃষ্টিকর্তার কাছে গভীর কৃতজ্ঞাতা জানিয়েছেন। আমরাও তার পাশে দাঁড়াতে চাই। তানজুমরা হলেন সমাজের আলোকময় দৃষ্টান্ত।

Previous articleশাহজাদপুরে গ্রামবাসীর হামলায় এসিল্যান্ড আহত, ইউএনও’র গাড়ি ভাংচুর
Next articleজলদস্যুর হামলায় ২ জেলে নিহত, আহত ১৫
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।