বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নিবন্ধন করেও এসএমএস পেতে অপেক্ষা করতে হচ্ছে টিকা প্রত্যাশীদের। এই নিয়ে দুশ্চিন্তা না করার আহ্বান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বললেন, কেন্দ্রের দৈনিক সক্ষমতা অনুযায়ী ক্ষুদে বার্তায় টিকা দেয়ার তারিখ জানিয়ে দেয়া হচ্ছে। এদিকে, স্বাস্থ্য সচিব জানান, শিগগিরই দেশে আসবে আরও ৫০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন।

দেশে গণহারে কোভিড টিকাদান কর্মসূচির দশম দিনেও বিভিন্ন কেন্দ্রে কেন্দ্রে ছিলো মানুষের উপচেপড়া ভিড়। সব দ্বিধা-সংশয় দূর হয়ে যাওয়ায় মানুষের চাপ বাড়ায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে প্রত্যাশীদের। তবে এ অপেক্ষাও সহজভাবেই মেনে নিচ্ছেন টিকা গ্রহীতারা।

টিকা নিতে আসা একজন বলেন, আমি যদি সুরক্ষিত থাকি তাহলে আমার পরিবার, আমার কর্মস্থল সুরক্ষিত থাকবে। এই কারণে আমাদের সবার উচিৎ ভ্যাকসিন নেয়া।

কোনো কোনো কেন্দ্রে বরাদ্দকৃত টিকার বিপরীতে নিবন্ধনের সীমা পার হয়ে গেছে। এ কারণে বন্ধ করে দিতে হয়েছে নতুন করে নিবন্ধনের সুযোগ।

ঢাকা ডেন্টাল কলেজ কেন্দ্রের পরিচালক অধ্যাপক ড. বুরহান উদ্দীন হাওলাদার বলেন, প্রতিটি কেন্দ্রে রেজিস্ট্রেশনের একটা লিমিটেশন রয়েছে আমাদের কেন্দ্রে দশ হাজারের সীমা ছিলো, সেটা অনেক আগেই পূরণ হয়ে গেছে।

এদিকে, নিবন্ধনের সপ্তাহখানেকের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও এখনো অনেকে পাননি টিকা নেয়ার ক্ষুদেবার্তা। তবে কেন্দ্রের দৈনিক সক্ষমতা অনুযায়ী এসএমএস পাঠানো হচ্ছে জানিয়ে এ নিয়ে দুশ্চিন্তা না করার পরামর্শ স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের।

তিনি বলেন, যেখানে এরিমধ্যে অতিরিক্ত লোড হয়ে গেছে সেখানে আর নিবন্ধন বাড়াবেন না। টিকা নাই, বা কমে গেছে- এমন কোনো সমস্যা নাই। টিকা যেখানে যতটুকু দেয়া দরকার সেখানে ততটুকু দেয়া আছে। যদি কখনো কমে যায় বা অতিরিক্ত প্রয়োজন হয় সেখানে টিকা পৌঁছে দিচ্ছি।

এদিকে, বুধবার সকালে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য সচিব জানান, এ মাসের শেষে বা মার্চের প্রথম সপ্তাহে দেশে আসবে আরও ৫০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন।

টিকা নেয়ার বয়সসীমা আপাতত কমানোর পরিকল্পনা নেই বলেও জানান স্বাস্থ্যসচিব আব্দুল মান্নান।