বাংলাদেশ ডেস্ক: ভারতের বিহার রাজ্যের পাটনায় গরু চোর সন্দেহে ৩২ বছর বয়সী এক মুসলিমকে পিটিয়ে হত্যা করেছে উগ্রবাদীরা। অভিযুক্ত সবাইকে আটক করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, ছয়জনের নামে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তাদের সবাইকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার সকালে পাটনার পার্শ্ববর্তী ফুলওয়ারি শরীফে নৃশংস এ ঘটনা ঘটে।

হত্যাকাণ্ডের শিকার ব্যক্তির নাম মুহাম্মদ আলমগীর। ভারতীয় গণমাধ্যমের দাবি, রাত তিনটার দিকে গোয়াল ঘর থেকে পশু চুরির সময় তাকে আটক করে মারধর করা হয়। তার সাথে আরেকজন ছিল, তিনি পালিয়ে যান।

আলমগীরকে কয়েক ঘণ্টাব্যাপী নৃশংসভাবে মারধর করা হয়। বুধবার বিকেলে হাসপাতালে তিনি মারা যান।

নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে কট্টর হিন্দুত্ববাদী ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ক্ষমতায় আসার পর থেকে দেশটির সংখ্যালঘু বিশেষ করে মুসলমানদের ওপর নির্যাতনের মাত্রা বহু গুণে বেড়ে যায়। ২০১৭ সালে গরু রক্ষার নামে উগ্রবাদীদের বর্বরতা সবসীমা ছাড়িয়ে যায়।

তখন বাধ্য হয়ে মুখ খোলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বলেন, গরুর প্রতি ভক্তি দেখিয়ে মানুষ হত্যা গ্রহণযোগ্য নয়।

গরুকে হিন্দুরা পবিত্র মনে করে। ভারতের কয়েকটি রাজ্যে গরু জবাই নিষিদ্ধ। গরু রক্ষায় কয়েকটি কমিটি করেছে বিভিন্ন উগ্রবাদী সংগঠন। প্রায় তারা নানা অজুহাতে আইন নিজের হাতে তুলে নেয়, যাতে সংঘাত এবং মৃত্যু পর্যন্ত ঘটে। যার প্রতিটির শিকার হয়েছে মুসলমানরা।