বাংলাদেশ প্রতিবেদক: পাকিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় এলাকায় হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে দুই পাইলটসহ সেনাবাহিনীর ৪ সদস্য নিহত হয়েছেন। শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) বিকেলে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে বলে জানায় দেশটির সেনাবাহিনী।

এক বিবৃতিতে সেনাবাহিনী জানায়, গিলগিট বালটিস্তানের মিনিমার্গ এলাকায় উদ্ধার অভিযান পরিচালনার সময় কারিগরি ত্রুটির কারণে হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্ত হয়।

পাইলট মেজর মো. হুসাইন, সহকারী পাইলট মেজর আয়াজ হুসাইন, নায়েক ইনজিমাম আলম এবং সেনা সদস্য মুহাম্মদ ফারুক নিহত হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে সেনা কর্তৃপক্ষ। বলা হয়, সেনা সদস্য আবদুল কাদেরের মরদেহ স্কার্ডু শহরে অবস্থিত সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নিয়ে আসার সময় মিনিমার্গে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়।

এছাড়া, চলতি বছরের এপ্রিলে দেশটির উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় পাঞ্জাব প্রদেশে সেনাবাহিনীর ছোট বিমান বিধ্বস্ত হয়ে দুই পাইলট নিহত হন।

১২ ফেব্রুয়ারি উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় খায়বার পাখতুনখোয়া প্রদেশের রাজধানী পেশোয়ার থেকে ৬৩ কিলোমিটার দূরের তাখত ভাই এলাকায় সামরিক বাহিনীর একটি প্রশিক্ষণ বিমান হঠাৎ নিচে আসে। পাইলটের দক্ষতায় সে সময় হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

৭ ফেব্রুয়ারি পাঞ্জাবের শোরকোটে নিয়মিত অনুশীলনের সময় যুদ্ধবিমান মিরাজ আচমকা অবতরণ করে। এ যাত্রায়ও পাইলটের দক্ষতায় জানমালের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।

চলতি বছর করাচিতে পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের (পিআইএ) একটি বিমান আবাসিক এলাকায় বিধ্বস্ত হয়। এতে ৯৮ জন নিহত হয়। এরপর থেকে পিআইএ কঠোর নজরদারির আওতায় রয়েছে।

২০১৫ সালের আগস্টে দেশটির উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় এলাকায় সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে ১২ জন নিহত হন। একই বছরের মে মাসে গিলিগিটের অবকাশযাপন কেন্দ্রে সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টার এমআই-১৭ বিধ্বস্ত হয়। বিদেশি দুই রাষ্ট্রদূতসহ মারা যায় অন্তত ৭ জন।

দর্শনীয় পবর্তমালার জন্য জনপ্রিয় পাকিস্তানের স্বায়ত্বশাসিত গিলগিট বালটিস্তানের সঙ্গে চীন, আফগানিস্তান এবং ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের সীমান্ত থাকায় কৌশলগতভাবেও গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চলটি।