বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গত বছরের শেষ দিকে চীন জানায়, তারা ইয়ারলুং জাংবাও বা ব্রহ্মপুত্র নদে বিশাল বাঁধ তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছে। এই নদী তিব্বতের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে যখন ভারতে প্রবেশ করে, তখন বলা হয় ব্রহ্মপুত্র। ভারত হয়ে বাংলাদেশে ঢুকেছে ব্রহ্মপুত্রের জল। এই বাঁধ দেয়াকে কেন্দ্র করে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক আরো তলানিতে চীনের।

চীনের এই মেগা প্রজেক্ট নিয়ে শুধু ভারত নয়, বাংলাদেশের সঙ্গেও কোন ধরনের আলোচনা ছাড়াই কাজ এগিয়ে নিচ্ছে শি জিনপিং সরকার। এমনকি পানি কিভাবে বণ্টন হবে এ বিষয়ে কিছুই জানায়নি দেশটি।

চীনের বাঁধ দেয়া নিয়ে রোববার (২৪ জানুয়ারি) একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ভারতীয় গণমাধ্যম এশিয়া টাইমস। বেইজিং-এর সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখেই বাঁধ নির্মাণ নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছিল ঢাকা-নয়াদিল্লি। কিন্তু সেই প্রতিবাদে জল ঢেলে দিয়েছে বেইজিং।

এ বিষয়ে প্রখ্যাত সুইডিশ সাংবাদিক বার্টিল লিন্টার এশিয়া টাইমসের এক মতামতের অংশে লিখেছেন, ইয়ারলুং জাংবাও নদীর মেগা-বাঁধ সংক্রান্ত সুনির্দিষ্ট প্রযুক্তিগত তথ্যের ব্যাপক অভাব রয়েছে। এদিকে স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ইয়াংসি নদীর তীরে তিনটি বড় বাঁধ নির্মিত হচ্ছে, যেখান থেকে চীন তিনগুণ বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে। চীনের এই পরিকল্পনার ফলে দেশটির সঙ্গে ভারতের যুদ্ধ হতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

চীনের একতরফা পদক্ষেপে কেবল ভারতই নয়, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অন্যান্য দেশগুলির সঙ্গেও বেইজিং-এর বির্তক সৃষ্টি হয়েছে। কারণ, ব্রহ্মপুত্রের ওপর মেগা প্রকল্প নিয়ে প্রতিবেশী দেশেগুলোর সঙ্গে কোন আলোচনায় না বসেই এই বিতর্কিত পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

বিশ্লেষকদের ধারণা, ব্রহ্মপুত্রের পানি ভারত-বাংলাদেশ উভয়েরই জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এই অঞ্চল কৃষিকাজের উপর নির্ভর। ভারত ও বাংলাদেশ উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যে রাজনৈতিক বিরোধের পরিস্থিতিতে চীন এই বাঁধ দিয়ে পানি সরিয়ে দিতে পারে। আর পানি নিয়ে ভারত সঙ্কটে পড়লে চীনের সঙ্গে যুদ্ধ বেঁধে যাওয়ারও আশঙ্কা রয়েছে।

এশিয়া টাইমসে আরো বলা হয়েছে, পূর্ব নোটিশ ছাড়াই মেকং নদীতে ১১টি বাঁধ নির্মাণ করেছে চীন। ফলে মিয়ানমার, লাওস, থাইল্যান্ড, কম্বোডিয়া ও ভিয়েতনামে পানির স্তর ব্যাপকভাবে ওঠানামা করেছে। দেখা দিচ্ছে আগাম বন্যা ও ভূমিধস। আর শুষ্ক মৌসুমে পানি সঙ্কট। এ নিয়ে লাউস বেইজিংকে একাধিক চিঠিতে অবগত করলেও তাতে সাড়া দেয়নি দেশটি।